সাধারণত পদার্থবিদ্যা, রসায়নের সাথে একই সপ্তাহে ঘোষণা করা হয় সাহিত্যে নোবেল প্রাপকের নাম। এবার কেটে গেছে এক সপ্তাহ। তাহলে কি বিচারকদের নিজেদের মধ্যেই দ্বিমত ছিল ? সেরকম কিছুর সম্ভাবনা অস্বীকার করেছে নোবেল কমিটি। আর জানিয়ে দিয়েছে, এ বছর সাহিত্যে নোবেল পাচ্ছেন রবার্ট অ্যালেন জিমারম্যান। না, এই নামটা বলেননি তাঁরা। বলার কথাও নয়। কারণ বব ডিলান যখন নোবেল পান, তখন তাঁর প্রকৃত নামের খবর কেউ নেয় না।  

‘মার্কিন সঙ্গীতের ধারায় নতুন কাব্যিক প্রকাশ নিয়ে আসার জন্য’ তাঁকে এই সম্মান জানিয়েছে সুইডেনের নোবেল কমিটি। গীতিকার তাঁর সৃষ্টির জন্য সাহিত্যে নোবেল পাচ্ছেন, নোবেলের ইতিহাসে এমন ঘটনা এই প্রথম।

গত শতকের ষাটের দশকের পৃথিবীকে যারা নাড়িয়ে দিয়েছিলেন, সেই তালিকায় বহু বিখ্যাত নাম রয়েছে। তাঁদের মধ্যে জীবিত নেই প্রায় কেউই। ডিলান আছেন, গত কয়েক বছর ধরে ছবি আঁকা, প্রদর্শনী ও সেই সংক্রান্ত বই লেখার কাজে মগ্ন রয়েছেন একসময় অ্যাকাউসটিক থেকে ইলেকট্রিক হয়ে সঙ্গীতের সব মূল ধারায় গান গেয়ে লিখে সারা ফেলে দেওয়া এই সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব। একটা গোটা প্রজন্মের মুখপাত্র হয়ে ওঠা ডিলান যে প্রশ্নের উত্তর দেননি, বলেছিলেন, তা নাকি ‘ব্লোয়িং ইন দ্য উইন্ড’, সে সব শব্দ তার কাছে কি ধরা দিয়েছিল কখনও?  ডিলান বলেননি। তবে হয়তো নোবেল কমিটির কাছে, সেই সব যুদ্ধবিরোধী ফোক ও রক সঙ্গীতের মূল্য তৈরি হয়েছে আজকের এই আফগানিস্তান-ইরাক-সিরিয়া-তুর্কির দুনিয়ায়। এবং হ্যাঁ। বব ডিলান নোবেল পেয়েছেন।

নোবেল প্রাপ্তির খবর পেয়ে হয়তো অরিজিনাল ভ্যাগাবন্ড আনমনে গেয়ে উঠছেন, ‘ দ্য টাইমস, দে আর এ চেঞ্জিং’।     

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন