ওয়াশিংটন: সাতটি মুসলিম-প্রধান দেশের লোকদের আমেরিকায় ঢোকা নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ার পর গুগল তাদের ভ্রমণরত প্রায় শত খানেক কর্মীকে অবিলম্বে যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে আসতে বলেছে। বলেছে, আদেশ কার্যকর হওয়ার আগেই যেন তাঁরা ফিরে আসেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর নির্দেশে সই করার পর গুগল-এর সিইও সুন্দর পিচাই তাঁর কর্মীদের ইমেলে জানিয়েছেন, আমেরিকার এই সিদ্ধান্তের ফলে তাঁদের অন্তত পক্ষে ১৮৭ জন ঝামেলায় পড়বেন। আমেরিকায় যে ৭টি দেশের মানুষদের প্রবেশ নিষিদ্ধ হয়ে গিয়েছে, ওই ১৮৭ জন ওই ৭টি দেশের লোক।  

মার্কিন প্রেসিডেন্টের এই আদেশনামার তীব্র সমালোচনা করেছেন গুগল-এর সিইও। বলেছেন, “এই আদেশ যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিভাবান লোকদের আসার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। আমরা এই আদেশে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত। গুগলের কর্মীদের ব্যক্তিগতএবং পারিবারিক জীবনে এর যে প্রভাব পড়বে তা বেদনাদায়ক।”

ইমেলে পিচাই লিখেছেন, “আমাদের প্রথম কাজ হল ক্ষতিগ্রস্ত গুগলারদের সাহায্য করা। তাঁদের যে কোনো সাহায্যের প্রয়োজন হলে তাঁরা যেন গুগলের সিকিউরিটি টিমের সঙ্গে অবিলম্বে যোগাযোগ করেন। কারও জীবনে, বিশেষ করে আমাদের সহকর্মী গুগলারদের জীবনে কোনো আশঙ্কা, অনিশ্চয়তা নেমে আসুক, তা আমরা চাই না। এই অনিশ্চিত সময়ে আমাদের মূল্যবোধই আমাদের সব চেয়ে ভালো পথপ্রদর্শক।”

সিলিকন ভ্যালিতে যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের একটা বড়ো অংশই অভিবাসী। তাই প্রযুক্তি শিল্প বরাবরই মার্কিন অভিবাসন আইন আরও খোলামেলা করার পক্ষপাতী। তারা বলে এসেছে, টেকনিক্যাল কাজের জন্য আরও বেশি বেশি করে দক্ষ বিদেশিদের নিয়ে আসতে হবে। ট্রাম্পের নতুন নির্দেশে তাই মার্কিন টেকনোলোজি কোম্পানিগুলোতে বড়ো রকম প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here