ওয়েবডেস্ক: এই নিয়ে সপ্তাহে দ্বিতীয়বার। পৃথিবীর কান ঘেঁষে বেরিয়ে গেল একটি গ্রহাণু। ভারতীয় সময় শনিবার ভোট চারটে নাগাদ পৃথিবীরকে অতিক্রম করে সে।

এই সপ্তাহেই এই গ্রহাণুটিকে আবিষ্কার করে নাসা। নাম দেওয়া হয় ২০১৮ সিবি। নাসার তরফ থেকে বলা হয়েছে, পৃথিবীর ৬৪,০০০ কিমি দূরত্ব পর্যন্ত চলে এসেছিল গ্রহাণুটি, যা পৃথিবী এবং চাঁদের দূরত্বের কুড়ি শতাংশ। পাঁচ বছর আগে রাশিয়ায় একটি গ্রহাণু ভেঙে পড়েছিল। এই গ্রহাণুটি কিন্তু তার থেকে বড়ো আকারের। গ্রহাণুটির আকার লম্বায় ৪০ মিটার এবং চওড়ায় ১৫ মিটার।

এ রকম বড়ো আকারের গ্রহাণু যে পৃথিবীর এত কাছ দিয়ে সাধারণত যায় না সে কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন নাসার ‘নিয়ার-আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজ’-এর ম্যানেজার পল চোডাস। তবে এর থেকে সাধারণত মানুষের আতঙ্কের কোনো কারণ নেই বলে জানান তিনি। সেই সঙ্গে বিজ্ঞানীদের প্রতি তাঁর বার্তা, গবেষণা করার সুবর্ণ সুযোগ না হারিয়ে এই গ্রহাণুর দিকে যেন সতর্ক নজর দেন তাঁরা।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার আরও একটি গ্রহাণু পৃথিবীর পাশ দিয়ে বেরিয়ে গিয়েছিল। তবে তার দূরত্ব ছিল অনেকটাই বেশি, ১,৮৪,০০০ কিমি। পৃথিবী থেকে চাঁদের দূরত্বের অর্ধেক। গত রবিবার এই গ্রহাণুটি আবিষ্কার করা হয় বলে জানান চোডাস। গত বছর প্রায় হাজার দুয়েক এ রকম গ্রহাণু আবিষ্কার করেছিল নাসা।

তবে ২০২৯-এ একটি বৃহদাকার গ্রহাণুর পৃথিবীর সাংঘাতিক কাছে চলে আসবে বলে জানিয়েছে নাসা। ১০০০ ফুট লম্বা ওই গ্রহাণু চাঁদ এবং পৃথিবীর দূরত্বের দশ শতাংশের মধ্যে চলে আসবে বলে জানিয়েছে তারা।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here