থিম্পু: চিন ও নেপালের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের সাম্প্রতিক টানাপড়েনের মধ্যে ভুটান (Bhutan) নিয়েও একটা গুজব ছড়িয়েছিল। অসমের বেশ কিছু অংশে কৃষিকাজের জল সরবরাহ ভুটান বন্ধ করে দিয়েছে বলে খবর ছড়াচ্ছিল। সেই খবর সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবি করল ভুটান সরকার।

শুক্রবার এই বিষয়ে একটি বিবৃতি দেয় ভুটানের বিদেশমন্ত্রক। সেখানে তারা সাফ জানিয়েছে যে এই অভিযোগের মধ্যে দিয়ে ভুটান আর অসমের মানুষের মধ্যে ইচ্ছাকৃত ভাবে ভুল বোঝাবুঝির আবহ তৈরি করা হচ্ছে।

ভুটান সরকার জানিয়েছে, অসমের বাকসা (Baksa) ও উদালগিরি (Udalgiri) জেলা বহু বছর ধরেই ভুটানের জলের উৎস থেকে উপকৃত হচ্ছে এবং বর্তমানে এই করোনা মহামারির মধ্যেও তা চালিয়ে যাচ্ছে।

বাকসা জেলার কৃষকরা জানাচ্ছেন, ভুটানি কালানদীর জল তাঁদের খুব দরকারি। ধান চাষের জন্য এই জল লাগে। যে খাল কেটে জল আনা হয় তা স্থানীয় ভাবে ডং নামে সুপরিচিত। ডং দিয়ে জল ছাড়া বন্ধ হলে চাষ মার খায়।

সেই ডংয়ের জলের পথ প্রাকৃতিক কারণে আটকে গিয়েছে বলে বৃহস্পতিবার রাতেই টুইট করে জানান অসমের মুখ্যসচিব কুমার সঞ্জয়। কিন্তু এ বার করোনাভাইরাস সম্পর্কিত বিধিনিষেধের কারণে অসমের কৃষকরা অন্য সময়ের মতো ভুটানে প্রবেশ করে সেই জলের সেই পথ পরিষ্কার করতে পারেননি। সেই কারণেই জল সরবরাহে সমস্যা দেখা দেয়।

তবে এ বার ভুটানের সামড্রুপ জঙ্খর জেলা প্রশাসন আর স্থানীয়রা হাত লাগিয়েই জল সরবরাহের পথ পরিষ্কারের কাজ করছেন বলে ভুটানের বিদেশ মন্ত্রকের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে যে অসমের দুই জেলার সঙ্গে সামড্রুপ জঙ্খর জেলা প্রশাসন সব সময়ে যোগাযোগ রেখেই চলেছে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন