indo-sino

ওয়েবডেস্ক: ডোকলামের অচলাবস্থা মিটেছে সাড়ে তিন মাস হল। ভারত এবং চিন, দু’দেশই বলেছে অতীত ভুলে সামনের দিকে তাকানো উচিত। কিন্তু ডোকলাম সমস্যার জন্য মূল দায় ভারতের ঘাড়েই চাপের দিল চিন।

চিনের বিদেশমন্ত্রকের তরফ থেকে মঙ্গলবার দাবি করা হয়েছে, ভারতীয় সেনার সীমালঙ্ঘনের ফলের দু’দেশের সম্পর্ক তলানিতে এসে ঠেকেছিল। দু’দেশের মধ্যে পারস্পরিক বিশ্বাস অর্জনের জন্য পদক্ষেপ করা হলেও তা যে সন্তোষজনক ছিল না তা-ও জানিয়ে দিয়েছে চিন।

সোমবারই দিল্লিতে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে দেখা করেন চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং য়ি। তার পরের দিনই এই মন্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যের। বিদেশমন্ত্রকের তরফ থেকে একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “২০১৭-তে সামগ্রিক ভাবে ভারত এবং চিন নিজেদের মধ্যে সম্পর্কের উন্নতি করার চেষ্টা করেছে। এর জন্য অনেক পদক্ষেপও করা হয়েছে। কিন্তু সেই পদক্ষেপগুলি সন্তোষজনক ছিল না।”

বিবৃতিতে ডোকলামের সমস্যার জন্য ভারতের ঘাড়েই দোষ চাপিয়ে চিনা বিদেশমন্ত্রক দাবি করেছে, “ডোকলামে ভারতীয় সেনার সীমালঙ্ঘনের ফলেই দু’দেশের সম্পর্ক তলানিতে এসে গিয়েছিল। কিন্তু কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে সেই অচলাবস্থা মিটিয়ে নিতে সক্ষম হয় দুই দেশ।” এর থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে আরও সতর্ক থাকার বার্তা দেওয়া হয়েছে বিদেশমন্ত্রকের তরফ থেকে।

পারস্পরিক বিশ্বাস অর্জনের মধ্যে দিয়েই যে ভবিষ্যতে ভারত এবং চিনের সম্পর্ক আরও গভীর হবে সে কথাও বলে সে দেশের বিদেশমন্ত্রক। উল্লেখ্য, সোমবার চিন প্রসঙ্গে সুষমা বলেন, ভারত এবং চিনের মধ্যে অমিলের থেকে মিল অনেক বেশি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here