শুক্রবার সকালে এক ঘণ্টার মধ্যে পর পর দুটি বিস্ফোরণের কেঁপে উঠল পাকিস্তানের খাইবার এলাকা। মারদান জেলা সেশন কোর্টে ঢোকার মুখে একটি আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে অন্তত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন ৪১ জন। এই বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেছে জামাতুল আহরার (জেএ)

এর ঠিক এক ঘণ্টা আগে পেশোয়ারের খ্রিস্টান কলোনীতে এক বন্দুকবাজ হামলা চালায়। ঘটনায় হতাহতের কোনও খবর নেই। এই হামলারও দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী জেএ।  

মারদান জেলার পুলিশ অধিকারিক ফইজল শাহাজাদ জানান, আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণের আগে আততায়ী একটি হ্যান্ডগ্রেনেড ছোড়ে পুলিশ তাকে লক্ষ করে পাল্টা গুলি চালায়। এর পরই সে দ্বিতীয় বিস্ফোরণটি ঘটায়। বিস্ফোরণে যে বোমাটি ব্যবহার করা হয় তার ওজন ছিল ৮ কিলোগ্রাম হামলাকারীর উদ্দেশ্য ছিল সেশন কোর্টের ভেতরে ঢোকার। বিস্ফোরণে ১২ জন নিহত হয়েছেন, এঁদের মধ্যে ৩ জন পুলিশকর্মী ও ৪ জন আইনজীবীও রয়েছেন।

পুলিশের মতে, গত কয়েক মাসে পাকিস্তানের ঘটা বিস্ফোরণগুলির লক্ষ্য ছিল আইনজীবী ও আইনের সঙ্গে জড়িত মানুষেরা। আগস্ট মাসে কোয়েটার সিভিল হসপিটালে জরুরি বিভাগের সামনে যে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছিল, তাতে নিহত হন ৭৩ জন। এঁদের বেশির ভাগই ছিলেন আইনজীবী ও পুলিশকর্মী। এমনকি এই ঘটনার দিন যাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে আইনজীবীরা হাসপাতালে এসেছিলেন, সেই বালুচিস্তানের বার অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট বিলাল আনওয়ার কাশিই আগের দিন বন্দুকবাজের হামলায় নিহত হন।  

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here