ইসলামাবাদ: প্রধানমন্ত্রীত্ব থেকে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর সরাসরি পাক সেনার বিরুদ্ধে আক্রমণ শানালেন প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বললেন, ‘‘আমাদের হাত বাঁধা ছিল। সর্বত্রই আমাদের (সরকারের) সঙ্গে তঞ্চকতা করা হয়েছে। হুমকি দেওয়া হয়েছে। সরকারে থেকেও আমরা ক্ষমতার অধিকারী ছিলাম না।’’

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য, দেশের সুরক্ষার স্বার্থে শক্তিশালী সেনাবাহিনী থাকা অবশ্যই জরুরি। তবে শক্তিশালী সেনার সঙ্গে ক্ষমতাসীন মজবুত সরকারের ভারসাম্য বজায় রাখা ততটাই আবশ্যক।

বুধবার পাকিস্তানের একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে গত এপ্রিল মাসে পাক-পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটের ঘটনাপ্রবাহ দিয়ে মুখ খুলেছেন ইমরান। তেহরিক-ই-ইনসাফের নেতা বলেন, ‘‘আমাদের সরকার যখন ক্ষমতায় এল, তখন আমরা সত্যিই দুর্বল ছিলাম। সেই সময় বিভিন্ন দলের সাহায্য নিতে হয়েছিল আমাদের। কিন্তু আমাদের হাত বাঁধা ছিল। আমরা সবাই জানি, পাকিস্তানে কাদের হাতে সব চেয়ে বেশি ক্ষমতা। তাই তাদের উপরেই নির্ভর করতে হয়েছিল আমাদের।’’

অবশ্য সরাসরি সেনার নাম না নিলেও ইমরানের মন্তব্যে পরিষ্কার কাদের উদ্দেশে এমনটা করেছেন তিনি। তিনি বলতে থাকেন, ‘‘সব সময়েই ওদের উপর ভরসা করতে হত আমাদের। ওরা অনেক ভালো কাজ করেছে। আবার এমন অনেক কিছুই ওরা করেনি, যা করা উচিত ছিল। ওদের হাতে ক্ষমতা রয়েছে কারণ ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টিবিলিটি ব্যুরোর মতো প্রতিষ্ঠান ওদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’’

পাকিস্তানের রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, গত বছর পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই-এর শীর্ষপদে লেফটেন্যান্ট জেনারেল নাদিম আনজুমের নিয়োগে প্রাথমিক ভাবে সবুজ সঙ্কেত দিতে রাজি হননি ইমরান। তার পর থেকেই পাক সরকার ও পাক সেনার মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরা শুরু হয়। যদিও পরে নাদিমের নিয়োগে অনুমোদন দিয়েছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়তে পারেন:

এই প্রথম, কাবুলে তালিবান নেতৃত্বের সঙ্গে দেখা করল বিদেশমন্ত্রকের প্রতিনিধি দল

জলের ভয়াবহ আকাল, দড়ি ছাড়াই গভীর কুয়োতে নামছেন মহিলারা

প্রতিটি মসজিদে শিবলিঙ্গ খোঁজার কী প্রয়োজন? জ্ঞানবাপী বিতর্কে জল ঢেলে দিলেন মোহন ভগবত

পুরুলিয়ায় গিয়ে মমতার ‘থাপ্পড় দাওয়াই’, জেলাশাসককে বদলি করল নবান্ন

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন