Connect with us

বিদেশ

রাজপরিবারের মানসিক অত্যাচার, অকথ্য আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন মেগান, বিস্ফোরক দাবি ডাচেসের বাবার!

ওয়েবডেস্ক: সাধারণের সংসার আর রাজপরিবারের নিয়ম-কানুনের মধ্যে যে অনেকটা তফাত থাকে, জানা কথাই! এটাও অনুমান করে নিতে অসুবিধে হয় না, একবার বিয়ে ভাঙা এক মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে রাজপরিবারের বধূ হলে আদবকায়দায় ঠাসা নতুন জীবন মানিয়ে নিতে কতটা সমস্যায় পড়তে হতে পারে তাঁকে!

meghan markle and princeharry

তা বলে মানসিক অত্যাচার? প্রিন্স হ্যারির ব্রিটিশ রাজপরিবার ছুতোয়-নাতায় হেনস্তা করছে সাসেক্সের ডাচেস মেগান মার্কলেকে?

আরও পড়ুন: রাজবধূর ‘শাস্তি’, এই কাজগুলো আর কোনোদিন করতে পারবেন না মেগান

thomas markle

শুনতে অবাক লাগলেও সম্প্রতি ঠিক তেমন দাবিই তুলেছেন মেগানের বাবা থমাস মার্কলে। জোর গলায় বলছে তিনি- মেগান রীতি মতো আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন। সুখে তো নেই বটেই, পাশাপাশি হেনস্তার ছাপ বিয়ের কয়েক দিনের মধ্যেই পড়ে গিয়েছে চোখে-মুখে।

meghan markle

“আমি এই ভয় ওর চোখে দেখেছি, মুখে দেখেছি, হাসিতে দেখেছি। আমার মনে হচ্ছে- মেগান খুবই ভয়ে ভয়ে রয়েছে, একেবারেই সুখে নেই”, বলছেন থমাস। কিন্তু ডাচেসকে এই যে এত অনুষ্ঠানে দেখা যাচ্ছে হাসিমুখে?

meghan markle

“আমি সেই ছোটোবেলা থেকে মেগানকে হাসতে দেখেছি! কী বলছেন, আমি আমার মেয়ের হাসি চিনি না? আপনারা যেটা দেখছেন, সেটা স্রেফ জোর করে ধরে রাখা একটা কষ্টের হাসি”, জানাচ্ছেন থমাস। পাশাপাশি এটাও জানাতে ভুলছেন না, তাঁকে এখন যোগাযোগও করতে দেওয়া হয় না মেগানের সঙ্গে!

meghan markle and princeharry

“মেগানের ফোন নম্বরটাও বদলে দিয়েছে রাজপরিবার। আমি ওর পুরনো নম্বরে ফোন করেছিলাম, লাইন পাইনি! ওর সঙ্গে যোগাযোগের কোনো উপায়ই তো দেখছি না”, দাবি বাবার!

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

বিদেশ

পড়ুয়াদের ভিসা বাতিলের নতুন সিদ্ধান্ত নিয়ে ভারতকে ‘আশ্বাস’ আমেরিকার

পড়ুয়াদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা মাথায় রাখা হবে। যাতে এর প্রভাব হ্রাস করা যায়, সেই চেষ্টাই করা হবে।

ওয়েবডেস্ক: বিদেশি পড়ুয়াদের এফ-১ ভিসা (F-1 visa) নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে আমেরিকা। বলা হয়েছে, অনলাইনে ক্লাস করলে ভিনদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকা ছাড়তে হবে। তবে সূত্রের খবর, এ ব্যাপারে পড়ুয়াদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে ভারতকে জানিয়েছে আমেরিকা।

আমেরিকার নতুন ভিসা নীতি কার্যকর হলে বিপাকে পড়তে পারেন হাজার হাজার ভারতীয় ছাত্র। এই ইস্যুতেই ভারতের বিদেশসচিব হর্ষ বর্ধন শ্রীংলা এবং আমেরিকার রাজনৈতিক বিষয়ক অবর সচিব ডেভিড হ্যালের ভার্চুয়াল বৈঠক হয়।

সূত্রের খবর, “ভারত-মার্কিন বিদেশমন্ত্রক অফিসের আলোচনার সময় পড়ুয়াদের এফ-১ ভিসা ইস্যুটি উত্থাপিত হয়েছিল”। আলোচনার সময় মার্কিন-পক্ষ জানায়, পড়ুয়াদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা মাথায় রাখা হবে। যাতে এর প্রভাব হ্রাস করা যায়, সেই চেষ্টাই করা হবে।

এখনও সময় আছে!

একই সঙ্গে আমেরিকার পক্ষ থেকে জানানো হয়, নতুন নীতিটি বাস্তবায়নের বিস্তারিত নির্দেশিকা এখনও প্রকাশিত হয়নি। ফলে একাধিক বিবেচ্য বিষয় পর্যালোচনা করা সম্ভব।

অন্য দিকে নতুন নীতি নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump) প্রশাসন বিরোধিতার মুখোমুখি হয়েছে নিজের দেশেই। প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন সেনেটর এবং আগামী প্রেসিডেন্ট ভোটে ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নিও স্যান্ডার্স। তিনি জানান, ভিনদেশি পড়ুয়াদের উপর মারাত্মক শর্ত আরোপ করা হচ্ছে। তাঁদের বলা হচ্ছে, হয় প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে ক্লাস করো, নইলে দেশ ছাড়ো। সরকারের এই একগুঁয়েমি নীতির বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। দেশি হোক বা বিদেশি, সমস্ত পড়ুয়ার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

দুই দেশের বিদেশমন্ত্রক অফিসের ওই কথোপকথনে ‘গ্লোবাল স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপে’র আওতায় রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা-সহ বিভিন্ন বিষয় পর্যালোচনা করা হয়।

নতুন নীতিতে কী বলা হয়েছে?

করোনাভাইরাস মহামারির (Coronavirus pandemic) কারণে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই অনলাইন ক্লাস চলছে। নতুন নির্দেশে বলা হয়েছে, এ ভাবে অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বদল করতে হবে। সেখানে তাঁদের সশরীরে হাজির হয়ে ক্লাস করতে হবে। নচেৎ তাঁদের ভিসা প্রত্যাহার করা হবে।

আমেরিকার ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এমফোর্সমেন্ট (ICE) গত ৬ জুলাইয়ের বিবৃতিতে জানিয়ে দিয়েছে, “এফ-১ এবং এম-১ ভিসা নিয়ে পড়তে গিয়ে এখন যে সমস্ত পড়ুয়া অনলাইন ক্লাস করছেন, তাঁদের আমেরিকায় থাকার ভিসা প্রত্যাহার করা হবে। এমনকি ওই ভিনদেশি পড়ুয়ারা আমেরিকায় থাকতেও পারবেন না”।

এফ-১ ভিসা

বিদেশি পড়ুয়াদের ভিসার মধ্যে সব থেকে সাধারণ হল এফ-১ ভিসা। এগুলি সাধারণত কলেজ ডিগ্রি অর্জনকারীদের জন্য দেওয়া হয়। মার্কিন কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে এফ -১ ভিসায় তালিকাভুক্ত বিদেশি পড়ুয়াদের সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। বিশেষ করে বিশ্বমন্দার পর থেকে এই বৃদ্ধির হার ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী।

Continue Reading

বিদেশ

অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকা ছাড়তে হবে, নির্দেশ ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকারের

অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বদল করতে হবে। নচেৎ তাঁদের ভিসা প্রত্যাহার করা হবে।

ওয়েবডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামারির (Coronavirus pandemic) কারণে অনলাইনে ক্লাস চলছে। তবে সম্পূর্ণ ভাবে অনলাইনে ক্লাস করা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠরত পড়ুয়াদের উদ্দেশে কড়া নীতি নিল আমেরিকা।

ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকার স্পষ্টতই জানিয়ে দিল, এ ভাবে অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বদল করতে হবে। সেখানে তাঁদের সশরীরে হাজির হয়ে ক্লাস করতে হবে। নচেৎ তাঁদের ভিসা প্রত্যাহার করা হবে।

আমেরিকার ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এমফোর্সমেন্ট (ICE) গত ৬ জুলাইয়ের বিবৃতিতে জানিয়ে দিয়েছে, “এফ-১ এবং এম-১ ভিসা নিয়ে পড়তে গিয়ে এখন যে সমস্ত পড়ুয়া অনলাইন ক্লাস করছেন, তাঁদের আমেরিকায় থাকার ভিসা প্রত্যাহার করা হবে। এমনকী ওই ভিনদেশি পড়ুয়ারা আমেরিকায় থাকতেও পারবেন না”।

উদ্বেগে বিদেশি পড়ুয়ারা

সরকারের এই ঘোষণার জেরে উদ্বেগ বাড়ছে বিদেশি পড়ুয়াদের মধ্যে। কারণ, এ ধরনের নির্দেশ যে শুধুমাত্র তাৎক্ষণিক উদ্দেশে দেওয়া হয়েছে, তেমনটা নয়। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, আমেরিকার বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনে পড়াশোনা করেন একটা বিশাল অংশের ভিনদেশি পড়ুয়া। সরকারের এই নীতির অন্যতম উদ্দেশ্য এটাও হতে পারে যে, ওই সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভরতি হওয়া ভিনদেশি পড়ুয়ারা হয়তো আর আমেরিকায় ঢুকতে পারবেন না। আশঙ্কা করা হচ্ছে, এ ধরনের ছাত্র-ছাত্রীদের আর এফ-১ ভিসা দেওয়া হবে না।

তবে সরকারের এই নয়া নির্দেশিকা পেয়ে এখনই কোনো স্থায়ী সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। তাঁরা নির্দেশটি খতিয়ে দেখছেন। হার্ভার্ড-সহ বেশ কিছুব বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয় আপাতত অনলাইনে ক্লাস চালু রাখার পক্ষে। আগামী শরতে যদি করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে এসেও যায়, তা হলে মাত্র ৪০ শতাংশ পড়ুয়াকেই তারা ক্যাম্পাসে ঢোকার অনুমতি দেবে। সে ক্ষেত্রেও অনলাইনেই পড়াশোনা চালু রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হার্ভার্ড।

দেশের মধ্যেই বিরোধিতা

প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন সেনেটর এবং আগামী প্রেসিডেন্ট ভোটে ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নিও স্যান্ডার্স। তিনি জানান, ভিনদেশি পড়ুয়াদের উপর মারাত্মক শর্ত আরোপ করা হচ্ছে। তাঁদের বলা হচ্ছে, হয় প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে ক্লাস করো, নইলে দেশ ছাড়ো। সরকারের এই একগুঁয়েমি নীতির বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। দেশি হোক বা বিদেশি, সমস্ত পড়ুয়াদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

এমনিতে এর আগেই এইচ-১বি এবং এল-১ ভিসা সাময়িক ভাবে স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে আমেরিকা। তার পর আইসিই-র এই নতুন নির্দেশিকা আমেরিকার বিদেশিদের মধ্যে ক্রমশ উদ্বেগ বাড়িয়েছে। অন্য দিকে মার্কিন মুলুকে করোনা সংক্রমণ দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পেলেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলি খোলার ব্যাপারে চাপ দিচ্ছে প্রশাসন। পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নেয়, সেটাই দেখার।

এফ-১ ভিসা

বিদেশি পড়ুয়াদের ভিসার মধ্যে সব থেকে সাধারণ হল এফ-১ ভিসা। এগুলি সাধারণত কলেজ ডিগ্রি অর্জনকারীদের জন্য দেওয়া হয়। মার্কিন কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে এফ -১ ভিসায় তালিকাভুক্ত বিদেশি পড়ুয়াদের সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। বিশেষ করে বিশ্বমন্দার পর থেকে এই বৃদ্ধির হার ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী।

ছবি: পাওয়ারসার্চ থেকে

Continue Reading

বিদেশ

ভারতের পর আমেরিকায় চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ হওয়ার পথে

একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তেমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেয়ো।

ওয়েবডেস্ক: ভারতের পর এ বার আমেরিকায় নিষিদ্ধ হতে পারে বেশ কয়েকটি চিনা অ্যাপ (Chinese APP)। একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তেমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেয়ো।

গত সোমবার গভীর রাতে আমেরিকার টেলিভিশন চ্যানেল ফক্স নিউজকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে পম্পেয়ো বলেন, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র টিকটক-সহ চিনা সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ নিষিদ্ধ করার বিষয়টি “অবশ্যই দেখছে”।

তিনি বলেন, “আমি রাষ্ট্রপতির (ডোনাল্ড ট্রাম্প) আগে এ বিষয়ে আগবাড়িয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না। তবে এই ধরনের চিনা অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করার কথা আমরা ভাবছি। এবং কয়েকটি অ্যাপ নিষিদ্ধ হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে”।

মার্কিন সেনেটর ও কংগ্রেস সদস্যরা ইতিমধ্যেই চিনা অ্যাপের কার্যকারিতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তাঁদের ধারণা, “ওই ধরনের অ্যাপগুলিতে চিনের কমিউনিস্ট পার্টির কার্যকলাপকে সমর্থন এবং সাহায্য করার কথা বলা হচ্ছে”।

এমনটাও অভিযোগ উঠছে, যে অ্যাপগুলি চিনে পাওয়া যায় না, সেই অ্যাপগুলি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিয়ে ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টাও চলতে পারে।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব নিয়ে আমেরিকা-চিন তর্কযুদ্ধ এবং প্রায় বছর দেড়েক ধরে চলা দুই দেশের বাণিজ্যযুদ্ধের আবহে পম্পেয়োর এই মন্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই ধারণা করছে কূটনৈতিক মহল।

ভারত নিষিদ্ধ করা পর আমেরিকার প্রতিক্রিয়া

গত বুধবার মাইক পম্পেয়ো (Mike Pompeo) একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, “চিনা কমিউনিস্ট পার্টির নজরদারি রুখতে এটি সংযোজন হিসাবে কাজ করতে পারে”।

তিনি বলেন, “অ্যাপগুলিকে মুছে ফেলার এই সিদ্ধান্ত ভারতের সার্বভৌমত্বকে শক্তিশালী করে তুলবে এবং অখণ্ডতা এবং জাতীয় সুরক্ষাকে নিশ্চিত করবে”।

গত সপ্তাহেই আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও’ব্রায়েন (Robert O’Brien) অভিযোগ করেছিলেন, চিনা সরকার নিজের উদ্দেশ‌্য চরিতার্থ করতে টিকটক-কে ব্যবহার করছে।

তিনি বলেন, “একটি চিন-ভিত্তিক অনলাইন প্ল্য়াটফর্ম টিকটক-এ চার কোটি মার্কিন ব্যবহারকারী রয়েছেন। যেখানে সব থেকে মাত্রায় শিশু এবং তরুণরা রয়েছে। সেখানে চিনের কমিউনিস্ট পার্টি (CCP) এবং বেজিংয়ের নীতির সমালোচনা করা অ্যাকাউন্টগুলি নিয়মিত সরিয়ে দেওয়া হয় বা মুছে ফেলা হয়”।

চিনা নিয়ম

এমনিতে বিশ্বের মধ্যে চিনের অনলাইন সেন্সরশিপ বেশ কঠোর। ঘরোয়া ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের উপর নজরদারি এবং নিয়ন্ত্রণ প্রক্রিয়া সবসময়ই দৃঢ়তার সঙ্গে পরিচালনা করা হয়। এমনটাও জানা যায়, চিনের কমিউনিস্ট পার্টির বিরোধী কোনো ওয়েবসাইট অথবা লিঙ্ক সক্রিয় ভাবে ব্লক করে দেওয়া হয়।

গত ১৫ জুন লাদাখের গলওয়ান উপত্যকার সীমান্ত সংঘর্ষের মধ্যেই ভারতীয় সংবাদপত্র এবং ওয়েবসাইটগুলির প্রবেশ নিষেধ করেছে চিন। চিন প্রযুক্তিগত ভাবে উন্নত এমন একটি ফায়ারওয়াল (firewall) তৈরি করেছে, যা ভিপিএনগুলিকেও ব্লক করে।

Continue Reading
Advertisement
provident fund
শিল্প-বাণিজ্য34 mins ago

কেন্দ্রীয় সরকার আগস্ট মাস পর্যন্ত কর্মীদের ইপিএফ বকেয়া জমা করবে, অনুমোদন মন্ত্রিসভায়

CBSE
দেশ1 hour ago

সিবিএসইর সিলেবাস থেকে বাদ ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’, ‘গণতান্ত্রিক অধিকার’, তীব্র বিতর্ক

রাজ্য1 hour ago

আগামী পাঁচ দিন উত্তরবঙ্গে মাত্রাতিরিক্ত বৃষ্টির আশঙ্কা

BMS
দেশ2 hours ago

বেসরকারিকরণের বিরুদ্ধে সপ্তাহব্যাপী প্রতিবাদে নামছে আরএসএসের শ্রমিক সংগঠন

Currency
রাজ্য2 hours ago

ডিএ মামলায় রাজ্য সরকারের আর্জি খারিজ স্যাটে

Hemant Soren
দেশ3 hours ago

মন্ত্রী করোনা আক্রান্ত! কোয়রান্টিনে গেলেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন

দেশ4 hours ago

‘গান্ধী’ পরিবারের তিনটি ট্রাস্টের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে উচ্চস্তরের কমিটি গড়ল কেন্দ্র

রাজ্য6 hours ago

বিকল্প শিক্ষাপদ্ধতি: তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে লকডাউন পাঠশালা

কেনাকাটা

কেনাকাটা24 hours ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা2 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা3 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা1 week ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

নজরে