germany nurse

ওয়েবডেস্ক: এ তো কেঁচো খুঁড়তে কেউটে বেরিয়ে পড়ল। বিচার চলছিল দু’টো খুনের মামলার, এখন দেখা যাচ্ছে দু’জন নয়, অন্তত একশো জনকে খুন করেছেন এই ‘সিরিয়াল কিলার’। এমনই জানাচ্ছেন তদন্তকারীরা।

ওই দু’জন রোগীকে খুন করার অপরাধে ২০১৫ সালে যাবজ্জীবন সাজা হয় জার্মানির প্রাক্তন নার্স নিলস হোগেলের। জানা যায় রোগীদের বিষাক্ত ইঞ্জেকশন দিতেন হোগেল, যাতে তাদের হার্ট ফেল হওয়ার পাশাপাশি শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যেত।

কিন্তু মামলা এখনও থামেনি। বরং ১৯৯৯ থেকে ২০০৫-এর মধ্যে জার্মানির দু’টো হাসপাতালে অন্তত একশো জনকে খুন করার অভিযোগ এখন তাঁর বিরুদ্ধে। তদন্তকারীদের দাবি এই সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে।

এই ব্যাপারে গত আগস্ট থেকেই হোগেলকে জেরা করা হচ্ছে। তাঁর কর্মজীবনে যত জন তাঁর তত্ত্বাবধানে মারা গিয়েছেন, সেই ১৩৪ জনের দেহ কবর থেকে বের করা হয়েছে। তদন্ত করে দেখা যাচ্ছে আপাতত একটি হাসপাতালে ৩৮ এবং অন্যটিতে ৬২ জনের মৃত্যুও ঠিক একই পদ্ধতিতে হয়েছে। তদন্তকারীদের ধারণা বাকিদের মৃত্যুর কারণও একই।

তদন্তকারীদের দাবি, জেরায় বিষাক্ত ইঞ্জেকশন দেওয়ার কথা স্বীকার করে নিয়েছে হোগেল। একঘেয়েমি কাটাতেই এই কাণ্ড করেছেন বলে জানিয়েছেন হোগেল। জেরায় হোগেল জানান, রোগীদের সঙ্গে দিনরাত ওঠাবসা একঘেয়ে হয়ে গিয়েছিল। তাই জীবনে বৈচিত্র্য আনতে আইসিইউতে থাকা রোগীদের এই ইঞ্জেকশন দিয়ে মেরে ফেলতেন তিনি।

সবার মৃত্যুর কারণ যদি হোগেলই হন, তা হলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে তিনিই জার্মানির সব থেকে ভয়ংকর ‘সিরিয়াল কিলার’-এর তকমা পেতে পারেন বলে ধারণা প্রশাসন এবং ওয়াকিবহাল মহলের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here