চিনের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াতে শেষমেশ সদর দফতর সরাচ্ছে টিকটক!

0

ওয়েবডেস্ক: বেশ কয়েক মাস ধরেই নিজের সদর দফতর স্থানান্তরের ব্যাপারে যুক্তরাজ্যের সরকারের (UK government) সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ার বৃহত্তম প্ল্যাটফর্ম টিকটক (TikTok)। সূত্রের খবর, সব কিছু ঠিকঠাক চললে চিনা মালিকাধানী সংস্থাটির সদর দফতর উড়িয়ে নেওয়া যেতে পারে লন্ডনে (London)।

সূত্রটি জানিয়েছে, সংস্থার সদর দফতর স্থানান্তরের জন্য বিশ্বের যে সমস্ত জায়গাগুলি নজরে রয়েছে, সেগুলির মধ্যে অন্য়তম লন্ডন। তবে এ ব্যাপারে এখনও কোনো স্থায়ী সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি বলেও সূত্রটি দাবি করেছে।

অন্যান্য বিবেচনাধীন জায়গাগুলি নিয়েও তেমন কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি। তবে সংস্থা এ বছর ক্যালিফোর্নিয়ায় (California) আগ্রাসী ভাবে মাথা গলিয়েছে। প্রাক্তন ওয়াল্ট ডিজনি (Walt Disney) এগজিকিউটিভ কেভিন মায়ারকে (Kevin Mayer) টিকটকের প্রধান কার্যনির্বাহী পদে নিযুক্ত করা হয়েছে। তিনি বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকেই দায়িত্ব পালন করছেন।

আমেরিকা বেশ কয়েক দিন ধরেই চিনা সংস্থার বিরুদ্ধে তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে সরব হয়েছে। ফলে আমেরিকায় সদর দফতর সরাতে গেলে কড়া নজরদারির মুৰোমুখি হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে বলে ওয়াকিবহাল মহলের ধারণা। টিকটক চিনা সংস্থা সংস্থা বাইটডান্সের (ByteDance) মালিকানাধীন একটি প্ল্যাটফর্ম।

সূত্রটি জোরের সঙ্গে দাবি করেছে, গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই যুক্তরাজ্যের সঙ্গে আলোচনা চলছে টিকটকের। তবে সরকারের সঙ্গে আলোচনার গতিপ্রকৃতি নিয়ে কোনো স্পষ্ট মন্তব্য কোনো তরফেই করা হয়নি। কিন্তু টিকটক যে সদর দফতরটিকে চিনের বাইরে নিয়ে যেতে চায়, তা প্রায় নিশ্চিত।

দ্য সানডে টাইমস-এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক সদর দফতরটিকে ব্রিটেনে স্থানান্তরের জন্য সমস্ত রকমের চেষ্টা চালাচ্ছে সংস্থাটি। (সূত্র: https://bit.ly/2ZHlI1Z)

তবে টিকটকের তরফে এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো সদুত্তর পাওয়া যায়নি।

কেন সদর দফতর স্থানান্তর?

সোশ্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয় অ্যাপ টিকটিক ভারতে নিষিদ্ধ হয়েছে আরও ৫৮টি অ্যাপের সঙ্গেই। রয়টার্সের খবর অনুযায়ী, ভারত সরকারের সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর থেকেই বেজিংয়ের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াচ্ছে টিকটক।

টিকটক চিনে পাওয়া যায় না। কিন্তু চিনা সংস্থার এই সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ ভারত, আমেরিকা-সহ বিশ্বের অন্যান্য দেশে যথেষ্ট জনপ্রিয়। শুধু ভারতেই এই অ্য়াপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০ কোটি। স্বাভাবিক ভাবে ভারতে এই অ্যাপ নিষিদ্ধ হওয়ার ফলে বড়োসড়ো আর্থিক লোকসানের মুখোমুখি সংস্থা। সূত্রের খবর, সেই বিষয়টিকে মাথায় রেখেই মূল (চিন) থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে টিকটক।

টিকটকের মূল সংস্থা বাইটডান্স কর্তৃপক্ষ নিজেরাই জানিয়েছেন, ভারতে এই অ্যাপ নিষিদ্ধ হওয়ার ফলে তাঁরা প্রায় ৪৫,০০০ কোটি টাকা লোকসানের মুখোমুখি হতে চলেছেন। এই সংস্থার সব মিলিয়ে তিনটি অ্যাপ চলত ভারতে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন