Connect with us

বিদেশ

অপুষ্টিতে হাড় জিরজিরে অবস্থা সিংহদের, হতবাক পশুপ্রেমীরা

Published

on

ওয়েবডেস্ক: পেছন দিক থেকে নজর পড়লে মনে হতে পারে কোনো রোগা চেহারার কুকুর শুয়ে রয়েছে। কিন্তু মুখের দিক থেকে তাকালেই ভেঙে যাবে ভুল। কারণ ওগুলো কুকুর নয়, সিংহ।

দীর্ঘদিন অপুষ্টিতে ভোগার ফলে হাড় জিরজিরে দশা সুদানের এক পার্কে থাকা পাঁচটি সিংহের।

সুদানের রাজধানী খারতুমের আল-কুরেশি পার্কে পাঁচটি সিংহ রয়েছে। সংবাদসংস্থা এএফপির এক সাংবাদিক ওই পার্কে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়েই দুর্বল সিংহগুলি নজরে আসে তাঁর।

সঙ্গে সঙ্গে সিংহদের ছবি তুলে ফেলেন তিনি। ওসমান সালিহ নামে এক ব্যক্তি ওই ছবি শেয়ার করেন।

আরও পড়ুন ফের বিধ্বংসী আগুন কলকাতায়, পুড়ে ছাই ১০টি ঝুপড়ি ঘর

ছবিতে ধরা পড়েছে পাঁচটি আফ্রিকান সিংহের করুণ দশা। যারা একদিন পার্কে আসা পর্যটকদের মনোরঞ্জন করত, তাদের অবস্থা এখন কাহিল। কেউ কেউ যাও বা দাঁড়াতে পারে, অনেকে তো সেটাও পারে না।

পার্ক কর্তৃপক্ষের দাবি, খাবারের অভাবে এই সিংহগুলির ওজন কমেছে প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ। সুদানের আর্থিক অবস্থা তলানিতে ঠেকেছে। সাধারণ মানুষ হাজার জীবনসংগ্রামের পরেও দু’বেলা দু’মুঠো খেতে পান না। সেখানে সিংহদের করুণ দশার ছবি অবাক করে না পার্ক কর্তৃপক্ষকে।

বাংলাদেশ

অবৈধ পথে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে নৌকাডুবি, বাংলাদেশি-সহ উদ্ধার ২২

এখনও নিখোঁজ রয়েছেন ১৩ জন। নিখোঁজ ব্যক্তিদের খুঁজতে উদ্ধারকাজ চালানো হচ্ছে।

Published

on

ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে এ ভাবেই ঘটে নৌকাডুবি। ফাইল চিত্র।

ঋদি হক: ঢাকা

ভূমধ্যসাগরে (Mediterranean Sea) মৃত্যুর হাতছানিকে তোয়াক্কা না করে আগামী সোনালি দিনের স্বপ্ন গড়তে দালালের হাতে তুলে দিতে হয় লাখ লাখ টাকা। অনাহার, অর্ধাহারে রাতের আঁধারে পথ চলতে হয় হিংস্র জানোয়ারদের পাশ কাটিয়ে। রাতের পর রাত বনেবাদাড়ে কাটিয়ে লিবিয়া (Libya) থেকে নৌকাযোগে দুঃসাহসিক যাত্রা ইউরোপের (Europe) পথে। জঙ্গল থেকে সাগর, সাগর থেকে সাগরতীর – সর্বত্র মৃত্যু-সহ হাজারো নিগ্রহ সম্বল করেই তাঁদের যাত্রা। এমনি যাত্রায় শ’ শ’ তরুণের স্বপ্ন বিলীন হয়ে গেছে ভূমধ্যসাগরের অথৈ জলরাশিতে। কোনো দিন তারা মায়ের বুকে ফিরে আসবে না।

আবার ঘটল সেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। এ বারের ঠিকানাও ভূমধ্যসাগর। এ ঘটনায় বাংলাদেশি-সহ (Bangladeshi) ২২ জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হলেও নিখোঁজ রয়েছেন ১৩ জন। নিখোঁজ ব্যক্তিদের খুঁজতে উদ্ধারকাজ চালানো হচ্ছে। 

