kashmir

ওয়েবডেস্ক: গত ৮ এপ্রিলের কথা। প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাই তথা পঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী তথা পাকিস্তান মুসলিম লিগের (নওয়াজ) প্রেসিডেন্ট ‘শপথ’ নিয়ে বলেছিলেন, কাশ্মীরকে তিনি পাকিস্তানের অংশ করবেনই।

মোদীর বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ শানিয়ে তিনি বলেছিলেন, “কাশ্মীরে যে ভাবে মানুষের ওপরে অত্যাচার হচ্ছে সেটা দেখে আমাদের রক্ত গরম হয়ে যাচ্ছে।”

কাট টু ১১ জুলাই। নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করল তাঁর দল। সেখানে কাশ্মীর নিয়ে বিশেষ কোনো কথাই খরচ করা হয়নি। দু’মাস আগে যাকে নিজেদের দেশের অংশ করবেন বলেছিলেন শরিফ, দু’মাসে সম্পূর্ণ ভোলবদল।

shahbaz sharif pakistan
পিএমএল (এন) সভাপতি শাহবাজ শরিফ

কী বলছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ইস্তেহার?

নওয়াজ শরিফ হোক বা তাঁর বিরোধী ইমরান খান, কাশ্মীর নিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে বারবার আক্রমণ শানিয়েছেন সবাই। কিন্তু নির্বাচনের আগে পাকিস্তানের প্রধান তিনটে দলের নির্বাচনী ইস্তেহারে চোখ বোলালে দেখা যাবে কাশ্মীরকে এখন আর কেউ গুরুত্বই দিচ্ছে না।

ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-এ-ইনসাফ (পিটিআই) যে ইস্তেহার প্রকাশ করে তার শেষ অংশে লেখা রয়েছে, “ভারতের সঙ্গে সহযোগিতা” এবং “রাষ্ট্রপুঞ্জের মাপকাঠির মধ্যেই কাশ্মীর সমস্যার সমাধান।”

imran khan
পাক তেহরিক-এ-ইনসাফ প্রধান ইমরান খান

নওয়াজের দল পিএমএল (এন) শুধু কাশ্মীরিদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছে। রোহিঙ্গা এবং পালেস্তিনীয়দের প্রতিও এই বার্তাই দিয়েছে তারা। সুতরাং এই বার্তার আলাদা যে কোনো গুরুত্ব নেই সেটা বলে দেওয়া যায়। অন্য দিকে কাশ্মীর প্রসঙ্গ উল্লেখই করেনি প্রয়াত বেনাজির ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপল্‌স পার্টি (পিপিপি)। তাদের একমাত্র লক্ষ্য, ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করে তোলা।

‘সাধারণ মানুষের কাছে কাশ্মীর কোনো ইস্যু নয়’

পাকিস্তানের প্রবীণ সাংবাদিক তথা নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ কামার আঘার মতে, দেশের সাধারণ মানুষের কাছে কাশ্মীর এখন কোনো ইস্যুই নয়। তাঁর কথায়, “পাকিস্তানের মানুষের কাছে এখন আরও অনেক বড়ো ইস্যু হল জঙ্গিবাদ শেষ করা এবং ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলা।”

তাঁর মতে, শুধুমাত্র কট্টরপন্থী রাজনৈতিক দল জামাত-এ-ইসলামির কাছেই কাশ্মীর একটা ইস্যু। তিনি বলেন, “পাকিস্তানের যুবসম্প্রদায় পরিবর্তন চায়। ওরা প্রচুর খুনোখুনি দেখেছে। এ বার ওরা চায় উন্নয়ন এবং গণতান্ত্রিক অধিকার।”

bilawal bhutto
পিপিপির প্রধান তথা বেনজির ভুট্টো-পুত্র বিলাওয়াল

‘পাকিস্তান সেনার কাছেই শুধু কাশ্মীর একটা ইস্যু’

১৯৯৭ সাল থেকে পাকিস্তানের প্রচুর রাজনৈতিক সভায় উপস্থিত থেকেছেন প্রবীণ সাংবাদিক বেদপ্রকাশ বৈদিক। তাঁর কথায়, নওয়াজ শরিফ বা বেনাজির ভুট্টো কখনোই নির্বাচনী সভায় কাশ্মীর প্রসঙ্গ তুলতেন না। তিনি বলেন, “পাকিস্তানের সাধারণ মানুষ মনে করে কাশ্মীর নিয়ে বেশি ভাবলে তারা কোনো ভাবেই অগ্রসর হবে না।”

কাশ্মীর শুধুমাত্র পাকিস্তান সেনার কাছেই গুরুত্ব পায় বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, “দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতির ওপরে নিজেদের দখল রাখার জন্যই, কাশ্মীর ইস্যু তুলে মানুষের মধ্যে ‘ভারত ভীতি’ চাগিয়ে তোলে সেনা।”

qamar bajwa
পাক সেনাপ্রধান কামার বাজওয়া।

২৫ জুলাই সাধারণ নির্বাচনে ভোট দেবে পাকিস্তান। এ বার নির্বাচনে মূল লড়াই হতে পারে শরিফের পিএমএল (এন) এবং ইমরানের দলের মধ্যে। তবে পাঁচ বছর পরে ফের ক্ষমতায় ফিরে আসার ব্যাপারে আশাবাদী পিপিপিও।

সূত্র: দ্য কুইন্ট

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here