কলম্বো: ফের আতঙ্ক শ্রীলঙ্কায়। ভোটারদের বাস লক্ষ্য করে নির্বিচারে গুলি চালাল আততায়ীরা। ঘটনায় কোনো হতাহতের খবর না পাওয়া গেলেও মানুষের মধ্যে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

শনিবার শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন। ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার আগেই এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপশ্চিম শ্রীলঙ্কার সমুদ্র শহর পুট্টালামে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রায় ১০০টা বাসের একটি কনভয়ে পুট্টালাম থেকে পার্শ্ববর্তী মানার জেলায় যাচ্ছিলেন ওই ভোটাররা।

ভোটারদের অধিকাংশই মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত। পুলিশ জানিয়েছে, বাস লক্ষ্য করে গুলি চালানোর আগে রাস্তায় গাড়ির চাকা ফেলে তাতে আগুন লাগিয়ে রাস্তায় অবরোধ করে। বাসগুলো সেখানে এসে দাঁড়িয়ে গেলে সেগুলিকে লক্ষ করে গুলি চালানো হয়।

এক পুলিশ আধিকারিকের কথায়, “বাসে গুলি চালানোর পাশাপাশি পাথর ছোড়া হয়েছে। দুটো বাস ক্ষতিগ্রস্ত। কিন্তু হতাহতের কোনো খবর নেই।”

আরও পড়ুন ভাড়া বাড়ছে রাজধানী, শতাব্দী, দুরন্ত এক্সপ্রেসের

তবে পুলিশের দ্রুত ব্যবস্থার ফলে ভোটকেন্দ্রের দিকে যাত্রা করে ভোটারভরতি ওই বাসগুলি।

সূত্রের খবর, শ্রীলঙ্কার এই অঞ্চলে পুলিশ এবং শ্রীলঙ্কা সেনার মধ্যে অচলাবস্থা জটিল আকার ধারণ করেছে। এমনকি দেশের নির্বাচন কমিশনের কাছে কিছু দিন আগেই সেনার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে পুলিশ।

পুলিশের অভিযোগ, সেনা ইচ্ছাকৃত ভাবে রাস্তা অবরোধ করছে যাতে ভোটগ্রহণের দিন বাসিন্দারা কেউ ভোটকেন্দ্রের দিকে না যেতে পারেন।

পুলিশ সূত্রে খবর, স্থানীয় সেনা আধিকারিকদের তারা সতর্কও করেছে যে যদি কোনো ভাবে ভোটারদের আটকানো হয়, তা হলে সেনার বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হতে পারে তারা।

শনিবার শ্রীলঙ্কার ভোটগ্রহণের প্রধান প্রতিপক্ষ প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মহিন্দ রাজাপক্ষে এবং সজিত প্রেমদাসা।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, জাফনা-সহ শ্রীলঙ্কার উত্তরাংশে ব্যাপক সেনা মোতায়েন করে তামিল এবং মুসলিম ভোটারদের ভোটকেন্দ্র থেকে দূরে রাখতে চাইছে সেনা, যাতে ফলাফল রাজাপক্ষের অনুকূল হয়।

প্রেসিডেন্ট পদে রাজাপক্ষে জিতে গেলে শ্রীলঙ্কায় বসবাসকারী তামিলরা আবার অন্ধকার ভবিষ্যতের দিকে চলে যাবেন বলেও আশঙ্কা করছেন অনেকে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন