Qatar

ওয়েবডেস্ক: কাতারের রাজধানী দোহা থেকে প্রায় ৫৫ কিমি দূরে মরুভূমির বুকে প্রাণশক্তির আধার দুগ্ধ উৎপাদন প্রকল্প গড়ে নজির গড়ল কাতার। প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে বিবাদের জেরে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল দুগ্ধ আমদানি। স্বাভাবিক ভাবেই পর্যাপ্ত দুধের অভাবে দাম বেড়ে গিয়েছিল কয়েকগুণ। আবার চড়া দরে সেই দুধ কিনতেও পারছিলেন না দেশের নিম্ন-মধ্যবিত্ত মানুষ। কোনো একটা কিছু করে দেখানোর তাগিদ থেকেই কাতারের বালাদনায় গড়ে তোলা হয় একটি আস্ত দুগ্ধ প্রকল্প।

প্রকল্প সূত্রে ঘোষণা করা হয়েছে, এখন ১৮০০ গরু নিয়ে প্রাথমিক স্তরে কাজ চলছে। তবে আগামী এপ্রিল মাসের মধ্যে ওই প্রকল্পে ১৪ হাজার গাভীর অন্তর্ভুক্তি করে সারা দেশের দুগ্ধ চাহিদা পূরণে সক্ষম হবে কাতার।

সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়ার অভিযোগে সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরশাহি, বাহরিন এবং ইজিপ্ট কাতারকে বাণিজ্যিক ভাবে বয়কট করে গত বছরের জনু মাসে। সংকটের সম্মুখীন হতে হয় বিবিধ ক্ষেত্রে। কিন্তু কিছু দিনের মধ্যে বেশির ভাগ সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারলেও দুগ্ধ সমস্যা রয়েই যায়। এর পর আয়ারল্যান্ড থেকে বিশেষজ্ঞ নিয়ে এসে তারা বালাদনায় ওই প্রকল্প স্থাপন করে। মরুভূমিতে বিদেশি গরুকে সুস্থ-সবল রেখে দুগ্ধ উৎপাদনের কাজটি মোটেই সহজ ছিল না।কিন্তু ওই বিশেষজ্ঞের সহায়তায় সে কাজও সফল হয়।ফার্মটিকে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত করে গরুগুলিকে কিউবিকলে সাচ্ছন্দে থাকার বিপুল আয়োজন করা হয়। রয়েছে একটি ঘূর্ণায়মান বৈঠকখানাও। আয়োজনের বহর দেখলে বোঝা দায়, এটি একটি গো-পালন ক্ষেত্র।

জানা গিয়েছে, সারা পৃথিবী থেকেই উন্নত মানের গরু কেনার পরিকল্পনা নিয়েছে কাতার।বর্তমানে যে ১৮০০ গরু রয়েছে তারা প্রতিদিন গড়ে ৩০ লিটার দুগ্ধ উৎপাদনে সক্ষম। কাতার খোঁজ করছে বিশ্বের আর কোন প্রজাতির গরু এর থেকেও বেশি পরিমাণ দুগ্ধ উৎপাদন করতে পারে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন