কলম্বো: পর পর বিস্ফোরণে ত্রস্ত শ্রীলঙ্কায় ফের উদ্ধার হল বোমা। রবিবার গভীর রাতে কলম্বো বিমানবন্দরের কাছে এই বোমা উদ্ধার করে বায়ুসেনা। অন্য দিকে রবিবারের বিস্ফোরণের জেরে এখনও পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ২৯০ ছাড়িয়ে গিয়েছে। এঁদের মধ্যে জনতা দল (সেকুলার)-এর দুই নেতা-সহ ছয় ভারতীয় রয়েছেন।

রবিবার আটটা ধারাবাহিক বিস্ফোরণে কেঁপে উঠেছিল কলম্বো। এর মধ্যে রবিবার সকালে ছ’টা এবং দুপুর দু’টোয় আরও দু’টো বিস্ফোরণ ঘটে। তার পরে আরও একটি বিস্ফোরণ হতে পারত যদি না তৎপরতার সঙ্গে বোমাটি নিষ্ক্রিয় করতেন বায়ুসেনার আধিকারিকরা।

রবিবার গভীর রাতে কলম্বো বিমানবন্দরমুখী রাস্তায় মেলে একটি পাইপবোমা। বায়ুসেনার মুখপাত্র গিহান সেনেভিরত্নে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, বিমানবন্দরের কাছে পাওয়া ওই আইইডি সম্ভবত ঘরে তৈরি। বিমানবন্দরের মূল টার্মিনাস যাওয়ার রাস্তায় আইইডিটি একটি ৬ ফুট লম্বা পাইপের মধ্যে রাখা ছিল। সেটিকে সরিয়ে নিয়ে গিয়ে নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে।

আরও পড়ুন শিশুপুত্র ও স্ত্রীকে খুন করে আত্মঘাতী

এ দিকে শ্রীলঙ্কায় মৃতদের মধ্যে ছ’জন ভারতীয় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। তাঁদের মধ্যে জেডিএসের দু’জন নেতাও রয়েছেন। তাঁরা হলেন কেজি হনুমানথরাপ্পা এবং এম রঙ্গাপ্পা। তাঁদের মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন জেডিএস নেতা তথা কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামী।

এই হামলার পেছনে কারা জড়িত রয়েছে সেটা এখনও নিশ্চিত করতে পারছে না শ্রীলঙ্কা সরকার। এখনও পর্যন্ত কোনো জঙ্গি গোষ্ঠী ওই হামলার দায় স্বীকার না করলেও গোয়েন্দাদের সন্দেহ এনটিজে বা ন্যাশনাল ত্বহিদ জামাতের দিকে। যদিও এ রকম বিধ্বংসী হামলা চালানোর ক্ষমতা ওই সংগঠনের রয়েছে কি না, সেই নিয়ে সন্দিহান গোয়েন্দাদের একাংশ। সে ক্ষেত্রে এই হামলায় আইএসের হাত থাকতে পারে বলেও সন্দেহ করা হচ্ছে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন