africa splitting into two

ওয়েবডেস্ক: আজ থেকে এক কোটি ৩৮ লক্ষ বছর আগে দু’ভাগে বিভক্ত হয়েছিল আফ্রিকা মহাদেশের পশ্চিমাংশ। তৈরি হয়েছিল নতুন মহাদেশ দক্ষিণ আমেরিকা। দুই মহাদেশের মাঝখানে সৃষ্টি হয়েছিল অতলান্তিক মহাসাগরের। সেই ইতিহাসের আবার পুনরাবৃত্তি হওয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। এ বার মহাদেশটির পূর্বাংশ।

গত কয়েক দিন হল দক্ষিণ-পশ্চিম কেনিয়ায় একটা বড়ো অংশ জুড়ে একটা বিশাল ফাটল দেখা দিয়েছে। ফাটলের প্রভাব এতটাই বেশি যে একটি জাতীয় সড়ক তার জন্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। মাঝেমধ্যেই সেই অঞ্চলে মৃদু ভূমিকম্পও অনুভূত হচ্ছে।

গত ১৯ মার্চ শুরু হয়ে এখন ধীরে ধীরে বাড়ছে এই ফাটল। আফ্রিকার রিফট ভ্যালির অংশ, সুসওয়া অঞ্চলে দেখা দিয়েছে এই ফাটল। ভূতাত্ত্বিকভাবেই রিফট ভ্যালিতে ফাটল দেখা যাওয়াটা স্বাভাবিক। কিন্তু সাধারণত বছরে কয়েক মিলিমিটার করে বাড়ে এ সব ফাটল। কিন্তু এ বার সেই ফাটল বাড়ছে খুব দ্রুতগতিতে। সেই সঙ্গে বিশাল আকারও ধারণ করছে এটি।

যে অঞ্চল জুড়ে এই ফাটল দেখা দিয়েছে সেই পূর্ব আফ্রিকার রিফট ভ্যালি তিন হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ। উত্তরে রয়েছে এডেন উপসাগর এবং দক্ষিণে জিম্বাবোয়ে। ভূতাত্ত্বিকদের মতে, কেনিয়ায় ফাটলটি প্রকট হলেও আসলে পুরো রিফট ভ্যালি জুড়ে এই ফাটল চলছে।

কেনিয়ার কিছু জায়গায় ফাটল এমন ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে যে ভিটেমাটি ছেড়ে পালাতে বাধ্য হচ্ছেন বাসিন্দারা। বাসিন্দাদের মতে এখানে থাকলে এই ফাটল তাদের পুরো বসতিকে আসতে আসতে গিলে ফেলবে।

ভূতাত্ত্বিকদের মতে, টেকটনিক প্লেটের সক্রিয়তার জন্য ক্রমশ আলাদা হতে শুরু করেছে আফ্রিকা। বহু বছর আগে গোটা আফ্রিকা মহাদেশটাই একটা মাত্র টেকটনিক প্লেটের ওপরে ছিল। কিন্তু সেটা ক্রমশ দু’টো প্লেটে বিভক্ত হয়ে যায়, সোমালি এবং নুবিয়ান প্লেট। দু’টো প্লেট কিছুতেই এক সঙ্গে থাকতে চাইছে না, নিজেদের মধ্যে বিচ্ছেদ চাইছে তারা। তাই তৈরি হচ্ছে ফাটল। ভূতাত্ত্বিকদের মতে এই বিচ্ছেদ ঘটতে ঘটতে এক দিন দু’টো সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে যাবে।

শুধু এই দু’টোই নয়। আরও একটি টেকটনিক প্লেটের সক্রিয়তা রয়েছে। সেটি হল আরব প্লেট। সে-ও আবার নিজের দিকে মহাদেশের একটি অংশকে টেনে নিতে চায়। এর ফলে কেনিয়া দেশটাকে তিনটে প্লেট তিন দিকে টেনে নেওয়ার চেষ্টা করছে।

গ্রেট রিফট ভ্যালি এমন একটি ভূতাত্ত্বিক কাঠামো, যা থেকে গবেষকরা বলতে পারেন, এই বরাবর ফাটল তৈরি হয়ে আফ্রিকার মূল ভূখণ্ড থেকে আলাদা হয়ে যাবে সোমালিয়া, ইথিওপিয়ার অর্ধেকটা, কেনিয়া এবং তানজানিয়া। এই রিফটের জায়গায় জেগে উঠবে একটি সমুদ্র।

কিন্তু সেটা আমরা দেখে যেতে পারব না। কারণ মহাদেশটির দু’টি ভাগে সম্পূর্ণ বিভক্ত হয়ে যেতে সময়ে লাগবে আজ থেকে অন্তত ৫০ লক্ষ বছর।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here