চিনা চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বাড়তি সেনা পাঠাচ্ছে আমেরিকা

0
মাইক পম্পেয়ো। ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: বৃহস্পতিবার মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পেয়ো (Mike Pompeo) একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ভারত-চিন সীমান্ত সংঘর্ষ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার জন্য চিনের ক্রমশ বিপজ্জনক হয়ে ওঠার পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত সেনা পাঠাচ্ছে আমেরিকা। এই পদক্ষেপের জন্য ইউরোপে মোতায়েন মার্কিন সেনা হ্রাস করা হচ্ছে।

প্রতিবেশীদের প্রতি চিনের ‘হুমকি’র বিষয়টিকে অগ্রাধিকার হিসাবে চিহ্নিত করে একটি গুরুত্বপূর্ণ সুরক্ষা নীতি উপস্থাপন করেন পম্পেয়ো।

তিনি বলেন, ভারত, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপিন্সের নিরাপত্তার সামনে চিন যে ভাবে বিপজ্জনক হয়ে উঠছে, তার যথাযথ মোকাবিলার জন্যই এই পদক্ষেপ নিচ্ছে আমেরিকা। আমরা মনে করি এটি আমাদের সময়ের চ্যালেঞ্জ। চিনা সেনার (PLA) এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমরা সমস্ত রকম দিক থেকে যথাযথ ভাবে প্রস্তুত রয়েছি কিনা, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়াটাই এখন মূল উদ্দেশ্য।

ব্রাসেলসে এক ভিডিয়ো বৈঠকে পম্পেয়ো ইঙ্গিত দেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশেই চিনের আগ্রাসী মনোভাব দমনে বিশেষ এই পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। প্রথম পদক্ষেপ হিসাবে জার্মানি থেকে মার্কিন সেনার সংখ্যা ৫২ হাজার থেকে কমিয়ে ২৫ হাজার করা হচ্ছে। এ ভাবেই ধীরে ধীরে ইউরোপের অন্যত্র মোতায়েন মার্কিন সেনার সংখ্যা কমিয়ে তাদের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় স্থানান্তরিত করা হবে।

এই পদক্ষেপের কারণ হিসাবে পম্পেয়ো তুলে ধরেন ভারত-চিন রক্তক্ষয়ী সীমান্ত সংঘর্ষ, দক্ষিণ চিন সাগরে চিনের সামরিক কার্যকলাপ এবং চিনের লুণ্ঠনমূলক বাণিজ্যিক নীতিকে। একই সঙ্গে তিনি জানান, চিনের কার্যকলাপ নিয়ে আমেরিকা ইউরোপীয়ান ইউনিয়নের সঙ্গেও কথোপকথন শুরু করতে চলেছে।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, “নিজেদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে অন্যান্য দেশকেও এগিয়ে আসতে হবে। তবে আমরা যা করব, তা সংশ্লিষ্ট দেশগুলির সঙ্গে আলোচনা করেই করব”।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন