কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের পাশে থেকে নিরাপত্তা পরিষদে গোপন বৈঠকের আর্জি চিনের!

Pakistan and China
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: পাকিস্তানের পর রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদে পৌঁছাল চিনের চিঠি। জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে রাষ্ট্রসঙ্ঘের হস্তক্ষেপের আবেদন জানায় পাকিস্তান। কিন্তু সেই আবেদন আমল না পাওয়ায় ফের নিরাপত্তা পরিষদে চিঠি দেয় পাকিস্তান। একই ভাবে চিনের তরফেও একটি চিঠি পরিষদের সভাপতিত্বকারী দেশ পোল্যান্ডের কাছে পৌঁছেছে বলে জানা গিয়েছে।

পাক-পত্র পাঠানোর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই পোল্যান্ডে পৌঁছেছে ওই চিঠি। যেখানে রীতিমতো পাকিস্তানের পাশে দাঁড়িয়ে চিন নিরাপত্তা পরিষদের কাছে আবেদন জানিয়ে বলেছ, ভারত-পাকিস্তান প্রশ্নে তারা গোপন বৈঠক চায়।

চিঠির প্রাপ্তিস্বীকার করে নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের এক উচ্চপদস্থ আমলা সংবাদ সংস্থা পিটিআই-কে জানিয়েছেন, চিঠিটি অতিসম্প্রতি তাঁদের হাতে গিয়েছে। যে কারণে এখনও পর্যন্ত বৈঠকের কোনো দিনক্ষণ নির্ধারণ হয়নি।

ওই আমলা জানান, “ভারত-পাকিস্তান প্রশ্নে নিরাপত্তা পরিষদে একটি গোপন বৈঠকের আবেদন জানিয়েছে চিন। ওই চিঠিতে নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতিকে লেখা পাকিস্তানের আবেদনপত্রটির রেফারেন্স টানা হয়েছে। তবে এ ধরনের বৈঠকের দিনক্ষণ এখনই বলা সম্ভব নয়। এ ব্যাপারে পরিষদের স্থায়ী সদস্য এবং অস্থায়ী সদস্যদের কথা বলার পরই তা নির্ধারিত হতে পারে”।

পাকিস্তান গত মঙ্গলবার রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদকে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারার অধীনে জম্মু ও কাশ্মীর থেকে বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়ে আলোচনার জন্য আবেদন জানিয়েছে। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের খবর অনুযায়ী, কুরেশি ওই আবেদনপত্রে লিখেছেন, “পাকিস্তান বিরোধ সৃষ্টি করবে না, তবে আমাদের সংযমকে যদি ভারত দুর্বলতা ভেবে থাকে, তা হলে তারা ভুল করবে”।

তবে রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য দেশ রাশিয়াও স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছে, কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। জম্মু ও কাশ্মীরকে নতুন দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করার বিষয়টি ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের সাংবিধানিক কাঠামোর মধ্যেই পরিচালিত হয়েছে। এ ব্যাপারে তারা কোনো রকমের হস্তক্ষেপ করবে না।

আমেরিকা এবং ব্রিটেনের তরফেও পাকিস্তানের উচ্ছ্বসিত হওয়ার মতো কোনো মন্তব্য করা হয়নি। বিষয়টিকে খুবই ভাবগম্ভীর বলে উল্লেখ করেন ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন

কুরেশি জানিয়েছেন, জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ভারত বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারের পর পাকিস্তান নিরাপত্তা পরিষদকে জরুরি বৈঠকে বসার আবেদন জানিয়েছে। এমন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে নিরাপত্তা পরিষদের ওই আমলা জানিয়েছেন, চিন-ও ওই ধরনের একটি বৈঠকের জন্য আবেদন জানিয়েছে। তবে পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেই বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.