‘আরও ভালো ব্রিটেন’ গড়ার প্রতিশ্রুতি ভাবী প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে-র

0

খবর অনলাইন: ‘আরও ভালো ব্রিটেন’ গড়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন ব্রিটেনের ভাবী প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে। তিনি বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার যে সিদ্ধান্ত ব্রিটেন নিয়েছে, তাকে তিনি ‘সফল’ করে তুলবেন। ব্রিটিশ পার্লামেন্টের বাইরে বক্তৃতা করতে গিয়ে তেরেসা বলেন, ডেভিড ক্যামেরনের স্থলাভিষিক্ত হতে পেরে তিনি ‘সম্মানিত ও বিনীত’ বোধ করছেন।

ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে তেরেসা মে-র প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন শক্তিমন্ত্রী আন্ড্রিয়া লিডসাম। কিন্তু ‘শক্তিশালী ও স্থায়ী সরকার’ গড়ার মতো সমর্থন তাঁর নেই বলে সোমবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়ান লিডসাম। এখন তেরেসা মে-র প্রধানমন্ত্রী পদে বসা শুধু সময়ের অপেক্ষা। আগামী বুধবার ডেভিড ক্যামেরন প্রধানমন্ত্রী পদে ইস্তফা দেবেন। তিনি জানান, বুধবার ‘প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তরপর্বের’ চূড়ান্ত অধিবেশনে যোগ দিয়ে তিনি রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছে যাবেন এবং তাঁর ইস্তফাপত্র পেশ করবেন। পরবর্তী নেতা নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব রানির। ব্রেক্সিটের জেরে ব্রিটেনে এই পট পরিবর্তন।

ক্যামেরন ব্রেক্সিট-বিরোধী রিমেন-পন্থী নেতা। গণভোটে তাঁর পরামর্শ ছিল ইউরোপীয় ইউনিয়নে থেকে যাওয়া। কিন্তু ব্রিটেনবাসী ব্রেক্সিটের পক্ষে রায় দেওয়ায় তিনি পদত্যাগের কথা ঘোষণা করেন। তবে গোড়ায় তিনি বলেছিলেন, অক্টোবরে তিনি ইস্তফা দেবেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত অত দিন অপেক্ষা না করে তিনি বুধবারই প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন।

উল্লেখ্য, তেরেসা মে-ও রিমেন-পন্থী। প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসাবে তাঁর সঙ্গে আন্ড্রিয়া লিডসোমের নামও উঠে আসে। যদি দু’ জনেই লড়াইয়ের ময়দানে থাকতেন তা হলে কনজারভেটিভ দলের প্রায় দেড় লক্ষ সদস্যকে ভোট দিতে হত। কিন্তু লিডসোম সরে দাঁড়ানোয় আর ভোট হবে না।

মার্গারেট থ্যাচারের পর তেরেসা মে-কে ব্রিটেন দ্বিতীয় মহিলা প্রধানমন্ত্রী হিসাবে পেতে চলেছে।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন