খবরঅনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাস (Coronavirus) প্রতিরোধে তারা যে টিকা তৈরি করছে, সেটা ৯০ শতাংশ কার্যকর। এমনটাই দাবি করল ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা ফাইজার অ্যান্ড বায়োএনটেক (Pfizer and BioNtech)। সংস্থাটির তরফে বলা হয়েছে, তাদের তৃতীয় ট্রায়ালের প্রাথমিক পরীক্ষা থেকে এই তথ্য মিলেছে।

উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে একাধিক টিকা তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল পর্বে রয়েছে। তার মধ্যে ফাইজারই প্রথম এমন দাবি করল।

করোনার টিকা তৈরিতে ফাইজারের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে জার্মান সংস্থা বায়োএনটেক। তাদের ওই টিকা পরীক্ষামূলক ভাবে ৬টি দেশের সাড়ে ৪৩ হাজার মানুষের উপর প্রয়োগ করা হয়েছিল। এই টিকা উৎপাদন করতে জরুরি ভিত্তিতে অনুমোদন দেওয়ার জন্য চলতি মাসের শেষে আবেদন করতেও চলেছে ফাইজার।

সংস্থাটির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, আমেরিকা, জার্মানি, ব্রাজিল, আর্জেন্তিনা, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং তুরস্ক এই ৬ দেশে ওই টিকার ট্রায়াল চলছিল। দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার ৭ দিন পর ৯০ শতাংশ সাফল্য মিলেছে বলে ফাইজারের দাবি।

ফাইজারের চেয়ারম্যান অ্যালবার্ট বোর্লা বলেন, ‘‘বিশ্ব জোড়া এই স্বাস্থ্য সংকট রুখে দেওয়ার খুব কাছাকাছি পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছি আমরা।’’ আবার বায়োএনটেক সংস্থাটির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক উগুর সাহিন বিষয়টিকে ‘মাইলস্টোন’ বলে ব্যাখ্যা করেছেন।

ফাইজার জানাচ্ছে, চলতি বছরে মাত্র কয়েক জনকে ওই টিকা দেওয়া হবে। তবে অনুমোদন পেলে এ বছরের শেষে ৫ কোটি ডোজ তারা তৈরি করতে পারবে। ২০২১ সালের শেষ পর্যায়ে ওই টিকার ১৩০ কোটি ডোজ তৈরি করা সম্ভব বলেও জানিয়েছে সংস্থা দুটি।

তবে প্রত্যেকেই ওই টিকা পাবেন এমনটা মনে করা হচ্ছে না। যাঁরা করোনার বিরুদ্ধে একদম প্রথম সারিতে থেকে লড়াই করছেন, আগে টিকা তাদেরই দেওয়া হবে। অল্পবয়সি এবং যাদের কোমর্বিডিটি নেই, তাদের টিকা পেতে কিছুটা দেরি হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

চূড়ান্ত অসহযোগিতা, হোয়াইট হাউসে বাইডেনের টিমকে ঢুকতে দিচ্ছে না টিম-ট্রাম্প

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন