imran khan
ইমরান খান। ছবি সৌজন্যে ডিএনএ ইন্ডিয়া।

ইসলামাবাদ: পাকিস্তানের সাংসদরা ইমরান খানকেই দেশের ভাবী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে বেছে নিলেন। শনিবার পাকিস্তানের জাতীয় আইন পরিষদের নিম্ন কক্ষে সাংসদদের আস্থা ভোটে জয়ী হন ইমরান। ১৭৬টি ভোট পান তিনি। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পাকিস্তান মুসলিম লিগ (নওয়াজ)-এর শাহবাজ শরিফ পান ৯৬টি ভোট। আইন পরিষদের স্পিকার আসাদ কায়জার এই ফল ঘোষণা করেন। আইন পরিষদের তৃতীয় শক্তিধর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) সহ বেশ কিছু দল এই আস্থা ভোট বয়কট করেন।

প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ন্যূনতম ১৭২টি ভোট পেতে হয়। আইন পরিষদের ভোটাভুটি এ দিন লাইভ সম্প্রচার করা হয়। সম্প্রচারের পরে স্পিকার ঘোষণা করেন, “ইমরান খান ১৭৬টি ভোট পেয়েছেন।” এই ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানে গত কয়েক দশক ধরে চলা পিপিপি বা পিএমএল (এন) অথবা সামরিক শাসনের আধিপত্যের দিন শেষ হল। পাক রাজনীতির সর্বোচ্চ শিখরে উঠে এল ইমরানের খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)।


আরও পড়ুন : বাজপেয়ীকে স্মরণ করে ফের ভারত এবং পাকিস্তান শান্তি স্থাপনের বার্তা ইমরানের

এ বারের নির্বাচনে ব্যাপক রিগিং এবং পাক সেনার হস্তক্ষেপের অভিযোগ উঠেছিল। সেই নির্বাচনে ইমরানের খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ একক বৃহত্তম দল হিসাবে উঠে আসে। কিন্তু নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা থেকে অনেকটা দূরেই থেমে যায়। সরকার গড়ার জন্য বেশ কিছু ছোটো দল এবং নির্দল সদস্যদের সমর্থন জোগাড় করেন ইমরান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন