জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ফ্রান্সে বিক্ষোভ

ওয়েবডেস্ক : বিক্ষোভে উত্তাল প্যারিসের রাজপথ। শুধু প্যারিস  নয় গোটা দেশ জুড়ে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ চলছে। প্রায় দু’সপ্তাহ ধরে চলা এই বিক্ষোভে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নিরাপত্তা নিয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাকরন।

গত এক বছরে ২৩ শতাংশেরও বেশি জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে। প্রতিবাদীকারীদের অভিযোগ এর ফলে বেড়েছে জীবন ধারনের খরচও। যারা শহরের একটু অদূরে থাকেন তাঁদের গাড়ি করেই যাতায়াত করতে হয় ফলে বেড়েছে খরচ। বিক্ষোভকারীদের সামাল দিতে কাঁদানে গ্যাস এবং জল কামান ছোঁড়ে পুলিশ। লাগাতার এই বিক্ষোভে জেরে শহরে অন্তত ১০০জনে বেশি আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৪০জন নিরাপত্তাকর্মী রয়েছে। এখনও পর্যন্ত ৪০০জনেরও বেশি প্রতিবাদকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মিছিল করে আসছেন প্রতিবাদীরা
আগুন জ্বালিয়ে প্রতিবাদ

কী ভাবে ছাড়লো বিক্ষোভের আগুন

জীবনধারণের খরচ বাড়ছে বলে গত এক বছর ধরেই ক্ষোভ জমা হচ্ছিল। সেই ক্ষোভের আঁচে ঘি ঢালে সোশ্যাল মিডিয়ায়। দুই সপ্তাহ ধরে মানুষ জমা হয়ে বিক্ষোভে দেখাচ্ছেন। বিক্ষোভকারীদের গায়ে রয়েছে হলুদ রঙের জ্যাকেট। এই অনেকে ডাকছেন তাই ‘ইয়োলো ভেস্ট’ বলে। পুলিশের গাড়িতে আগুন, ভাঙচূর চালায় বিক্ষোভকারীরা।  তাদের রুখতে পুলিশ ব্যারিকেড তৈরি করে। সেই ব্যারিকেডও ভেঙে দেয় বিক্ষোভকারীরা।

কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ছে পুলিশ

কী বলছেন প্রেসিডেন্ট

তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণ হিসাবে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাকরন বলেছেন, বিশ্ব উষ্ণায়ন রুখতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আন্দোলনকে হাইজ্যাক করে ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে বিরোধীরা।

মে’৬৮-এর মিছিল

মে ৬৮-এর ৫০ বছর

৫০ বছর আগে ছাত্রদের এক তীব্র বিক্ষোভ-বিদ্রোহে কেঁপে উঠেছিল ফ্রান্স। ১৯৬৮ সালের মে মাসে এই বিদ্রোহের শুরু করেছিলেন ফ্রান্সের শিক্ষার্থীরা। ভিয়েতনাম যুদ্ধের ভয়াবহতা দেখে তাঁরা সোচ্চার হয়েছিলেন ‘রক্ষণশীল ও কর্তৃত্ববাদী’ সমাজব্যবস্থার বিরুদ্ধে। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যোগ দিয়ে রাস্তায় নেমে এসেছিলেন ফ্রান্সের শ্রমিকরাও। এবছর পূর্ণ হয়েছে সেই ৬৮-র গণঅভ্যুত্থানের ৫০ বছর।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here