জানা গেছে, লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলি (Tripoli) থেকে ইউরোপে যাওয়ার সময় ভূমধ্যসাগরে বিভিন্ন দেশের ৩৫ জোন আরোহী নিয়ে একটি নৌকা ডুবে যায়। ঘটনাটি বৃহস্পতিবার বিকেলের। নৌকাডুবির প্রত্যক্ষদর্শী লিবিয়ার জেলেরা।

তাঁরা বাংলাদেশি নাগরিক-সহ ২২ জনকে জীবিত উদ্ধার করেন। তাঁদের মধ্যে মিশর, সিরিয়া, সোমালিয়া, ঘানা-সহ বিভিন্ন দেশের নাগরিক রয়েছেন। এ ঘটনায় আরও অন্তত ১৩ জন নিখোঁজ রয়েছেন। বুধবার ত্রিপোলির পূর্বাঞ্চলের জিলিতেন শহর থেকে নৌকাটি যাত্রা করে। উদ্ধারকাজ চালানোর সময় সিরীয় নারী ও পুরুষ-সহ তিনজনের মরদেহ পাওয়া গেছে। লিবিয়ার উপকূলরক্ষীরা জানিয়েছেন, নিখোঁজ ব্যক্তিদের খুঁজতে উদ্ধারকাজ অব্যাহত রয়েছে। নৌকাটিতে ঠিক কত জন বাংলাদেশি নাগরিক ছিলেন, তা জানা সম্ভব হয়নি।

উল্লেখ্য, ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে মৃত্যুর ঘটনা এটাই প্রথম নয়। গত বছর ১২ মে লিবিয়া থেকে নৌকাযোগে উত্তাল ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গেয়ে নৌকা ডুবে ৩৭ জন বাংলাদেশির মৃত্যু হয়। অবৈধ ভাবে ইতালি যাওয়ার পথে নৌকাটিতে থাকা অন্তত ৬৫ জন অভিবাসী প্রাণ হারান। তাঁদের বেশির ভাগই ছিলেন বাংলাদেশি। সংখ্যা ৩৭ জন। তিউনিসিয়ার রেড ক্রিসেন্ট এই খবর নিশ্চিত করে।

সে সময় তিউনিসিয়া উপকূলে ওই নৌকাডুবির পর জীবিত ডজনখানেক মানুষকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। যাঁদের মধ্যে বেলাল আহমেদ নামের এক বাংলাদেশি তাঁর ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন।

একজন একজন করে কী ভাবে তাঁরা ডুবে যাচ্ছিলেন তার বর্ণনা দিয়েছিলেন বেলাল। ৩০ বছরের বেলাল সেই নৌকাডুবির ঘটনায় দুই স্বজনকে হারান।  ইতালি অভিমুখী নৌকাটিতে ৫১ জন বাংলাদেশি ও তিনজন মিশরীয় ছাড়াও মরক্কো ও চাদের কয়েক জন ছিলেন। বাকিরা ছিলেন আফ্রিকান। উদ্ধার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে একটি শিশু-সহ মোট ১৪ জন বাংলাদেশি।

২০১১ সালে লিবিয়ায় গৃহযুদ্ধ শুরুর পর সেখান থেকে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক লিবীয় ও অন্যান্য দেশের বাসিন্দা সাগরপথে ইউরোপে যাওয়ার জন্য ভূমধ্যসাগরকে রুট হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত ১৭ হাজার অভিবাসী ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পৌঁছেছে। এই যাত্রাপথে প্রায় ৫০০ অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে।

খবর অনলাইনে আরও পড়তে পারেন

বিতর্কিত কৃষি বিলের বিরোধিতায় বিজেপি-সঙ্গ ত্যাগ করল অকালি দল

Continue Reading

দেশ

করোনাকে জয় করতে বিশ্বকে সাহায্য করতে পারে ভারত: রাষ্ট্রপুঞ্জের সভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

নরেন্দ্র মোদী বলেন, টিকা উৎপাদনে ভারতের ক্ষমতা এই মহামারি জিততে বিশ্বকে সাহায্য করবে।

