৭০ বছরের ‘কমিউনিস্ট’ চিনে ক্রমশ বাড়ছে অসাম্য!

China celebrates 70th National Day
গণপ্রজাতন্ত্রী চিনের ৭০ বছর উদ্‌যাপন। সমস্ত ছবি: সিএনএন থেকে

ওয়েবডেস্ক: চিনে কমিউনিস্ট পার্টির শাসনের ৭০ বছর পূর্ণ হল ১ অক্টোবর। এই বিশেষ দিন‌টিকে বিশেষভাবেই পালন করছে বেজিং। নানান চড়াই-উতরাই পার হয়ে এক সময়ে দরিদ্র দেশ চিন বর্তমানে বিশ্বের অর্থনৈতিক ভাবে শক্তিশালী অন্যতম একটি দেশে পরিণত হয়েছে। সে দেশের অর্থনৈতিক উত্থানের গল্প বহুধাবিস্তৃত। কিন্তু যে দারিদ্র মোচনের আদর্শ নিয়ে এক দিন কমিউনিস্টদের হাত ধরে পথচলা শুরু করেছিল চিন, এখন সেখানেই বসেছে অসাম্যের থাবা!

মঙ্গলবার গণপ্রজাতন্ত্রী চিনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্‌যাপনে কয়েক মাস ধরেই চলেছে প্রস্তুতি। চূড়ান্ত দিনটিতে পৌঁছেও খামতি নেই কোনো ক্ষেত্রেই। দিনভর নানার রঙের অনুষ্ঠান, প্যারেড চলছে পূর্বনির্ধারিত পরিকল্পনা মতোই। কিন্তু বিশ্ব অর্থনীতির এই শক্তিশালী দেশের তৃণমূল স্তরের আর্থ-সামাজিক অবস্থানের কথাও উঠে এসেছে সমালোচনায়।

বিবিসির একটি প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, ১৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশ চিনে ওই অর্থনৈতিক উন্নয়নের সুফল সমান ভাবে পৌঁছায়নি এখনও। উল্টে, বৈষম্য ক্রমশ বেড়েই চলেছে। বিশেষ করে শহর এবং গ্রামাঞ্চলের তুলনামূলক বৈষম্য অনেক বেশি।

এক সময় বহির্বিশ্বের সঙ্গে তেমন কোনো অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিল না চিনের। সেখানে ছিল না তেমন কোনো বিদেশি বিনিয়োগ অথবা কূটনৈতিক সম্পর্কও ছিল না কোনো শক্তিশালী দেশের সঙ্গে। কিন্তু ১৯৪৯ সালের ১ অক্টোবর কমিউনিস্ট নেতা চেয়ারম্যান মাও জে দং গণপ্রজাতন্ত্রী চিন প্রতিষ্ঠার পর সেই ছবিই ক্রমশ বদলাতে শুরু করে। তাঁর কৃষি-অর্থনীতির বিকাশ ঘটানোর সুফলকে কাজে লাগিয়ে চিনাপণ্য আজ গ্রাস করেছে গোটা পৃথিবীকে। এ ভাবেই অর্থনীতিতে একের পর এক যুগান্তকারী পরিবর্তন ঘটানোর পাশাপাশি ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগের নতুন পথের সন্ধান পেয়েছে চিন।

বিশেষ করে শেষ ৪০ বছরে চিন নিজেকে বিশ্বের অন্যতম পরাক্রমশালী শক্তি হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। যে কারণে শুধু এশিয়া মহাদেশেই নয়, সারা পৃথিবীতে এক অলৌকিক অর্থনীতির উদ্ভব ঘটিয়েছে চিন।

যদিও এই অর্থনৈতিক উন্নয়নের সুফল সবার কাছে সমান ভাবে পৌঁছে দেওয়া নিয়েই নতুন করে প্রশ্ন উঠছে। এক দিকে বাড়ছে ধনকুবেরের সংখ্যা। অন্য দিকে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা।

বিশ্বব্যাঙ্কের একটি তথ্য বলছে, মাথাপিছু আয়ের দিক থেকে চিন এখনও রয়ে গিয়েছে উন্নয়নশীল দেশগুলির পঙ্‌ক্তিতেই। উন্নত দেশগুলোর তুলনায় চিনাদের আয় এক চতুর্থাংশেরও কম।

ডিবিএস নামের অন্য একটি প্রতিষ্ঠানের পরিসংখ্যান বলছে, চিনের জনপ্রতি গড় বার্ষিক আয় মাত্র ১০ হাজার ডলার, সেই জায়গায় মার্কিনিদের বার্ষিক আয় ৬২ হাজার ডলার।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.