রাশিয়ার সঙ্গে আমার কোনো লেনদেন নেই: ডোনাল্ড ট্রাম্প

0

নিউ ইয়র্ক: ৬ মাস আগে শেষ সাংবাদিক বৈঠক করেছিলেন। বুধবার আবার করলেন। তখন ছিল নিবার্চনী প্রচারের শুরু। এখন তিনি ভাবী প্রেসিডেন্ট। আর ঠিক ১০ দিন পরেই আমেরিকার ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। অথচ গোটা আমেরিকা জুড়ে প্রচার, বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ওবামা খোলাখুলি বলেই দিয়েছেন, তাঁর নির্বাচিত হওয়ার পেছনে রয়েছে ‘রাশিয়ার হাত’। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকেও একহাত নিয়েছেন ওবামা। এই অবস্থায় সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে ট্রাম্প জানিয়ে দিলেন, তাঁর সঙ্গে রাশিয়ার কোনো লেনদেন হয়নি।

এদিন ট্রাম্প বলেন, “আমার সঙ্গে রাশিয়ার কোনো চুক্তি হয়নি, হবেও না। রাশিয়ার থেকে আমি কোনো ঋণও নিইনি”। পাশাপাশি ট্রাম্প বলেন, “যদি পুতিন, ট্রাম্পকে পছন্দ করেন, তবে সেটা আমাদের সম্পদ। কারণ আইসিসের বিরুদ্ধে লড়াইতে রাশিয়া আমাদের সাহায্য করতে পারে আর ব্যাপারটা মোটেই সহজ নয়। মনে রাখতে হবে আমাদের প্রশাসনই আইসিসের জন্ম দিয়েছিল”। যদিও ট্রাম্প রাশিয়ার বিরুদ্ধে হ্যাকিং-এর অভিযোগ মেনে নিয়েছেন।

শুধু আইসিস প্রসঙ্গে নয়, এদিন নানা ভাবে ডেমোক্র্যাটদের আক্রমণ করেছেন ট্রাম্প। বস্তুত, গত এক মাসে ওবামা যে ভাবে ট্রাম্পকে আক্রমণ করপেছেন এমনকি মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে শেষ ভাষণে দেশে ’আসন্ন বিপদ’-এর কথা বলেছেন। এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে স্বভাবসুলভ চাঁচাছোলা ভাষায় তারই উত্তর দিয়েছেন এই বিলিওনেয়ার। ওবামার চালু করা স্বাস্থ্য পরিকল্পনা ‘ওবামাকেয়ার’ যে চূড়ান্ত ব্যর্থ এবং তিনি যে দ্রুত সেটা বন্ধ করে নয়া স্বাস্থ্য নীতি আনতে চলেছেন, দ্বর্থ্যহীন ভাষায় এদিন তা জানিয়ে দিয়েছেন ভাবী প্রেসিডেন্ট।

পাশাপাশি এদিন ট্রাম্প ফের বলেছেন, তিনি আমেরিকায় যে পরিমাণ কর্মসংস্থান ঘটাবেন, তা পৃথিবীর ইতিহাসে কেউ করতে পারেনি। ট্রাম্পের দাবি, মার্কিন গাড়ি প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি দেশে বিনিয়োগের জন্য প্রস্তুত। ওষুধ সংস্থাগুলির কাছ থেকে আরও বেশি আয় করার ব্যাপারেও তিনি জোরদার চেষ্টা চালাবেন বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.