Published

on

PM Narendra Modi in UNGA
সাধারণ পরিষদের ভার্চুয়াল সভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

খবর অনলাইন ডেস্ক: সমস্ত পরীক্ষানিরীক্ষা সফল হয়ে যাওয়ার পর একবার সাধারণ মানুষকে টিকা (Vaccine) দেওয়া শুরু হলে ভারত করোনা-সংকট (Coronavirus crisis) থেকে বিশ্বকে মুক্ত করার কাজে সাহায্য করতে পারে। রাষ্ট্রপুঞ্জের (United Nations) সাধারণ পরিষদের (General Assembly, UNGA) ৭৫তম সভায় এই কথা বলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী (Indian PM) নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)।

করোনা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আরও বেশি কিছু করার জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জকে আহ্বান জানান মোদী।

শনিবার রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদের ভার্চুয়াল সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বিশ্বে টিকার সর্ববৃহৎ প্রস্তুতকারী দেশ হিসাবে আমি আন্তর্জাতিক সমাজকে আরও একটি আশ্বাস দিতে চাই। টিকা উৎপাদন এবং সরবরাহের ক্ষেত্রে ভারতের যে ক্ষমতা আছে, তা এই সংকটের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সমগ্র মানবজাতিকে সাহায্য করার কাজে ব্যবহার করা হবে।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, টিকার তৃতীয় দফার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ক্ষেত্রে ভারত দ্রুত এগিয়ে চলেছে। টিকার নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা যাচাইয়ের ক্ষেত্রে ব্যাপক হারে ট্রায়ালকেই সোনালি মান বলে ধরে নেওয়া হয়। এই টিকা মজুত করার ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ভারত সব দেশকে সাহায্য করবে।

নরেন্দ্র মোদী বলেন, “টিকা উৎপাদনে ভারতের ক্ষমতা এই মহামারি জিততে বিশ্বকে সাহায্য করবে। করোনাভাইরাস সংকটের সময় ভারত ১৫০টিরও বেশি দেশকে চিকিৎসা সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে।”

গত মাসে স্বাধীনতা দিবসের বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, ভারতে তিনটি টিকা পরীক্ষার বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। “বিজ্ঞানীরা সবুজ সংকেত দিলেই আমরা উৎপাদনের পরিকল্পনা নিয়ে প্রস্তুত হয়ে যাব। খুব কম সময়ে কী ভাবে প্রতিটি ভারতীয়ের কাছে টিকা পৌঁছে দেওয়া যায় তার রোডম্যাপ আমাদের তৈরি হয়ে আছে।”

খবর অনলাইনে আরও পড়তে পারেন

কোভিডের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর এই প্রথম ভারতে ‘আর নম্বর’ নামল ১-এর নীচে

Continue Reading

বিদেশ

করোনায় আরও ১০ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হতে পারে, উদ্বেগের কথা শোনাল ‘হু’

মৃতের সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১০ লক্ষ, তা দ্বিগুণ হতে পারে।

Published

on

mike ryan
মাইক রায়ান। ফাইল ছবি

খবর অনলাইন ডেস্ক: চিনে প্রথম করোনাভাইরাস (Coronavirus) আক্রান্তের হদিশ মেলার পর কেটে গিয়েছে প্রায় ১০ মাস। ধাপে ধাপে সংক্রমণ ছড়িয়েছে গোটা দুনিয়ায়। মৃত্যু হয়েছে কয়েক লক্ষ মানুষের। কিন্তু এই মৃত্যুমিছিলে এখনই ইতি পড়ছে না বলে আশঙ্কার কথা জানাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)-র এক কর্তা।

অত্যাধুনিক প্রযুক্তি এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির সাহায্যে এখনও পর্যন্ত তেমন কোনো সার্বিক কার্যকরী ভ্যাকসিন বাজারে আসেনি। একই সঙ্গে এগিয়ে আসছে শীতকাল। ফলে মহামারি আরও মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত সারা বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ২৭ লক্ষ ৯৪ হাজার ৪০৭। মৃতের সংখ্যা ৯ লক্ষ ৯৪ হাজার ৮। কার্যকর একটি ভ্যাকসিন সহজলভ্য হওয়ার আগে মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হতে পারে আশঙ্কা প্রকাশ করলেন হু-র জরুরি স্বাস্থ্য কর্মসূচির নির্বাহী পরিচালক ডা. মাইক রায়ান (Mike Ryan)।

কী বলছেন হু বিশেষজ্ঞ?

