ভাইয়ের অপরাধে বোনকে ধর্ষণ, পাকিস্তানে গ্রামীণ সালিশি সভার কুড়ি সদস্য ধৃত

0
311

মুলতান (পাকিস্তান): কিশোরীটির দোষ, পড়শি এক মেয়েকে ধর্ষণ করেছে তার দাদা। তার শাস্তি হিসেবেই ওই কিশোরীকেই ধর্ষণ করার নির্দেশ দেওয়া হল। ঘটনায় অভিযুক্ত কুড়িজন গ্রামবাসীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে মুলতান শহরের কাছে একটি গ্রামে। আক্রান্ত কিশোরীর দাদা যাকে ধর্ষণ করেছিল, তার দাদাই এই কিশোরীকে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ।

উল্লেখ্য, এ মাসের গড়ায় ওই গ্রামের জিরগায় (গ্রাম্য দরবার) এক ব্যক্তি অভিযোগ করেন যে, যে তার বারো বছরের বোনকে ধর্ষণ করা হয়েছে। এর শাস্তি হিসেবে অভিযুক্তের বোনকেই ধর্ষণের নির্দেশ দেয় কুড়ি সদস্যের ওই গ্রাম্য দরবার।

পাকিস্তানের ডন পত্রিকায় বলা হয়েছে, মেয়েটিকে জোর করে দরবারের সালিশি সভায় নিয়ে আসা হয়। এর পর বাবা-মার উপস্থিতিতেই সবার সামনে তাকে ধর্ষণ করা হয়। দুই কিশোরীর মায়েরাই স্থানীয় থানায় অভিযোগ করেন। শারীরিক পরীক্ষায় দু’জনেরই ধর্ষণের শিকার হওয়ার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে।

এখনও পর্যন্ত কুড়িজনকে গ্রেফতার করা হলেও মোট ২৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। স্থানীয় পুলিশপ্রধান জানিয়েছেন, দুই কিশোরীর দুই ধর্ষণকারীই পলাতক। তাদের দু’জনের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ।

পাকিস্তানের প্রত্যন্ত গ্রামের নানা সমস্যা সমাধানের জন্য প্রবীণ নাগরিকদের নিয়ে গঠিত হয় এই সব জিরগা। অনেকটা ভারতের খাপ পঞ্চায়েতগুলির মতো। যদিও আইনত জিরগাগুলি অবৈধ। ২০০২ সালে এ রকম একটি জিরগাই ২৮ বছর বয়সি মুখতারন মাইকে গণধর্ষণের আদেশ দেয়। বয়স্কা নারীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক রাখার অভিযোগ ছিল তাঁর ভাইয়ের বিরুদ্ধে। গোটা বিশ্বে সাড়া ফেলে দেয় এই ঘটনা। ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে তিনি আদালতে মামলা করেন, যা পাকিস্তানের ইতিহাসে বিরল।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here