টিকা না থাকলেও হাসপাতালে যেতে হচ্ছে না রোগীদের, ওমিক্রন নিয়ে স্বস্তির খবর দিলেন সাউথ আফ্রিকার সেই চিকিৎসক

0

জোহানেসবার্গ: করোনাভাইরাসের নতুন কোনো প্রজাতি এসেছে, সেটা তিনিই প্রথম সামনে এনেছিলেন। এর পরেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সেই বিষয় তদন্ত করে ওই নতুন প্রজাতিটির নাম ওমিক্রন রেখেছে। হু-এর অতি সতর্কতা এবং সংবাদমাধ্যমের একাংশে আতংক ধরানো খবরের জেরে ইতিমধ্যেই মানুষের মধ্যে নতুন করে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

তবে সাউথ আফ্রিকার ওই চিকিৎসক কিন্তু অনেকটাই স্বস্তির খবর শোনালেন। সে দেশের মেডিক্য়াল অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান তথা চিকিৎসক অ্যাঞ্জেলিক কোয়েটজি (Angelique Coetzee) জানান, ওমিক্রন নামক নতুন ভ্যারিয়েন্টে যাঁরা আক্রান্ত হচ্ছেন, তাঁদের মধ্যে হালকা উপসর্গই দেখা যাচ্ছে এবং হাসপাতালে ভরতি না হয়েও তারা সম্পূর্ণ রূপে সুস্থ হয়ে উঠছেন।

আরও বড়ো কথা হল, এই রোগীদের অধিকাংশেরই কোভিডরোধী টিকা নেওয়া ছিল না। তাঁর কথায়, গত ১০ দিনে তিনি কমপক্ষে ৩০ জন কোভিড আক্রান্ত রোগীকে দেখেছেন। এঁদের সকলের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ হলেও তাঁদের যে উপসর্গগুলি হয়েছিল, সেটা গত দেড় বছরের কোভিডকালে এর আগে দেখা যায়নি।

অ্যাঞ্জেলিক বললেন, “রোগীর মধ্যে ক্লান্তিভাব অনেকটাই বেশি ছিল। তবে আশ্চর্যজনক বিষয় হল, এদের মধ্যে অধিকাংশই কমবয়সি। অধিকাংশ পুরুষ এবং তাদের বয়স ৪০-এর নীচে। এর মধ্যে মাত্র অর্ধেক জন টিকা নিয়েছিলেন।”

নতুন প্রজাতির করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে জ্বর, পেশিতে ব্য়থ্যা, গলা চুলকানি ও শুকনো কাশির মতো উপসর্গ দেখা গিয়েছিল বলেই তিনি জানান। অন্যান্য় প্রজাতিতে সংক্রমিত হলে যেখানে গুরুতর উপসর্গ দেখা যায়, সেখানেই এই নতুন প্রজাতির উপসর্গগুলি তুলনামূলক ভাবে অনেকটাই মৃদু।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তরফে এই ভ্যারিয়েন্টকে ‘উদ্বেগের কারণ’ হিসাবে চিহ্নিত করা হলেও চিকিৎসক কয়েটজির মতে, ওমিক্রন ভ্য়ারিয়েন্টকে নিয়ে অতি সতর্কতা দেখানো হচ্ছে, যা কাম্য নয়। ওই চিকিৎসক বলেন, “আগামী দিনে গুরুতর কিছু রোগ আসবে না, সেটা এখনই বলা সম্ভব নয়। তবে বর্তমানে যে সমস্ত রোগীকে আমরা দেখেছি, তাদের মধ্যে যাঁরা টিকাপ্রাপ্ত নন, তাঁদেরও মৃদু উপসর্গ দেখা গিয়েছে। আমি প্রায় নিশ্চিত যে ইউরোপের বহু মানুষ ইতিমধ্যেই এই প্রজাতিতে আক্রান্ত হয়েছেন।”

এ দিকে, ওমিক্রনের সংক্রমণ ক্ষমতা কেমন, সে বিষয় এখনও কোনো তথ্য বিশদে পাওয়া যায়নি। সাউথ আফ্রিকায় গত সপ্তাহের শেষের দিকে দৈনিক সংক্রমণ অনেকটা বেড়ে গেলেও রবিবার তা ফের অনেকটাই কমে গিয়েছে। পাশাপাশি সেই দেশে টিকাকরণের হারও অত্যন্ত কম। ফলে অনেকেই এখন মনে করছেন যে এই নতুন প্রজাতিকে নিয়ে অতি সতর্কতা দেখিয়ে আদতে হিতে বিপরীত করছে হু।

আরও পড়তে পারেন

কৃষি আইন প্রত্যাহারেই নজর সবার, আজ শুরু সংসদের শীতকালীন অধিবেশন

‘শা ব্রেইল’-এর স্রষ্টা লালবিহারী শাহ-র মূর্তি উন্মোচন করে শুরু হচ্ছে বেহালা দৃষ্টিহীন শিল্পনিকেতনের সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব

পশ্চিমবঙ্গে সংক্রমণ সামান্য বাড়লেও কলকাতায় নতুন আক্রান্ত দুশোর কম

ত্রিপুরা পুরভোটে গেরুয়া ঝড়, প্রধান বিরোধীর ভূমিকায় তৃণমূল

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন