২০০৮-এ সরকার গড়ে একজোট হয়েছিল পিএমএলএন ও পিপিপি। ফের কি সেই ছবি দেখা যাবে? ছবি ট্রিবিউন.কম.পিকে।

ইসলামাবাদ: শেষ বেলায় ইমরানের খানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্নে জল ঢেলে দেওয়ার জন্য পাকিস্তানে ঐক্যবদ্ধ হল দুই প্রধান বিরোধী দল। এর ফলে শপথ নেওয়ার দিন ঘোষণা করে দিয়েও সরকার গঠন না হওয়া পর্যন্ত স্বস্তিতে থাকতে পারছে পাকিস্তান তেহরিক-এ-ইনসাফ।

ইমরানকে আটকানোর জন্য এক কালের যুযুধান দুই দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ (নওয়াজ) এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি জোটবদ্ধ হয়েছে। আরও অনেক ছোটো দলের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে নতুন জোট তৈরির কথা ইতিমধ্যেই ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। এমনকি কিছু দিনের মধ্যেই নিজেদের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থীও ঘোষণা করে দিতে পারে এই নতুন জোট।

আরও পড়ুন ইমরান খান প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন, পাকিস্তানকে বিপুল অঙ্কের ঋণছাড় চিনের!

২৭২টা আসনের মধ্যে ১১৬টা আসন জিতে একক বৃহত্তম দল হলেও প্রয়োজনীয় সংখ্যা ইমরানের দলের কাছে এখনও নেই। আরও ২২ জনের সমর্থন পাওয়ার জন্য খোঁজাখুঁজি শুরু করে দিয়েছে তারা। অন্য দিকে পিএমএলএন এবং পিপিপি জোটবদ্ধ হলেও সংখ্যাগরিষ্ঠতার সংখ্যা তাদের নেই। সে ক্ষেত্রে তাদেরও ছোটো দলের সমর্থন দরকার।

কিন্তু ইমরানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া আটকানোর জন্য শেষ পর্যন্ত তাঁরা লড়ে যাবেন বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন পিএমএলএনের মুখপাত্র মারিয়াম ঔরঙ্গজেব। তিনি বলেন, “কোনো রাজনৈতিক দলকেই সুস্থ পরিবেশ দেওয়া হয়নি। এ বারের নির্বাচন ছিল রিগিং, ছাপ্পা ভোটে ভরা। তার বিরুদ্ধেই আমরা জোটবদ্ধ হয়েছি।” তবে এখনও পর্যন্ত যা খবর, বিরোধী জোট হয়তো ইমরানের শাসক জোটের কাছে বাধা সৃষ্টি করতে পারবে না। অল্পের জন্য রক্ষা পেয়ে প্রধানমন্ত্রী হয়ে যাবেন ইমরান

আরও পড়ুন পাকিস্তানে এই প্রথম অসংরক্ষিত আসন থেকে জিতে ইতিহাস গড়লেন তিন হিন্দু প্রার্থী

কিন্তু সেটা হয়ে গেলেও, তাঁর ওপরে চাপ থাকবেই। বিশেষ করে জোটসঙ্গীদের সঙ্গে নিয়ে চলার চাপ। কারণ সঙ্গীরা ইমরানের ওপরে ক্ষুব্ধ হয়ে শাসক জোটে ছেড়ে দিলেই পাকিস্তানের আবার নাটকীয় কোনো পালাবদল হয়ে যেতে পারে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন