বার্লিন: বড়োদিনের ভরা বাজারে ট্রাক-হামলা চালিয়ে ১২ জনকে প্রাণে মেরে দেওয়ার দায় নিল তথাকথিত আইএস গোষ্ঠী। হামলাকারীর পরিচয় এখনও জানা যায়নি এবং আইএস-এর এই দাবির সত্যতাও প্রমাণ করা যায়নি। ইতিমধ্যে হামলাকারী সন্দেহে ধৃত পাক নাগরিককে মঙ্গলবার ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

সোমবার রাতে পশ্চিম বার্লিনের ফ্যাশনদুরস্ত এলাকা কুরফুয়েরস্টেনডাম আভেনুয়ের ব্রাইডশাইডপ্লাৎজ স্কোয়ারে বড়োদিনের বাজারে হুড়মুড়িয়ে একটি ট্রাক ঢুকে পড়ায় ১২ জন নিহত ও ৫০ জন আহত হন। সোমবার রাতের দিকে ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছুটা দূরে এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। তাকে ওই ট্রাকের ড্রাইভারের মতো দেখতে বলে জানিয়েছিল পুলিশ। ওই ব্যক্তি পাকিস্তানি। গত ফেব্রুয়ারিতে সে আশ্রয়ের খোঁজে জার্মানিতে আসে। মঙ্গলবার চিফ ফেডারেল প্রসিকিঊটরের অফিস থেকে বলা হয়, ঘটনা নিয়ে যতটুকু অনুসন্ধান হয়েছে, তাতে ধৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোনো তথ্যপ্রমাণ মেলেনি। তাই তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

জার্মান সরকারের পক্ষ থেকে অবশ্য এই হামলাকে গোড়ার দিকে সন্ত্রাসবাদী হামলা বলা হয়নি। তবে স্বীকার করা হয়েছিল যে, “ঘটনার অনেক লক্ষণই সন্ত্রাসবাদী হামলার মতোই”। মঙ্গলবার আইএস তাদের সংবাদসংস্থার মাধ্যমে জানিয়েছে, তাদের ‘সৈন্য’ এই হামলা চালিয়েছে। জার্মানির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টমাস দে মাইজিয়েরে অবশ্য এই দাবি সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে বলেছেন, “ঘটনাটি নিয়ে সব রকম দিক থেকে অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে।” তবে জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেল বার্লিনের হামলাকে সন্ত্রাসবাদী আক্রমণ বলে জানিয়ে দিয়েছেন।  

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here