তাঁর সরকার সকলের জন্য কাজ করবে, বললেন থেরেসা মে

0

খবর অনলাইন: তিনি এমন সরকারের নেতৃত্ব দেবেন যে সরকার সকলের জন্য কাজ করবে, শুধুমাত্র কিছু মুষ্টিমেয় সুবিধাভোগীর জন্য নয়। যে সরকার ‘এক জাতি’র সরকার। দায়িত্ব নিয়ে এমনই প্রতিশ্রুতি দিলেন থেরেসা মে।

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ তাঁকে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নিয়োগ করার পরেই ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের বাইরে দাঁড়িয়ে থেরেসা বলেন, ‘আরও ভালো ব্রিটেন’ গড়াই তাঁর লক্ষ্য। যাঁরা ‘কোনও রকমে ম্যানেজ’ করছেন, ‘উদয়াস্ত পরিশ্রম করছেন’ তাঁদের একটু ভালো ভাবে জীবন ধারণ করার সুযোগ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি।

মার্গারেট থ্যাচারের পর থেরেসা মে-ই হলেন ব্রিটেনের দ্বিতীয় মহিলা প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রথম জনসভায় থেরেসা ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, ওয়েলস আর উত্তর আয়ার্ল্যান্ডের মধ্যে এবং ‘নিজেদের মধ্যে’ ‘মূল্যবান বন্ধন’-এর উল্লেখ করেন। থেরেসা যখন বক্তৃতা দিচ্ছিলেন তখন তাঁর স্বামী ফিলিপ পিছনে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

এ দিকে ব্রিটেনে এক আবেদনে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী পদে আসীন হওয়ার পর থেরেসা মে-র নির্বাচনে যাওয়া উচিত। এই আবেদনে ইতিমধ্যেই সাড়ে ১০ হাজার মানুষ সমর্থন জানিয়েছেন। ‘চেঞ্জডটঅর্গ’ (Change.org) নামের ওই আবেদনটি সংগঠিত করেছে সংবাদপত্র ‘ডেইলি মিরর’। আবেদনে বলা হয়েছে, থেরেসা মে-র পিছনে কোনও গণতান্ত্রিক সমর্থন নেই। এই আবেদনটি থেরেসা মে-র কাছেই জমা দেওয়া হবে।

আবেদনে বলা হয়েছে, “২০০৭ সালে টনি ব্লেয়ার সরে যাওয়ার পর গর্ডন ব্রাউন যখন প্রধানমন্ত্রী হন, তখন আপনিই সাধারণ নির্বাচন ডাকার কথা বলেছিলেন। আপনি যা বিশ্বাস করেন নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নিশ্চয়ই আপনি তা করে দেখাবেন এবং আপনার কর্তৃত্ব ও শাসন করার অধিকার কতটুকু আছে তা আপনি ব্যালট বাক্সে পরীক্ষা করবেন।”

ছবি: সৌজন্যে বিবিসি নিউজ

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন