Connect with us

বিদেশ

গোল্ডেন গ্লোবের মঞ্চে নাম না করে ট্রাম্পকে বিঁধলেন মেরিল স্ট্রিপ

নিউ ইয়র্ক:  “একজন ক্ষমতাবান মানুষ যখন তাঁর পদমর্যাদা ব্যবহার করে অন্যকে বোকা বানান, খোলাখুলি তাঁকে নিয়ে হাসাহাসি করেন, সেটা মানবিকতার হার। আর এই রকম এক ঘটনা আমায় খুব অবাক করেছে। সাধারণ মানুষও ভুলতে বসেছে, কোনটা তার অধিকার, কোনটা নয়। অসম্মান ডেকে আনে অসম্মান, হিংসেই জন্ম দেয় হিংসের” — গোল্ডেন গ্লোবের মঞ্চে ঝাঁ চকচকে সেট, উপচে পড়া গ্ল্যামারকে ছাপিয়ে বারবার অনুরণিত হল এই কথাগুলোই। ভাবী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম না করেও তাঁর সমালোচনায় মুখর হলেন অভিনেত্রী মেরিল স্ট্রিপ।

সেসিলবি ডেমিলি সম্মান গ্রহণ করতে মঞ্চে উঠে মেরিল বুঝিয়ে দিলেন, শুধু রুপোলি পর্দার  মধ্যেই আটকে নেই তাঁর জীবনবোধ। দর্শকদের মনে করিয়ে দিলেন, হলিউডের নিজস্ব কিছু নেই। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ এসে গড়ে তুলেছে এই হলিউড। এখানেও আঘাত হানলেন ট্রাম্পের উগ্র জাতীয়তাবাদের ভাবনার ওপর, যা সম্বল করেই ক্ষমতায় বসবেন রিপাবলিকান প্রার্থী। এক সাংবাদিককে ভেঙিয়ে গত বছরে তিনি আলোচনায় ছিলেন বেশ কিছু দিন। গোল্ডেন গ্লোবের মঞ্চে মেরিল সেই প্রসঙ্গ এনে প্রশ্ন তোলেন ভাবী প্রেসিডেন্টের রুচিবোধের।

ডোনাল্ড ট্রাম্প অবশ্য বলেছেন, মেরিলের মন্তব্যে তিনি বিস্মিত নন। তাঁকে ‘হিলারি-প্রেমিক’ বলে বর্ণনা করে তাঁর মন্তব্য, এর আগেও ‘চলচ্চিত্রের উদারপন্থী মানুষজন তাঁকে আক্রমণ করেছেন।  

রেকর্ড গড়ল ‘লা লা ল্যান্ড’

একটা-দুটো নয়, সাত সাতটা বিভাগে পুরস্কার পেয়ে রেকর্ড করল লা লা ল্যান্ড। শ্রেষ্ঠ অভিনেতা,  শ্রেষ্ঠ পরিচালকের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিভাগের তালিকায় পুরস্কার জিতল চলচ্চিত্রটি। বছরের শ্রেষ্ঠ ড্রামার তকমা পেল মুনলাইট।

priyanka

 

বিদেশেও তাক লাগালেন ‘দেশি গার্ল’

প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার জন্য এটাই ছিল প্রথমবার। গোল্ডেন গ্লোবের পুরস্কার বিতরণীতে আমন্ত্রিত ছিলেন প্রিয়াঙ্কা। তাঁকে দিয়ে টেলিভিশন বিভাগের একটি পুরস্কার দেওয়ানো হয়। আন্তর্জাতিক মঞ্চে এর আগে পুরস্কার দিলেও গোল্ডেন গ্লোবের মঞ্চে এই প্রথম দেখা গেল প্রিয়াঙ্কাকে। সোনালি গাউনে স্বচ্ছন্দ আর আত্মবিশ্বাসী প্রিয়াঙ্কা নজর কাড়লেন সবার। 

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

বিদেশ

মার্কিন পথে কুয়েতও, কর্মহীন হয়ে দেশছাড়া হতে পারেন ৮ লক্ষ ভারতীয়

বর্তমানে কুয়েতে যত বিদেশি রয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ভারতীয়দের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দেখানো পথে এ বার হাঁটতে চলেছে কুয়েতও (Kuwait)। সে দেশে কর্মহীন হয়ে দেশ ছাড়ার আশঙ্কায় ৮ লক্ষ ভারতীয়।

প্রবাসী কোটা বিলের খসড়া তৈরি করেছে কুয়েত সরকার। দেশের ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে ইতিমধ্যে তা মঞ্জুরও হয়ে গিয়েছে। ওই বিলটি আইনে পরিণত হলে, প্রায়  ৮ লক্ষ ভারতীয়কে কুয়েত ছেডে় বেরিয়ে যেতে হবে।

ভারতীয়রা যাতে কোনো ভাবেই সে দেশের মোট জনসংখ্যার ১৫ শতাংশ অতিক্রম করতে না পারে, সেই কথাই বলা হয়েছে ওই কুয়েতে। বিলটিকে খুব শীঘ্র সংসদে প্রবাসী জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কমিটির কাছে পাঠানো হবে। সেখানে যে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে, সেই মতোই এগোবে কুয়েত সরকার।

কুয়েতে কত ভারতীয় রয়েছেন

এই মুহূর্তে কুয়েতের মোট জনসংখ্যা প্রায় ৪৩ লক্ষ। এর মধ্যে মাত্র ১৩ লক্ষ কুয়েতি নাগরিক। বাকি ৩০ লক্ষই বিভিন্ন দেশ থেকে সেখানে গিয়েছেন। এর প্রবাসী জনসংখ্যার ১৪ লক্ষ ৫০ হাজার আবার ভারতীয়।

অর্থাৎ বর্তমানে কুয়েতে যত বিদেশি রয়েছেন, তাঁদের মধ্যে ভারতীয়দের সংখ্যাই সব চেয়ে বেশি। তাই বিলটি আইনে পরিণত হলে সবার আগে সেখানে বসবাসকারী ভারতীয়দের উপরই বিপদ নেমে আসবে।

এই মুহূর্তে কুয়েতে নার্স, ইঞ্জিনিয়ার এবং বিজ্ঞানী মিলিয়ে প্রায় ২৮ হাজার ভারতীয় সরকারি চাকরিতে নিযুক্ত রয়েছেন। বেসরকারি সংস্থায় নিযুক্ত প্রায় ৫ লক্ষ ২৩ হাজার মানুষ।

তাঁদের পরিবার-পরিজন মিলিয়ে আরও ১ লক্ষ ১৬ হাজার ভারতীয় রয়েছেন সেখানে। কুয়েতের ২৩টি ভারতীয় স্কুলে প্রায়  ৬০ হাজার ভারতীয় পড়ুয়া পাঠরত। এ ছাড়াও ব্যবসা-বাণিজ্যে যুক্ত রয়েছেন বহু মানুষ।

বিদেশি হঠানোর দাবি উঠছে

তেলের দামে ক্রমশ পতন আর করোনার কারণে প্রবল অর্থসঙ্কট। এই দুই পরিস্থিতি সামাল দিতে বেশ কিছু দিন ধরেই বিদেশি হটানোর দাবি উঠছে কুয়েতে। মন্ত্রী আমলারা তো বটেই, গত মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ সাবাহ্ আল খালিদও এমনই দাবি তোলেন। দেশে প্রবাসী জনসংখ্যা ৭০ শতাংশ থেকে ৩০ শতাশে নামিয়ে আনার প্রস্তাব দেন তিনি।

Continue Reading

বিদেশ

‘ভারতকে ভালোবাসে আমেরিকা’, স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা বিনিময়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প

গত ৪ জুলাই উদ্‌যাপিত হয় আমেরিকার ২৪৪তম স্বাধীনতা দিবস।

modi and trump

ওয়েবডেস্ক: আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন আমেরিকাবাসীকে। তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump) বলেন, “ভারতকে ভালোবাসে আমেরিকা”। গত ৪ জুলাই উদ্‌যাপিত হয় আমেরিকার ২৪৪তম স্বাধীনতা দিবস (Independence Day)।

গত শনিবার মোদী টুইটারে লিখেছিলেন, “আমেরিকার ২৪৪তম স্বাধীনতা দিবসে আমেরিকাবাসী এবং প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিনন্দন। বিশ্বের বৃহত্তম দুই গণতন্ত্র হিসাবে আমরা স্বাধীনতা এবং মানবতা উদ্‌যাপন করি”।

মোদীর সেই টুইট ট্যাগ করেই ধন্যবাদ জানান ট্রাম্প। তিনি মাইক্রো-ব্লগিং সাইটে লিখেছেন, “ধন্যবাদ বন্ধু। ভারতকে ভালোবাসে আমেরিকা”।

বিশ্বের দুই প্রাচীন এবং বৃহত্তম গণতন্ত্রের দুই রাষ্ট্রনেতার এই শুভেচ্ছা বিনিময়কে স্বাগত জানিয়েছেন দুই দেশের মানুষই। দুই রাষ্ট্রনেতার টুইট-বিনিময় যে কারণে নিমেষেই ভাইরাল হয়ে যায়।

নেটিজেনদের প্রতিক্রিয়া

দুই রাষ্ট্রনেতার এই শুভেচ্ছা বিনিময়ে যথেষ্ট উৎসাহিত নেটিজেনরা। গুরদীপ সিং নামে এক ভারতীয় ট্রাম্পের টুইট-বার্তার সূত্র ধরেই লিখেছেন, ‘‘ভারতও আমেরিকাকে ভালবাসে।’’

ইন্ডিয়ান-আমেরিকান ফিনান্স কমিটির সহ-সভাপতি আল ম্যাসন বলেন, “প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে একটি অবিশ্বাস্য বন্ধন দেখতে পাচ্ছে গোটা বিশ্ব”।

আফ্রিকান-আমেরিকান সঙ্গীতশিল্পী মেরি মিলিবেন নরেন্দ্র মোদীর উদ্দেশে লিখেছেন, ‘‘আমেরিকা আপনাকে পেয়ে ধন্য। ভারত আমাদের মূল্যবান বন্ধু। ভারত ও আমেরিকা— বিশ্বের দুই বৃহত্তম গণতন্ত্র! আপনি ভারতকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন, ঈশ্বর আপনাকে কৃপা করছেন।”

আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস

১৭৭৬ সালের জানুয়ারি মাসে গ্রেট ব্রিটেন আমেরিকার ‘স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র’ প্রকাশ করে। মাঝে নানান রাজনৈতিক চড়াই-উৎরাই অতিক্রম করে জুলাইয়ের ৪ তারিখ স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি অনুমোদিত হয়। তার পর থেকেই এই দিনটি আমেরিকার স্বাধীনতা দিবস হিসাবে উদ্‌যাপিত হয়ে আসছে।

Continue Reading

বিদেশ

আমেরিকার টাইমস স্কোয়ারে “ভারত মাতা কি জয়”, চিনা পণ্য বর্জনের দাবিতে হুঙ্কার

সেখানে “চিনা পণ্য বর্জন করুন”, “চিনা আগ্রাসন বন্ধ হোক” জাতীয় স্লোগানের পাশাপাশি “ভারত মাতা কি জয়” স্লোগানও উঠতে শোনা যায়।

ওয়েবডেস্ক: চিনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আমেরিকার টাইমস স্কোয়ারে (Times Square) বিক্ষোভে শামিল হলেন একটা বড়ো অংশের ভারতীয়-আমেরিকানরা (Indian-American)।

ভারতের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক চিনা পদক্ষেপের প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভকারীরা দাবি করেন, চিনা পণ্য বর্জন করে অর্থনৈতিক ভাবে বেজিংকে ‘শিক্ষা’ দিতে হবে। একই সঙ্গে কূটনৈতিক ভাবেও চিনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে।

নিউ ইয়র্ক (New York) এবং নিউ জার্সিতে (New Jersey) বসবাসকারী ভারতীয় ও অভিবাসীদের সংগঠন ফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান অ্য়াসোসিয়েশন (FIA) এই বিক্ষোভের দেখায়। সেখানে “চিনা পণ্য বর্জন করুন”, “চিনা আগ্রাসন বন্ধ হোক” জাতীয় স্লোগানের পাশাপাশি “ভারত মাতা কি জয়” স্লোগানও উঠতে শোনা যায়।

করোনাভাইরাস মহামারির (Coronavirus pandemic) কারণে প্রতিবাদীরা মাস্ক পরেই বিক্ষোভ দেখান। তাঁদের হাতে ধরা পোস্টারে নিহত ভারতীয় জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধাও জানানো হয়।

চিনের বিরুদ্ধে অন্যান্যরাও!

ওই ভারতীয়-আমেরিকানদের ওই বিক্ষোভে শামিল হন তিব্বতি এবং তাইওয়ানিজরাও। তাঁরাও চিনা পণ্যে বর্জনের আওয়াজ তোলার পাশাপাশি “মানবতার বিরুদ্ধে চিনা পদক্ষেপে”র বিরুদ্ধে সরব হন। কার‌ও কারও হাতে “ভারতের পাশে তিব্বত” জাতীয় পোস্টারও দেখা যায়।

“বয়কট চায়না” শীর্ষক এই প্রতিবাদসভা আয়োজক হিসাবে ছিলেন সংগঠনের নেতা প্রেম ভাণ্ডারি এবং জগদীশ সেহওয়ানি।

কেন বিক্ষোভ?

সংবাদ মাধ্যমের কাছে ভাণ্ডারি বলেন, “আজকের ভারত ১৯৬২ সালের ভারত থেকে আলাদা। আমরা চিনা আগ্রাসন এবং এর আন্তর্জাতিক বর্বরতা সহ্য করব না। আমরা চিনের অহঙ্কারকে যথাযথ জবাব দেব”।

তিনি বলেন, “গত ১৫ জুন ভারতের গলওয়ান উপত্যকায় চিনা সেনার আক্রমণে ২০ জন ভারতীয় জওয়ানের শহিদ হওয়ার ঘটনার পর থেকে আমরা চরম অস্বস্তির মধ্যে রয়েছি। যে কারণে আমরা চিনকে কঠোর বার্তা দিতে চাইছি। সারা বিশ্বের কোনায় কোনায় ছড়িয়ে থাকা ভারতীয়রা নিজের মাতৃভূমির পাশেই রয়েছেন”।

“চিন ১৪ দেশের সঙ্গে সীমানা ভাগ করেছে। আর ১৮টা দেশের সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। এটাই তাদের মুর্খামিকে প্রকাশ্যে নিয়ে আসছে। কিন্তু এটা বন্ধ করার সময় এসেছে। ভারতই তা করে দেখাবে”।

ভারতের অবস্থান

ভারত-চিন সীমান্ত উত্তেজনার রেশ ধরে একাধিক পদক্ষেপ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার। বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা এবং উদ্যোগ থেকে চিনা বিনিয়োগ ও পণ্য বর্জনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়েছে।

চলতি সপ্তাহের শুরুতেই ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করে জোরালো বার্তা দিয়েছে সরকার। একই সঙ্গে বিএসএনএল, রেল, জাতীয় সড়ক-সহ একাধিক সংস্থা এবং উদ্যোগ থেকে চিনা বিনিয়োগেও রাশ টানা হয়েছে।

Continue Reading
Advertisement
রাজ্য3 hours ago

নতুন সংক্রমণ কিছুটা কম, রাজ্যে করোনামুক্ত হলেন ১৫ হাজার

প্রযুক্তি3 hours ago

নতুন অ্যাপ ‘সেল্‌ফ স্ক্যান’ নিয়ে এল রাজ্য সরকার! এর কাজ কী?

বিনোদন5 hours ago

সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু-রহস্যে থানায় বয়ান রেকর্ডের পর নি‌ঃশব্দেই বেরিয়ে এলেন সঞ্জয়লীলা বনশালী

ক্রিকেট5 hours ago

ওপেনার সচিন তেন্ডুলকরের গোপন রহস্য ফাঁস করলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

কেনাকাটা5 hours ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

দার্জিলিং6 hours ago

‘বিশ্বাস ছিল এই লড়াই জিতব’, করোনাকে জয় করে বাড়ি ফিরলেন অশোক ভট্টাচার্য

বিদেশ6 hours ago

মার্কিন পথে কুয়েতও, কর্মহীন হয়ে দেশছাড়া হতে পারেন ৮ লক্ষ ভারতীয়

currency
শিল্প-বাণিজ্য6 hours ago

পিপিএফের ৯টি নিয়ম, যা জেনে রাখা ভালো

কেনাকাটা

কেনাকাটা5 hours ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা1 day ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা6 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

smartphone smartphone
কেনাকাটা1 week ago

লকডাউনের মধ্যে ফোন খারাপ? রইল ৫ হাজারের মধ্যে স্মার্টফোনের হদিশ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ঘরে বসে যতটা কাজ সারা যায় ততটাই ভালো। তাই মোবাইল ফোন খারাপ...

নজরে