India and USA flag
ভারত ও আমেরিকার জাতীয় পতাকা। ছবি: ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস থেকে

ওয়েবডেস্ক: ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় বাণিজ্যিক পরিকাঠামো ও শক্তি উৎপাদনে নতুন নীতি গ্রহণ করতে চলেছে আমেরিকার ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন। এমনিতেই বর্তমানে ভারত আমেরিকার ব্যবসা-বাণিজ্যের একটি বৃহৎ ক্ষেত্র এবং সংলগ্ন দেশগুলিতে আমেরিকার যোগাযোগের মাধ্যম।

যু্ক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ ক্যাবিনেট সদস্য-  সেক্রেটারি অব স্টেটস মাইক পম্পেও, কমার্স সেক্রেটারি উইলবুর রস, এনার্জি সেক্রেটারি রিক পেরিকে নিয়ে আগামী সোমবার একটি বৈঠকে মিলিত হচ্ছেন ট্রাম্প। আমেরিকার চেম্বার অব কমার্সের ওই বৈঠকে ইন্দো-পেসিফিক বিজনেস ফোরামের প্রথম বৈঠকে সে নীতিতেই সিলমোহর পড়তে চলেছে বলে সূত্রের খবর।

ফোরামের বৈঠকে ভারত-সহ প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় অর্থনৈতিক এবং ব্যবসায়িক গুরুত্ব বাড়াতে একাধিক উদ্যোগের বিষয়ে আলোচনা হবে। ওই নির্দিষ্ট অঞ্চলে ব্যবসা বৃদ্ধিতে ঠিক কী ধরনের পরিকাঠামো গড়ে তোলা প্রয়োজন, সে বিষয়ে একটি রূপরেখা নির্মিত হতে পারে। সে ক্ষেত্রে প্রশাসনিক ভাবে নিয়োগ করা হবে একাধিক আধিকারিককে।

আরও পড়ুন: ইমরান খানের শপথ অনুষ্ঠানে থাকতে চলেছেন চার ভারতীয় কিংবদন্তি,বলছেন গোয়েন্দা কর্তা

বর্তমানে বিশ্বের অর্থনৈতিক বৃদ্ধিতে এশিয়ার অংশগ্রহণ প্রায় অর্ধেকাংশ। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, বিশ্বজনীন প্রস্তাবিত জিডিপির ৫০ শতাংশের ভাগিদার এশিয়া। শুধুমাত্র ভারত-সহ প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার পরিকাঠামো ও বিদ্যুৎ শক্তির উৎপাদনে বিনিয়োগের সম্ভাবনা রয়েছে প্রায় ২৬ ট্রিলিয়ন ডলারের। এই বিস্তৃত বাজারকেই ধরতে চাইছে আমেরিকা। সরকারি বা বেসরকারি ভাবে বিনিয়োগের মাধ্যমে নিজেদের ব্যবসায়িক আধিপত্য বিস্তারই এখন ট্রাম্পের সামনে বড়ো চ্যালেঞ্জ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here