খবরঅনলাইন ডেস্ক: জো বাইডেন (Joe Biden) এলেই যে দুই দেশের সম্পর্কের উন্নতি হবে, এই ভ্রম কাটিয়ে ওঠা উচিত। বরং ‘দুর্বল’ বাইডেন দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ বাধিয়ে দিতে পারেন। এমনই আশঙ্কা করছে চিন।

পরাজয় এখনও স্বীকার না করলেও ডোনাল্ড ট্রাম্পের (Donald Trump) বিদায় কার্যত সময়ের অপেক্ষা। গোটা বিশ্ব এখন আমেরিকার ক্ষমতা বদলের দিকে অতি উৎসাহে তাকিয়ে রয়েছে। ঠিক সেই সময়েই চিন সরকারকে এমনই পরামর্শ দিলেন সে দেশের কূটনীতিবিদ তথা সরকারি উপদেষ্টা ঝেং ইয়ংনিয়ান। তাঁর মতে, ডেমোক্র্যাট বাইডেনের জমানায় আমেরিকা ও চিনের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অবনতি হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

দীর্ঘমেয়াদি কূটনৈতিক কৌশলের রূপরেখা তৈরি করতে অগস্ট মাসে ঝেংকে উপদেষ্টা নিয়োগ করেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। আমেরিকার রাজনৈতিক রদবদল এবং দুই দেশের সম্পর্কে তার কী প্রভাব পড়তে পারে, তা নিয়ে গুয়াংঝৌতে সম্প্রতি একটি আলোচনাসভায় যোগ দেন তিনি। সেখানেই বাইডেন সম্পর্কে জিনপিং সরকারকে সতর্ক করে দেন ঝেং।  

ঝেং বলেন, ‘‘পরিস্থিতি আর আগের মতো নেই। ঠান্ডা যুদ্ধের ঘোর এখনও কাটেনি ওদের। রাতারাতি তা কাটবেও না। আমেরিকার সমাজ দ্বিধাবিভক্ত। বাইডেন কিছু করতে পারবেন বলে মনে হয় না আমার। প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুর্বল উনি।” 

ঝেং আরও যোগ করেন, “চিনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করতে পারেন বাইডেন। অনেকে হয়তো বলবেন, ট্রাম্প গণতন্ত্র এবং বাক স্বাধীনতার বিরোধী। বাইডেন নন। কিন্তু আমার মতে, ট্রাম্প যুদ্ধে আগ্রহী নন। কিন্তু ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট যে কোনো মুহূর্তে যুদ্ধ বাধিয়ে ফেলতে পারেন।’’

করোনাভাইরাস থেকে শুরু করে উইঘুর মুসলিমদের নিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘনের একাধিক অভিযোগ রয়েছে চিনের বিরুদ্ধে। গত এক বছরে নানা ঘটনার মধ্যে দিয়ে চিন-মার্কিন সম্পর্কে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। অনেকেরই ধারণা ছিল, আমেরিকায় ক্ষমতা বদল হওয়ার ফলে সেই সম্পর্ক হয়তো উন্নতি হতে পারে। কিন্তু তেমনটা মনে করেন না ওই চিনা বিশেষজ্ঞ।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ প্রয়াত

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন