টুইটার কর্ণধার ইলন মাস্ক

কলকাতা: প্রযুক্তি জগতে বিশ্বের সবচেয়ে বড়ো চুক্তি। প্রথমে অংশীদারিত্ব কেনা। তার পরই দ্রুত, অতিদ্রুত সংস্থার একশো শতাংশ মালিকানা কিনে নেওয়া। ব্যবধান হাতে গোনা কয়েক দিনের। মার্কিন ধনকুবের ইলন মাস্কের টুইটার কেনার এই ‘অকল্পনীয়’ কাহিনিই এখন চর্চার বিষয় দুনিয়া জুড়ে।

কত টাকায় টুইটারের মালিকানা হস্তান্তর?

কয়েক দিন আগেই প্রকাশ্যে এসেছিল সেই খবর। বৃহত্তম সোশ্যাল মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম টুইটারের ৯.২ শতাংশ শেয়ার কিনলেন ইলন মাস্ক। সে বার খরচ করেছিলেন ২২ হাজার কোটি টাকা। এর পরই এল মোক্ষম প্রস্তাব। টুইটার কিনে নিতে আগ্রহী তিনি। মোটের উপর মন্দ দাম হাঁকেননি। প্রস্তাবে বলেছিলেন, শেয়ার প্রতি ৫৪.২০ মার্কিন ডলার দিতে রাজি তিনি। ভারতীয় মুদ্রায় যার মূল্য প্রায় ৪ হাজার ১২৫ টাকা।

গত ১৪ এপ্রিল টুইটার অধিগ্রহণের প্রস্তাব পেশ করেছিলেন মাস্ক। বলেছিলেন, এটাই তাঁর ‘সেরা এবং চূড়ান্ত প্রস্তাব’। মাস্কের প্রস্তাব পাড়ার পরই শুরু হয়ে গেল টুইটারের সম্পদ মূল্যায়নের পালা। অংক কষে বেরোল, টুইটারের বাজারদর দাঁড়াচ্ছে ৪ হাজার ১০০ কোটি মার্কিন ডলার। খুব কম সময়ের গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় শেষমেশ রফা হল ৪ হাজার ৪০০ কোটি ডলারে। ভারতীয় মুদ্রায় কত? শুনলে মাথা ঘুরে যেতে পারে, প্রায় প্রায় ৩,৩৬,৯৪১ কোটি ২২ লক্ষ টাকা!

কেন টুইটার কিনতে এতটা আগ্রহী মাস্ক?

নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা একটি প্রেস বিবৃতিতে মাস্ক লেখেন, “বাক্‌-স্বাধীনতা গণতন্ত্রের একটা ভিত্তি। টুইটার হল সেই ডিজিটাল টাউন স্কোয়ার, যেখানে বরাবরই মানবতার ভবিষ্যতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে বিতর্ক চলে। নতুন ফিচারের সঙ্গে এই প্ল্যাটফর্মটিকে আরও উন্নত করতে চাইছি আমি। প্রযুক্তিগত সংযোজনে আগের থেকে আরও ভালো করতে চাই টুইটার-কে। সেই অসাধারণ সম্ভাবনা রয়েছে এর সামনে। সেই সব সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে উন্মুখ হয়ে রয়েছি আমি”।

টুইটারের শেয়ার কেনার পর থেকেই মাস্কের মতিগতি নিয়ে জোর জল্পনা চলছিল নেটদুনিয়ায়। শোনা যায়, টুইটার কেনার পুরো টাকাটাই নগদে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন মার্কিন ধনকুবের। সঙ্গে জানিয়েছিলেন, ব্যক্তিগত মালিকানাধীন সংস্থা হিসেবে টুইটারের বদল ঘটানোই তাঁর মূল্য লক্ষ্য।

এর আগেই আরেকটি টুইটারে তিনি লেখেন, “আমার সবচেয়ে মন্দ সমালোচকরাও টুইটারে থাকবেন, সেই আশা করছি। কারণ, স্বাধীন মন্তব্য বলতে এটাই বোঝায়”। মাস্কের এই মন্তব্যের উৎস বিল গেটসের খোঁচা। মাস্কের সংস্থা টেসলাকে ঠুকে একটি টুইট করেছিলেন বিল। সেই টুইটে লক্ষাধিক লাইক পড়ে। সম্ভবত বিলের সেই রসিকতার জবাব এমন দৃঢ় ভাষাতেই দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন টুইটারের ভাবি মালিক।

ইদানীং মাস্কের কথাবার্তায় বারবার ঘুরেফিরে আসছে বাক্‌-স্বাধীনতার বিষয়টি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জে দাখিল করা বিবৃতিতে মাস্ক লেখেন, “টুইটারে বিনিয়োগ করেছি। কারণ একটাই। বিশ্ব জুড়ে বাক্‌-স্বাধীনতার একটা প্ল্যাটফর্ম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে টুইটারের। আমি গণতন্ত্রে বিশ্বাসী। আর বাক্‌-স্বাধীনতে গণতন্ত্রের জন্য বাধ্যতামূলক। এ ব্যাপারে টুইটারের সামনে যে সম্ভাবনাগুলো রয়েছে, সে সবের দরজা নতুন করে খুলে দেব আমি”।

কে এই ইলন মাস্ক?

জন্ম ১৯৭১ সালের ২৮ জুন, সাউথ আফ্রিকায়। ইলন রিভ মাস্কের মা মায়ে মাস্কের জন্ম কানাডায়, তবে বেড়ে ওঠা সাউথ আফ্রিকায়। তিনি ছিলেন তৎকালীন জনপ্রিয় মডেল। বিবাহসূত্রে বাঁধা পড়েন সাউথ আফ্রিকার বাসিন্দা, পেশায় ইঞ্জিনিয়ার-পাইলট-নাবিক ইরল মাস্কের সঙ্গে।

শৈশবেই তথ্যপ্রযুক্তির দিকে ঝুঁকে পড়েন মাস্ক। মাত্র ১০ বছর বয়সেই ভিডিও গেমস তৈরি করে চমকে দিয়েছিলেন। পড়াশোনার পাট চুকিয়ে ১৯৯৫-এ তৈরি করেন পারিবারিক সফটওয়্যার সংস্থা জিপ২। দুই দাদার সঙ্গে পালো অল্টোতে একটি ছোটো ভাড়া অফিসে শুরু হয় ওই উদ্যোগ। ওই সংস্থাটি সংবাদপত্র প্রকাশনা শিল্পের জন্য ইন্টারনেটে শহর নির্দেশিকা তৈরি এবং সে সবের মার্কেটিং করত। ম্যাপ এবং ইয়লো পেজের মতো উপকরণ ছিল সংস্থার কাজের মাধ্যম।

সেই শুরু, তার পর একের পর এক সংস্থা প্রতিষ্ঠা অথবা অধিগ্রহণের মেগা সিরিয়াল চালিয়ে যাচ্ছেন মাস্ক। তালিকা শুধু দীর্ঘ নয়, অতিদীর্ঘ।

তবুও যেগুলোর উল্লেখ না করলেই নয়, তিনি স্পেস এক্স-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও। টেসলা ইনকর্পোরেটের প্রাথমিক পর্যায়ের বিনিয়োগকারী, সিইও এবং প্রোডাক্ট আর্কিটেক্ট। দ্য বোরিং কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা। নিউরালিঙ্ক এবং ওপেন এআই-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা। অন্য দিকে, কর্মীদের প্রতি তাঁর আচরণ নিয়েও বিতর্কে জড়িয়েছেন একাধিক বার।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০২২ সালের এপ্রিল পর্যন্ত তাঁর আনুমানিক সম্পদের পরিমাণ ২৭ হাজার ৩০০ কোটি মার্কিন ডলার। ব্লুমবার্গ বিলিয়নেয়ার্স ইনডেক্স এবং ফোর্বসের রিয়েল-টাইম বিলিয়নেয়ারদের তালিকা, দু’টোতেই তিনি বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি।

আরও পড়তে পারেন: ৪,৪০০ কোটি ডলার খরচ করে টুইটার কিনে নিয়ে ইলন মাস্ক বললেন, বাকস্বাধীনতা ফেরানোই লক্ষ্য

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন