সংঘর্ষ শুরুর প্রায় দু’সপ্তাহ পরে উচ্চ-পর্যায়ের বৈঠকে মুখোমুখি আর্মেনিয়া-আজারবাইজান

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: বিতর্কিত নাগার্নো-কারাবাখ (Nagorno-Karabakh) অঞ্চল নিয়ে প্রায় দুই সপ্তাহের সংঘর্ষের পরে শুক্রবার আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান তাদের প্রথম উচ্চ-পর্যায়ের কূটনৈতিক আলোচনায় মুখোমুখি হচ্ছে মস্কোয়। আশা করা হচ্ছে, এই বৈঠকে আলোচনার মাধ্যমে সংঘর্ষে বিরতি টানা যেতে পারে।

দুই দেশের আলোচনায় মধ্যস্থতাকারী হিসেবে রয়েছে রাশিয়া, ফ্রান্স এবং আমেরিকার সম্মিলিত একটি গোষ্ঠী। যদিও বৈঠকের আগেই ফ্রান্স বলেছে, সেখানে যুদ্ধবিরতির সম্ভাবনা রয়েছে, তবে তা এখনই সম্ভব কি না, তার নিশ্চয়তা নেই।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাকরঁ’র (Emmanuel Macron) কার্যালয় এএফপিকে একটি বিবৃতিতে বলেছে, “আমরা আজ বা কাল যুদ্ধবিরতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছি ঠিকই, তবে এই ধারণাটা এখনও শক্তপোক্ত নয়”।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন কূটনৈতিক স্তরের আলোচনার কথা ঘোষণা করার পরেও গতরাতে উভয়পক্ষের (আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান) মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সাধারণ নাগরিকের মৃত্যুও হয় গতরাতে। ওই দিনই মানবিক দিক থেকে যুদ্ধবিরতির আবেদন করেছিলেন পুতিন।

আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের (Armenia-Azerbaijan) মধ্যে প্রায় ১২ দিন ধরে সংঘর্ষ চলছে। যা শুরু হয় গত ২৭ সেপ্টেম্বর সকাল থেকে। আজারবাইজানের রাষ্ট্রপতি ইলহাম আলিয়েভ বারবার বলেছেন, আর্মেনিয়া যদি সেনা প্রত্যাহার না করে তা হলে তাঁর সেনাবাহিনী কারাবাখের সমস্ত অঞ্চল দখল না হওয়া পর্যন্ত এই পদক্ষেপ চালিয়ে যাবে। ফলে আর্মেনিয়ার দিক থেকে প্রতিশ্রুতি না আসা পর্যন্ত লড়াইয়ে কোনো বাধা দেওয়া হবে না।

এমন পরিস্থিতিতে রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে, উচ্চ-পর্যায়ের কূটনৈতিক আলোচনাটি ১২ টার (জিএমটি) সময় মস্কোয় শুরু হবে।

আরও পড়তে পারেন: আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের লড়াইয়ে কেন উদ্বেগ বাড়ছে ইরানের?

প্রসঙ্গত, চলতি সপ্তাহে সিরিয়া ও লিবিয়া থেকে কারাবাখ ও ইরানে তুর্কিপন্থী যোদ্ধাদের মোতায়েনের তীব্র নিন্দা করেছেন একাধিক বিশ্ব নেতৃত্ব। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন পুতিন এবং মাকরঁ। তাঁরা বিরোধে যোগ দেওয়া ‘সন্ত্রাসবাদী’দের সম্পর্কে সতর্কতাবাণী শুনিয়েছেন।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন