বিস্ফোরণের পরে...

ওয়েবডেস্ক: রক্তাক্ত হয়ে উঠল গণতন্ত্রের উৎসব। কোথায় জঙ্গিদের বিস্ফোরণ, তো কোথায় বিরোধী দলের কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি। সব মিলিয়ে পাকিস্তানের এখনও পর্যন্ত ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার পাকিস্তানের ভোটপর্বের শুরুটা ভালো হলেও যত বেলা গড়িয়েছে, হিংসার খবর আসতে শুরু করে। এরই মধ্যে সব থেকে ভয়াবহ ঘটনাটি ঘটেছে বালুচিস্তানের কোয়েটায়। সেখানে একটি বুথের সামনের বিস্ফোরণের ফলে কমপক্ষে ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত আরও অনেকে।

এ দিন ভোটপর্বের শুরুতেই পাকিস্তানের মানুষের কাছ আবেদন জানান নোবেল শান্তি পুরস্কার জয়ী মালালা ইউসুফজাই। টুইটারে তিনি লেখেন, “পাকিস্তানের জনগণ, বিশেষ করে মহিলারা, তোমাদের হাতেই ক্ষমতা। যাও ভোট দাও। গণতন্ত্রকে জেতাতেই হবে।” মালালার আবেদনের ফলস্বরূপ কি না জানা নেই, তবে এ বার মহিলা ভোটদাতাদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মত।

তবুও নওশেরা কেন্দ্রে একটি বুথে মহিলাদের ভোট দেওয়ার ওপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করা ছিল। অভিযোগ গিয়েছে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের কাছে।

আরও পড়ুন কাশ্মীর সমস্যা গোটা উপমহাদেশকে পণবন্দি করে রেখেছে, বললেন ইমরান খান

এ বারের ভোটের দিকে সবার নজর। এক দিকে পাক সেনার সমর্থন রয়েছে ইমরান খানের তেহরিক-এ-ইনসাফের ওপরে। অন্য দিকে ক্ষমতায় পুনরায় ফিরে আসার ব্যাপারে বদ্ধপরিকর নওয়াজ শরিফের পিএমএল (এন)। তবে অনেক রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞের ধারণা, পাকিস্তানে এ বার ত্রিশঙ্কু হতে পারে।

ছবি সৌজন্য: রয়টার্স

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here