দুর্নীতির অভিযোগে পাকিস্তানের সড়ক প্রকল্পে অর্থ সাহায্য বন্ধ করছে চিন

0

ইসলামাবাদ : পাকিস্তানের তিনটি বড়ো প্রকল্পে অর্থ জোগানো সাময়িকভাবে বন্ধ করবে চিন। এই পাক প্রকল্পগুলোতে দুর্নীতির কারণে বিনিয়োগ বন্ধ করছে চিন। পাকিস্তানের একটা সংবাদমাধ্যমে মঙ্গলবার এই খবর জানানো হয়েছে। এই তিনটিই হল সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প। চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরে হিসাবে এই প্রকল্পগুলি শুরু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। আপাতত বেজিংয়ের পরবর্তী নির্দেশিকা কী হবে সে দিকে তাকিয়ে রয়েছে পাকিস্তান।

সংবাদ মাধ্যামে এ ধরনের  কথা পাকিস্তান প্রথমবার শুনল বলে জানিয়েছেন পাক সরকারের এক আধিকারিক। পাক সরকার কার্যত হতভম্ব। তিনি এও দাবি করেছেন, চিন এই খবরে নিজেই খুবই অস্বস্তিতে।

Loading videos...

সাংবাদমাধ্যমের খবরে যা আছে তাতে চিনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, প্রকল্পে দুর্নীতি করা হচ্ছে, এ কারণে ভিত চিন।

চিনের এই সিদ্ধান্তে ধাক্কা খেল পাকিস্তানের ন্যাশনাল হাইওয়ে অথোরিটির ১ ট্রিলিয়ন মূল্যের সড়ক প্রকল্প। এটি হল ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ প্রকল্প। এই প্রকল্পের অধীনে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের মধ্যে দিয়ে চিনের জিংজং প্রদেশ থেকে বালুচিস্তান পর্যন্ত সড়ক তৈরির পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

এর ফলে সমস্যা হতে পারে ২১০ কিলোমিটার লম্বা ডেরা ইসমাইল-জোহব রোডের ক্ষেত্রে। ৮১ হাজার কোটি টাকা খরচ করে এটা তৈরি করা হচ্ছে। তার মধ্যে ৬৬ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে সড়ক তৈরি করতে। ১৫ হাজার কোটি খরচ হয়েছে জমির জন্য।

এটা ছাড়াও সমস্যায় পড়বে বালুচিস্তানের ১১০ কিলোমিটার দীর্ঘ খুজদার বাসিমা রোড আর রায়কোট থেকে থাকোট পর্যন্ত ১৩৬ কিলোমিটারের কারাকোরাম হাইওয়ে। এই দু’টির জন্য খরচ ধরা হয়েছে যথাক্রমে ১৯.৭৬ হাজার কোটি টাকা আর ৮.৫ কোটি টাকা।

প্রথমে এই প্রকল্পগুলো পাকিস্তান সরকারের উন্নয়ণ প্রকল্প হিসেবেই গ্রহণ করা হয়েছিল। পরে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ন্যাশনাল হাইওয়ে অথোরিটির মুখপাত্র জানান, এগুলোকে চিন-পাক করডোরের অধীনে নিয়ে আসা হবে।

পাকিস্তান সরকারের ওই আধিকারিক জানান, জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের মিটিং-এ চিন তার সিদ্ধান্ত পাকিস্তানকে জানিয়ে দেয়। পাশাপাশি অর্থ সাহায্যের যাবতীয় পথ বন্ধ করে দেয়।

আধিকারিক বলেন, কিন্তু অর্থ সাহায্যের চুক্তি অনুমোদিত হয়েছিল ছ’টি আলাদা আলাদা ফোরামের মাধ্যমে। এমন কি চুক্তিতে এ-ও বলা হয়েছিল অর্থ দেওয়া হচ্ছে আগের নির্ধারিত ভারী প্রকল্পগুলোর জন্যই। নতুন নির্দেশিকা যা কিছু দেওয়া হবে তা সবই চিন-পাক অর্থনৈতিক করিডোরের পরবর্তী নতুন প্রকল্পের জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.