ওয়েবডেস্ক: জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর কেটে গিয়েছে প্রায় পাঁচ দিন। নীরবতা ভেঙে মুখে খুললেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু তিনি যে ঘরে-বাইরে যথেষ্ট চাপের মুখে, সেটাই স্পষ্ট হল এ দিন।

ইমরান পুলওয়ামা হামলার দায় সম্পূর্ণ ভাবে ঝেড়ে ফেলতে চাইলেন সাংবাদিকদের সামনে। আর সেটা করতে গিয়েই জড়িয়ে পড়লেন নিজের কথার প্যাঁচেই। তিনি বলেন, পাকিস্তান নিজেই সন্ত্রাস কবলিত। ফলে সন্ত্রাস মুছে ফেলতে তাঁর দেশ সব রকমের চেষ্টা চালাচ্ছে। এমন মুহূর্তে ভারত কোনো রকমের তদন্ত না করেই পুলওয়ামা হামলার দায় কেন পাকিস্তানের ঘাড়ে চাপাচ্ছে?

ইমরানের বক্তব্যে যে চরম দ্বিচারিতা রয়েছে, সেটা তিনিও খুব ভালো ভাবেই জানেন। নেহাত পূর্বসূরিদের পদাঙ্ক অনুসরণ করে তিনি দায় ঝেড়ে ফেলতে চাইলেও এ কথা সর্বজনবিদিত পুলওয়ামা হামলার মূল চক্রি মাসুদ আজহার বর্তমানে পাকিস্তানেই চিকিৎসারত। হামলার দায় স্বীকার করে নেওয়া জইশ-ই-মহম্মদ জঙ্গিগোষ্ঠীকে নিজের দেশে পুষে রেখেও তিনি নির্লজ্জের মতো দায় ঝেড়ে ফেলতে চাইছেন বলে মত প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা।

একই সঙ্গে ইমরান এ দিন বলেন, ‘‘ভারত যদি প্রমাণ দিতে পারে, তা হলে আমি গ্যারান্টি দিচ্ছি সব রকম ব্যবস্থা নেব।’’ পাশাপাশি তিনি সন্ত্রাসবাদ নিয়ে ভারতের সঙ্গে সব রকমের আলোচনায় প্রস্তুত আছেন বলেও জানান।

পরক্ষণেই তিনি বলেন, “ভারত যদি আক্রমণ করে তা হলে তার যোগ্য জবাব দেওয়ার জন্যও আমরা প্রস্তুত আছি”। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, পুলওয়ামা হামলা পর অর্থনৈতিক এবং কূটনৈতিক ভাবে সারা বিশ্বের কাছে কোণঠাসা হয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান। ভারত যেমন পাকিস্তানের রফতানি করা পণ্যের উপর ২০০ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করেছে, তেমনই বিশ্বের অন্যান্য শক্তিশালী দেশগুলিও পাকিস্তানের সঙ্গে সদ্ভাব ছিন্ন করার হুমকি দিয়ে রেখেছে। সব মিলিয়ে কোণঠাসা হতে থাকা পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী দেশের মানুষের মিথ্যে আবেগকে মূলধন করতে প্রচ্ছন্ন ভাবে ভারতের উদ্দেশে সতর্কতাবার্তাও দিয়ে রাখলেন।

[ আরও পড়ুন: পুলওয়ামা হামলা: সাংবাদিক বৈঠকে পুরনো সুর ইমরান খানের গলায় ]

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here