শুক্রবার রায়ান বলেন, এখনই সম্মলিত আন্তর্জাতিক পদক্ষেপ না নেওয়া হলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, কোভিড-১৯ (Covid-19)-এর প্রতিষেধক সহজলভ্য হওয়ার আগেই কি মৃতের সংখ্যা ২০ লক্ষ ছাড়িয়ে যেতে পারে? এমন প্রশ্নের জবাবে রায়ান বলেন, “এটা অসম্ভব নয়”।

তিনি বলেন, “গত ১০ মাসে আমরা প্রায় ১০ লক্ষ মানুষের প্রাণহানি দেখেছি। আগামী ন’মাস প্রতিষেধকের জন্য অপেক্ষা না করে আমাদের সম্মিলিত ভাবে এগিয়ে আসতে হবে”।

শুধুমাত্র ভ্যাকসিনে হবে না!

সংবাদ সংস্থা বিবিসির রিপোর্ট অনুযায়ী, “জেনেভায় হু-র সদর দফতরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, লকডাউন একেবারে শেষ অবলম্বন। সেপ্টেম্বরে আমরা সেই অবলম্বন থেকেও ফিরে আসছি। এখন এই মহামারি থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় যথাযথ ভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। দেখা যাচ্ছে, যেখানে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না, সেখানে সংক্রমণ বেশি ছড়াচ্ছে। যেখানে মানা হচ্ছে, সেখানে সংক্রমণও কম”।

একই সঙ্গে তিনি স্মরণ করিয়ে দেন, “শুধুমাত্র ভ্যাকসিন দিয়ে সংক্রমণ অথবা কোনোটাতেই সম্পূর্ণ লাগাম টানা সম্ভব নয়”।

আরও পড়তে পারেন: কোভিড ভ্যাকসিন: প্রারম্ভিক পরীক্ষায় উতরে গেল জনসন অ্যান্ড জনসন

Continue Reading
Advertisement
Balasaheb Thorat
দেশ1 hour ago

রাষ্ট্রপতির সম্মতি মিললেও নয়া তিন কৃষি আইন কার্যকর করবে না মহারাষ্ট্র, হুঁশিয়ারি মন্ত্রীর

রাজ্য2 hours ago

রাজ্যে দৈনিক আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যায় সামান্য বৃদ্ধি, ঊর্ধ্বমুখী সুস্থতা

farm bills protest
দেশ3 hours ago

নাটকীয় ভাবে সংসদে পাশ হওয়া কৃষি বিলে স্বাক্ষর রাষ্ট্রপতির

দেশ3 hours ago

সেরো সার্ভের রিপোর্ট তুলে ধরে কোভিড নিয়ে সতর্ক করলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী

দেশ4 hours ago

জল্পনার অবসান! নীতীশ কুমারের দলে যোগ দিলেন বিহারের প্রাক্তন ডিজি

রাজ্য6 hours ago

২ নভেম্বর থেকে কলেজের ক্লাস অনলাইনে, সাফ জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

রাজ্য6 hours ago

সিঙ্গুর প্রসঙ্গ টেনে বিজেপি-সঙ্গ ত্যাগকারী অকালি দলকে সমর্থন তৃণমূলের

adar poonawala and narendra modi
দেশ7 hours ago

ভারতে তৈরি ভ্যাকসিন নিয়ে গোটা বিশ্বকে আশ্বাস নরেন্দ্র মোদীর, স্বাগত জানালেন সেরাম কর্ণধার

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা3 days ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা5 days ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা1 week ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা2 weeks ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা2 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা3 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা3 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা1 month ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা1 month ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

নজরে