সিলভেজ (তুরস্ক) : আস্তে আস্তে কমে আসছি ল টুইটের সংখ্যা। আলেপ্পোবাসীর পাশাপাশি সাত বছরের বানার জন্য দুশ্চিন্তা বাড়ছিল গোটা পৃথিবীর। কে জানে কোথায় আছে মেয়েটা, বেঁচে আছে তো? সোমবার সকালেই বানা আল আবেদ ও তার পরিবারকে উদ্ধার করা হয়েছে আলেপ্পো থেকে। উদ্ধারকারী বেসরকারি সংস্থার কর্মী টুইট করে বিশ্ববাসীকে জানায় সে কথা। বানার টুইট করা ছবির মাধ্যমেই বিধ্বস্ত আলেপ্পোর ভয়াবহতা পৌঁছে গিয়েছিল পৃথিবীর নানা প্রান্তে। 

ছোট্ট বানা এবং তার মা নিয়মিত তাদের টুইটার অ্যাকাউন্টে তুলে আনত এক টুকরো জ্বলন্ত সিরিয়া। সে খবর পৌঁছে যায় স্বয়ং প্রেসিডেন্টের কাছেও। বাসার আল আসাদ সমালোচনা করে মন্তব্য করেছিলেন, টুইটারে যুদ্ধবিধ্বস্ত আলেপ্পোর ছবি পোস্ট করা নাকি তাদের ‘প্রোপ্যাগান্ডা’।

syria-2

একই দিনে আলেপ্পোর অনাথ আশ্রমে আটকে থাকা ৪৭টি শিশুকে উদ্ধার করল রাষ্ট্রপুঞ্জের উদ্ধারকারী দল। উদ্ধার করা শিশুদের মধ্যে কয়েক জনের অবস্থা সংকটজনক। অনেকের শরীরে রয়েছে গুরুতর আঘাত। পর্যাপ্ত খাবার আর জলের অভাবে ডিহাইড্রেটেড হয়ে গিয়েছে শরীর। ইউনিসেফের আঞ্চলিক ডিরেক্টর গিরট ক্যাপ্পেলেরে জানিয়েছেন, একাধিক সংস্থার সহযোগিতায় রাষ্ট্রপুঞ্জ আলেপ্পোয় আটকে থাকা শিশুদের ফিরিয়ে দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছে তাদের পরিবারের কাছে।

 

পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে যুদ্ধ চলছে সিরিয়ায়। যুদ্ধে প্রাণ হারানোর সংখ্যা বেড়েই চলেছে দিন দিন। গত পাঁচ বছরে অকালে ঝরেছে ৩ লক্ষ প্রাণ। তার চেয়েও মর্মান্তিক সত্যিটা, এদের মধ্যে প্রাণহারানো শিশুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৫ হাজার।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here