ফের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা উত্তর কোরিয়ার, পড়ল জাপানের অর্থনৈতিক অঞ্চলে

0
353

পিয়ংইয়ং: শত সতর্কবার্তা সত্ত্বেও রোখা যাচ্ছে না উত্তর কোরিয়াকে। মঙ্গলবার আরও একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করল তারা। নতুন এই ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের নিজস্ব অর্থনৈতিক অঞ্চলে (ইইসি) পড়েছে বলে জানা গিয়েছে।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ৯:১০-এ রাজধানী পিয়ংইয়ং-এর ১০০ কিমি উত্তর-পশ্চিমে প্যাঙ্ঘিয়ন ঘাঁটি থেকে এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করা হয়। টোকিও সূত্রে জানা গিয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রায় ৪০ মিনিট আকাশে উড়ে ৯৩০ কিলোমিটার দীর্ঘ পথ অতিক্রম করার পর তাদের ইইসিতে পড়েছে। এই ঘটনার তীব্র প্রতিবার জানিয়েছে জাপান। প্রসঙ্গত এই সপ্তাহের শেষে জার্মানিতে আয়োজিত হতে চলা জি-২০ সম্মেলনে উত্তর কোরিয়াকে নিয়েই বেশি আলোচনা হওয়ার কথা। তার আগে এই পরীক্ষা তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। অন্য দিকে মঙ্গলবারই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবস। স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালে যুক্তরাষ্ট্রকে ‘জবাব’ দেওয়ার জন্যই এই পরীক্ষা কি না সে ব্যাপারে অবশ্য কিছু জানা যায়নি।

উত্তর কোরিয়াকে বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও তারা যে সেই সতর্কবার্তা কানেই তুলছে না সে ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। উত্তর কোরিয়াকে বাগে আনার জন্য জি-২০ সম্মেলনে চিন এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্টদের কাছেও আবেদন জানাবেন বলে জানান আবে।

মে মাসে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে আহবান জানিয়েছিলেন বামপন্থী মুন-জা-ইন। কিন্তু তাঁর প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর চতুর্থ ক্ষেপণাস্ত্রটি পরীক্ষা করল পিয়ংইয়ং। ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার খবর পাওয়ার পরেই জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের বৈঠক ডেকেছেন মুন।

উল্লেখ্য, সোমবারই প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে বৈঠকে মুন বলেছিলেন, আন্তর্জাতিক বিশ্বের মঞ্চে শেষ বারের মতো উত্তর কোরিয়াকে আলোচনায় বসার জন্য আহ্বান জানানো হবে। এর দু’দিন আগেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন মুন। সেই বৈঠকে উত্তর কোরিয়াকে ‘সঠিক পথে’ আসার জন্য সতর্ক করেছিলেন ট্রাম্প।

এ দিনের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার খবর পাওয়ার পর টুইটারে ট্রাম্প জানান, “আবার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করল উত্তর কোরিয়া। এই লোকটার (কিম জং উন) কি জীবনে ভালো কিছু করার কোনো ইচ্ছে নেই!”

 

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here