Sakorn Sachiwa the dead body returned

ওয়েবডেস্ক: মনে হতে পারে কোনো অলৌকিক গল্প। অথবা শনিবারের বারবেলা সিরিজের কোনো কাহিনি।আবার এমনও মনে হতে পারে, এ বিশ্ব সংসারে তো কত কিছুই অত্যাশ্চর্যজনক ঘটছে, এটাও বোধহয় তারই একটি। কিন্তু বাস্তবে ঘটেছে এই রহস্যজনক ঘটনা। যার জট কাটানো নয়, পাকিয়ে ছিল ব্যাংকক পুলিশ।

রাজধানীর পুলিশ সাত মাস আগে ৩০০ কিমি দূরে সকর্ণ সাচিওয়ার পরিবারকে জানায় নিজের ভাড়া বাড়িতেই পেটের রোগে মারা গিয়েছেন তিনি। যথারীতি পরিবারের লোকজন সেই ‘মড়া’ নিয়ে চলে যান শ্মশানে। ধর্মীয় ভাবে সকর্ণ বৌদ্ধ। ফলে ওই ধর্মের একটি সম্প্রদায়ের নিয়মানুযায়ী দাহ করার তিন দিন আগে  ধর্মীয় রীতি মেনে যাবতীয় ক্রিয়াকর্ম করা হয়। এমনকী বাড়ির অদূরে একটি জায়গায় চিতাভস্ম দিয়ে স্তূপ তৈরিও করা হয়।

কিন্তু আচমকা সেই মড়া জীবিত হয়ে ফিরে এল বাড়ি। থাইল্যান্ডের পুলিশও হতচকিত। কিন্তু বাড়ির লোক তো চেনেই নিয়েছে তাঁকে।

প্রশ্ন উঠছে, আদৌ কি মারা গিয়েছিলেন সকর্ণ?

তাঁর মড়াকে দাহ করা ভাইপো অবশ্য এখন প্রমাদ গুনছেন। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ডেথ সার্টিফিকেট সহ কাকার মড়া নিয়ে শ্মশানে যাওয়ার সময় তাঁরও না কি মনে হয়েছিল মড়ার দাঁতগুলো তাঁর কাকার মতো নয়।

তা হলে সেদিন কার মৃতদেহ দাহ করা হয়েছিল?

সকর্ণের বাড়ির লোক তাঁকে ফিরে পেয়ে খুশিতে মেতেছেন। ভেঙে ফেলেছেন চিতাভস্ম দিয়ে তৈরি স্মৃতিস্তূপ। কিন্তু শান্তি নেই পুলিশ প্রশাসনের। সরকারি দস্তাবেজে ঠিক কী ভাবে করা যাবে পরিবর্তন?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here