ওয়েবডেস্ক:ভোর ৫টা নাগাদ সুনীতা দেবীর ফোনটা বেজে উঠল। টেক্সাস থেকে মেয়ের কল। ‘ওষুধগুলো খেয়েছিলে কাল রাতে?’ …’না, মানে আজ ঠিক খেয়ে নেব, কাল কাজেকম্মে ভুলে গেছিলাম’। ফোনেই বেশ খানিক ঝেড়ে নিলেন মেয়ে মাকে। পৃথিবীর দুই প্রান্তে সময়ের বিস্তর ব্যবধান, তাই ঠিক সময়ে মনে করাতে পারেন না মেয়ে। প্রায়ই মিস হয়ে যায় ওষুধগুলো। একটা বয়সের পর এটা কিন্তু ঘরে ঘরে একটা চেনা সমস্যা। মুশকিল আসান হিসেবে এ বার তাই দেশের বাজারে আসছে নতুন মোবাইল অ্যাপ- ‘দাওয়াই দোস্ত’। ১৭ বছরের কিশোর আর্যমান কুঞ্জ্রু তৈরি করেছে এই অ্যাপ। ইতিমধ্যে গুগল প্লে স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে সেই অ্যাপ।

আরও পড়ুন; ডাক্তারের চেম্বার থেকে:বয়স বাড়লে হতে পারে অ্যালঝেইমার

ক্রমশ উন্নত হতে থাকা স্মার্টফোন প্রযুক্তির সঙ্গে পেরে ওঠেন না বয়স্ক মানুষেরা। তা হলে এই অ্যাপ-ই বা ব্যবহার করবেন কী ভাবে? না, টাচস্ক্রিন নিয়ে হিমশিম খেতে হবে না কাউকে। ভয়েজ নোটিফিকেশন দিয়ে মোবাইল নিজেই সময়মতো মনে করিয়ে দেবে ওষুধ খাওয়ার কথা। ইংরেজির পাশাপাশি একাধিক আঞ্চলিক ভাষাতেও নির্দেশ দেবে অ্যাপটি। অ্যাপ ব্যবহারকারীকে শুধু ওষুধের ছবি তুলে অথবা ম্যানুয়ালি ওষুধের নাম লিখতে হবে হ্যান্ডসেটে। এর পর অ্যাপটি নিজে থেকেই অ্যালার্ম সেট করার জন্য সময় জানতে চাইবে ব্যবহারকারীর কাছে। আপনি যে সময়ে ওষুধটি খান, সেটি উল্লেখ করতে হবে। ওষুধের এক্সপায়ারি ডেট কবে পেরোচ্ছে তা-ও ভয়েজ মেসেজ অথবা টেক্সট মারফত যন্ত্র আপনাকে  মনে করিয়ে দেবে।

দ্বাদশ শ্রেণির আর্যমানের মাথায় এমন অভিনব চিন্তা এল কী করে? ওর দাদু যে রোজ ভুলে যেতেন ওষুধ খেতে। হংকঙের কানাডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ছাত্রটি ভুলোমন দাদুর জন্যই বানাতে চেয়েছিল এমন একটি অ্যাপ। প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ না থাকায় অনলাইনেই একটু একটু করে সব শেখা তাঁর। অ্যাপের প্রথম সংস্করণ বানাতে সময় লেগেছে ১৪ মাস।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here