trump approval rating

ওয়েবডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্টদের নিরিখে তাঁর জনপ্রিয়তা যে সব থেকে কম তা ফের প্রমাণিত হল একটি জনমত সমীক্ষায়। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে প্রতি একশো জন মার্কিন নাগরিকের মধ্যে ৬১ জনেরই সায় নেই ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাজকর্মে।

মসনদে এক বছর হতে চলেছে ট্রাম্পের। এক বছরে কত মানুষ তাঁর কাজকর্ম পছন্দ করেছেন, ‘গালুপ’ নামক একটি সংস্থার করা সমীক্ষায় উঠে এসেছে এই তথ্য। এই তথ্যের ভিত্তিতে যেটা প্রমাণিত হয়েছে সেটা হল, প্রথম বছরের কাজকর্মের বিচারে সব মার্কিন প্রেসিডেন্টদের নিরিখে এক্কেবারে নীচে রয়েছেন ট্রাম্প। মাত্র ৩৯ শতাংশ মানুষ ট্রাম্পের কাজে সায় দিয়েছেন।

প্রতি সপ্তাহে এই সমীক্ষা করে সংস্থাটি। সব সাপ্তাহিক সমীক্ষার গড়ের ভিত্তিতেই দেখা গিয়েছে, ট্রাম্পের কাজে সায় নেই অর্ধেকেরও বেশি মার্কিন নাগরিকের। ট্রাম্পের আগে সব থেকে নীচে ছিলেন প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিন্টন। ১৯৯৩ সালের এই সময়েই মসনদে এক বছর পার করেছিলেন ক্লিন্টন। তখন এই ধরনের একটি সমীক্ষায় দেখা যায় ৪৯ শতাংশ মানুষের সায় ছিল তাঁর কাজে।

সাম্প্রতিক বিভিন্ন সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে ট্রাম্পকে বিভেদ সৃষ্টিকারী নেতা হিসেবেই দেখেন বেশির ভাগ মার্কিনী। এমনকি প্রেসিডেন্টের চেয়ারে বসার সুস্থতা ট্রাম্পের নেই বলেও দাবি করেন অনেকে। তবে এ সবের মধ্যেও অর্থনীতিকে সামাল দেওয়ার জন্য যে সব নীতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিয়েছেন তাতে অনেক মানুষেরই সায় রয়েছে বলে দেখা গিয়েছে সমীক্ষায়।

তবে মার্কিন ইতিহাসে দেখা গিয়েছে প্রেসিডেন্টের প্রথম বছরটা ‘মধুচন্দ্রিমা অধ্যায়’ হিসেবেই দেখেন মার্কিন নাগরিকরা। তাই সমীক্ষায় বেশির ভাগ মানুষের সায় মার্কিন প্রেসিডেন্টদের দিকেই থাকে। কিন্তু এ বার যেন সব হিসেব এক্কেবারে উলটে গিয়েছে। এই এক বছরের মধ্যে যত বার সাপ্তাহিক সমীক্ষা হয়েছে, তাতে মাত্র একবারই ৪৫ শতাংশ মানুষের সায় পেয়েছিলেন ট্রাম্প। সেটাই ছিল এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ সংখ্যা। বেশির ভাগ সময়েই সায়ের হারের নিরিখে ৪০ শতাংশের নীচেই ছিলেন তিনি। এখনও পর্যন্ত ট্রাম্পের সর্বনিম্ন স্কোর হল ৩৫ শতাংশ।

তবে জনপ্রিয়তার নিরিখে তলানিতে থাকা অবস্থা থেকেও নিজেদের পুনরুদ্ধার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্টরা। ক্লিন্টনের উদাহরণই ধরা যাক। ১৯৯৩-এর জুনে তাঁর জনপ্রিয়তার হার ছিল মাত্র ৩৭ শতাংশ। কিন্তু সেখান থেকে নিজের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও জিতে যান তিনি।

তবে ট্রাম্পের সব কিছুই তলানিতে এটা ভাবলে ভুল হবে। গত ডিসেম্বরে অন্য একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, অর্থনীতির উন্নতিতে ট্রাম্প যে পদক্ষেপ নিয়েছেন তাতে সায় রয়েছে অধিকাংশ মানুষের। অন্যদিকে সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করা যতজন ভোটার নিজেদের রিপাবলিকান বলে চিহ্নিত করেছেন, তাতের মধ্যে ৮৩ শতাংশ মানুষই ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন