Connect with us

বিদেশ

হোয়াইট হাউজের সামনে ফের কাঁদানে গ্যাস পুলিশের, সেনা নামানোর হুমকি দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

নিউ ইয়র্ক: হোয়াইট হাউজের (White House) সামনে জড়ো হওয়া বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে কাঁদানে গ্যাস আর রবার বুলেট ফাটাল পুলিশ। যদিও ঘটনাস্থলে থাকা রয়টার্সের এক সাংবাদিকের মতে, ওই বিক্ষোভ শান্তিপূর্ণই ছিল। এ দিকে বিক্ষোভকারীদের দমন করতে গোটা দেশেই সেনা নামানোর হুমকি দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump)।

হোয়াইট হাউজের উলটো দিকেই লাফায়েট পার্ক। সেখানেই জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন প্রতিবাদীরা। রয়টার্সের চিত্রসাংবাদিক জোনাথান আর্ন্সট জানান, কাঁদানে গ্যাস আর রবার বুলেট ফাটিয়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ।

ঠিক একই সময়ে হোয়াইট হাউজের রোজ গার্ডেনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ট্রাম্প বলেন, তিনি ‘অবিলম্বে’ এই বিক্ষোভ থামিয়ে দেবেন। বিক্ষোভ দমন করার জন্য গোটা দেশে সেনা নামানোর হুমকিও দেন তিনি। তবে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের গভর্নররা যদি ন্যাশনাল গার্ডকে পথে না নামান, তখনই সেনাকে ডাকবেন বলে জানান প্রেসিডেন্ট।

তিনি বলেন, “মানুষের প্রাণ এবং সম্পত্তি বাঁচানোর জন্য গভর্নররা যদি ন্যাশনাল গার্ডকে এখনই না ডাকেন, তা হলে আমি সেনা ডাকব আর এখুনি সব কিছুর সমাধান করে দেব।”

উল্লেখ্য, মিনেপলিসের (Minneapolis) এক পুলিশ অফিসার প্রায় ন’মিনিট কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের গলায় হাঁটু চেপে ধরে থাকে। এর জেরে পুলিশি হেফাজতে ফ্লয়েডের মৃত্যু হয়। এই ঘটনার ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই দেশ জুড়ে শুরু হয়ে যায় ব্যাপক বিক্ষোভ। কৃষ্ণাঙ্গদের পাশাপাশি বহু শ্বেতাঙ্গও এই বিক্ষোভে যোগ দেন।   

ক্রমে এই বিক্ষোভ হিংসাত্মক চেহারা নেয়। বিক্ষোভ ক্রমশ জোরদার হতেই সোমবার ওয়াশিংটন ডিসির মেয়র মুরিয়েল ব্রাউজার শহরে কার্ফু জারি করেন। সেই সঙ্গে আরও চল্লিশটি শহরে কার্ফু জারি হয়। এরই মধ্যে রবিবার বিক্ষোভকারীরা হোয়াইট হাউসের সামনে চলে এলে প্রেসিডেন্টকে এক ঘন্টার জন্য মাটির নীচে বাংকারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

১৯৬৮ সালে মার্টিন লুথার কিং জুনিয়রের (Martin Luther King Jr) খুনের পর গোটা দেশে যে ভাবে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ ছড়িয়েছিল, এ বারের পরিস্থিতি ঠিক সে রকমই বলে জানাচ্ছে ওয়াকিবহাল মহল।

তবে হোয়াইট হাউসে যেখানে পুলিশি অত্যাচারের ছবি ধরা পড়ছে, সেখানে অন্য ছবিও দেখা যাচ্ছে। প্রতিবাদকারীদের সঙ্গে হাঁটু গেড়ে বসে জর্জ ফ্লয়েডের (George Floyd) মৃত্যুতে সংহতি প্রকাশও করছে পুলিশ। সোমবার এমনই বিরল দৃশ্য দেখল মিয়ামি।

ফ্লয়েডের মৃত্যুর প্রতিবাদে সোমবার মিয়ামিতে বিরাট বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সেই সমাবেশেই প্রতিবাদকারীদের সঙ্গে কিছুক্ষণের জন্য হাঁটু গেড়ে বসে পুলিশ।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ক্রমশ এগিয়ে আসছে। এই পরিস্থিতিতে ফ্লয়েডের মৃত্যু দেশের মানুষকে রাজনীতিগত এবং বর্ণগত দিক থেকে দু’ ভাগ করে দিয়েছে।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

বিদেশ

বিদেশি ছাত্রদের বিতাড়ন সংক্রান্ত নয়া মার্কিন নির্দেশিকার বিরুদ্ধে মামলা হার্ভার্ড ও এমআইটির

হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট লরেন্স ব্যাকো বলেছেন এই নির্দেশিকায় যে যে অপরিমাণদর্শিতা রয়েছে, তাকেও ছাপিয়ে গেছে এর নিষ্ঠুরতা।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: অনলাইনে পাঠরত বিদেশি ছাত্রদের ব্যাপারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (USA) যে নির্দেশিকা জারি করেছে, তার বিরুদ্ধে মামলা হল। মামলা করেছে হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি (Harvard University) এবং ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি, MIT)।

নতুন মার্কিন নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ‘ফল’ (শরৎকাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ‘ফল’ নামে অভিহিত, সময়কাল ২২ সেপ্টেম্বর থেকে ২১ ডিসেম্বর) মরশুমে বিশ্ববিদ্যালয়গুলি যদি শুধুমাত্র অনলাইন ক্লাস চালায়, তা হলে বিদেশি ছাত্রদের এ দেশ ছাড়তে হবে।

আরও পড়ুন: অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকা ছাড়তে হবে, নির্দেশ ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকারের

এই নির্দেশিকার বিরুদ্ধেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হোমল্যান্ড নিরাপত্তা দফতর (Homeland Security Department) এবং ফেডারেল অভিবাসন এজেন্সির (Federal Immigration Agency) বিরুদ্ধে বস্টনের আদালতে মামলা করেছে হার্ভার্ড এবং এমআইটি।

এই নির্দেশিকা আপাতত অস্থায়ী ভাবে স্থগিত করা এবং পরবর্তী কালে নির্দেশিকা মোতাবেক আন্তর্জাতিক ছাত্রদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে বাধ্য করার ব্যাপারে ওই দুই দফতরকে আটকাতে স্থায়ী ইনজাঙ্কটিভ রিলিফ দেওয়ার বিষয়ে আবেদন জানিয়েছেন মামলাকারীরা।

হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি কী বলছে

হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট লরেন্স ব্যাকো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্থ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিকে ই মেল পাঠিয়ে বলেছেন, “হঠাৎ এই নোটিশ এসেছে। এর মধ্যে যে অপরিমাণদর্শিতা রয়েছে, তাকেও ছাপিয়ে গেছে এর নিষ্ঠুরতা। ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্টের (আইসিই, ICE) এই নির্দেশ খুব বাজে জননীতি এবং আমাদের বিশ্বাস এটি অবৈধও।”

লরেন্স ব্যাকো হার্ভার্ডের সংবাদপত্র ‘দ্য হার্ভার্ড ক্রিমসন’কে বলেন, “এই মামলাটা আমরা আপ্রাণ লড়ব যাতে আমাদের এবং সারা দেশে আমাদের অধীনস্থ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলির আন্তর্জাতিক ছাত্ররা বিতাড়নের হুমকির পরোয়া না করে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে।”

আইসিই গত ৬ জুলাই এক বিবৃতি প্রকাশ করে বলেছেল, “এফ-১ এবং এম-১ ভিসা নিয়ে পড়তে গিয়ে এখন যে সমস্ত পড়ুয়া অনলাইন ক্লাস করছেন, তাঁদের আমেরিকায় থাকার ভিসা প্রত্যাহার করা হবে। এমনকী ওই ভিনদেশি পড়ুয়ারা আমেরিকায় থাকতেও পারবেন না”।

Continue Reading

ক্রিকেট

‘ছোটো থেকেই মগজধোলাই করা হয়’, বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে সরব মাইকেল হোল্ডিং

“ছোটোবেলায় বুঝতাম না মগজধোলাই কী জিনিস। কিন্তু এখন বুঝতে পারি। আমাদের সবাইকে মগজধোলাই করা হয়েছে। শ্বেতাঙ্গদেরও মগজধোলাই করা হয়েছে।”

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কৃষ্ণাঙ্গদের বারবার কেন বর্ণবৈষম্যের শিকার হতে হয়, তার একাধিক কারণ তুলে ধরলেন মাইকেল হোল্ডিং (Michael Holding)। তাঁর শক্তিশালী বক্তব্য এখন পুরো সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

ইংল্যান্ড আর ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটাররা ম্যাচ শুরু হওয়ার আগে হাঁটু গেড়ে বসে জর্জ ফ্লয়েডকে স্মরণ করেন। দুই দলের সবার জার্সিতেই ‘ব্ল্যাক লাইভ্‌স ম্যাটার’ (Black Lives Matter) বার্তা লেখা ছিল। এই পুরো ঘটনাটিকে নিয়ে মাইকেল হোল্ডিংয়ের মতামত চান ইংল্যান্ডের স্কাই স্পোর্টসের সঞ্চালক ইয়ান ওয়ার্ড।

হোল্ডিংয়ের ধারণা, ছোটোবেলা থেকেই একজনের মনে শ্বেতাঙ্গ-কৃষ্ণাঙ্গ ভেদাভেদ তৈরি করে দেওয়া হয়। তাঁর বক্তব্য, সবার মগজধোলাই করা হয় ছোটো থেকে। হোল্ডিং বলেন, ‘‘বর্ণবৈষম্য শুরু হয় হাজার বছর আগে। আর বরাবরই শ্বেতাঙ্গ ও কৃষ্ণাঙ্গদের মধ্যে পার্থক্য গড়ে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে, কারা ভালো, কারা খারাপ।’’ 

হোল্ডিং বলেন, “ছোটোবেলায় বুঝতাম না মগজধোলাই কী জিনিস। কিন্তু এখন বুঝতে পারি। আমাদের সবাইকে মগজধোলাই করা হয়েছে। শ্বেতাঙ্গদেরও মগজধোলাই করা হয়েছে।”

জিশুকে শ্বেতাঙ্গ দেখানো নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কিংবদন্তি এই ফাস্ট বোলার। তিনি বলেন, “তুমি (শ্বেতাঙ্গ ইয়ান ওয়ার্ড) আর আমি (কৃষ্ণাঙ্গ মাইকেল হোল্ডিং) দু’জনেই খ্রিস্টান। এ বার জিশুকে দেখো। ছোটো থেকেই জিশুকে আমাদের সামনে কী ভাবে তুলে ধরা হয়েছে? বলা হয়েছে তাঁর সাদা চামড়া, সোনালি চুল, নীল চোখ। জিশুর যেখানে জন্ম, সেখানকার মানুষরা কি আদৌ সে রকম দেখতে?”

হোল্ডিংয়ের কথায়, “এটা মগজধোলাই। বলা হয়েছে, ‘দেখো কী সুন্দর দেখতে। একেই বলে পরিপূর্ণতা’।”

পাশাপাশি জুডাসকে কেন ধর্মীয় কাহিনিতে কৃষ্ণাঙ্গ দেখানো হয়েছে, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রাক্তন কিংবদন্তি।

তিনি বলেন, “তখনকার দিনের গল্পে ফিরে গেলে দেখা যাবে জিশুর বিরুদ্ধে যে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে সেই জুডাস একজন কৃষ্ণাঙ্গ। সেখানেও মগজধোলাই। সবাইকে বুঝিয়ে দেওয়া হল, ‘দেখো জুডাস একজন কৃষ্ণাঙ্গ, মানে একজন বাজে লোক’।”

স্কুল জীবনের গল্পও তুলে ধরলেন হোল্ডিং। তিনি বলেন ‘‘আমাদের স্কুলে কখনও কৃষ্ণাঙ্গদের সাফল্যের গল্প শোনানো হত না।”

হোল্ডিংয়ের কথায়, “সবাই জানেন বাল্‌ব আবিষ্কার করেছেন টমাস আলভা এডিসন। কিন্তু তিনি যে বাল্‌ব আবিষ্কার করেছিলেন, তা বেশি ক্ষণ জ্বলত না। কেউ বলতে পারবেন, কে বাল্‌বের কার্বন ফিলামেন্ট আবিষ্কার করেন? যার সাহায্যে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আলো পাওয়া যায়? অনেকেই জানেন না। তিনি লিউইস হওয়ার্ড ল্যাটিমার। একজন কৃষ্ণাঙ্গ। কোনো স্কুলেই এটা পড়ানো হয়নি। তা হলে কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি সম্মান জন্মাবে কী করে?’’

আরও শক্তিশালী বার্তা দিয়ে হোল্ডিং বলেন, “যারা শাসন করেছে তারাই ইতিহাস লিখেছে। যারা শাসিত হয়েছে, তাদের ইতিহাস লেখার সুযোগ দেওয়া হয়নি। যারা মানুষের ক্ষতি করেছে, তারাই ইতিহাস লিখেছে। যারা ক্ষতি সহ্য করেছে, তারা ইতিহাস লেখেনি। আমাদের দুই দিকের ইতিহাসই সবাইকে পড়াতে হবে। যত দিন না আমরা সেটা করছি, যত দিন না গোটা মানবজাতিকে আমরা শিক্ষিত করছি, তত দিন এই বর্ণবাদ শেষ হবে না।”

Continue Reading

বিদেশ

পড়ুয়াদের ভিসা বাতিলের নতুন সিদ্ধান্ত নিয়ে ভারতকে ‘আশ্বাস’ আমেরিকার

পড়ুয়াদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা মাথায় রাখা হবে। যাতে এর প্রভাব হ্রাস করা যায়, সেই চেষ্টাই করা হবে।

ওয়েবডেস্ক: বিদেশি পড়ুয়াদের এফ-১ ভিসা (F-1 visa) নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে আমেরিকা। বলা হয়েছে, অনলাইনে ক্লাস করলে ভিনদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকা ছাড়তে হবে। তবে সূত্রের খবর, এ ব্যাপারে পড়ুয়াদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে ভারতকে জানিয়েছে আমেরিকা।

আমেরিকার নতুন ভিসা নীতি কার্যকর হলে বিপাকে পড়তে পারেন হাজার হাজার ভারতীয় ছাত্র। এই ইস্যুতেই ভারতের বিদেশসচিব হর্ষ বর্ধন শ্রীংলা এবং আমেরিকার রাজনৈতিক বিষয়ক অবর সচিব ডেভিড হ্যালের ভার্চুয়াল বৈঠক হয়।

সূত্রের খবর, “ভারত-মার্কিন বিদেশমন্ত্রক অফিসের আলোচনার সময় পড়ুয়াদের এফ-১ ভিসা ইস্যুটি উত্থাপিত হয়েছিল”। আলোচনার সময় মার্কিন-পক্ষ জানায়, পড়ুয়াদের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা মাথায় রাখা হবে। যাতে এর প্রভাব হ্রাস করা যায়, সেই চেষ্টাই করা হবে।

এখনও সময় আছে!

একই সঙ্গে আমেরিকার পক্ষ থেকে জানানো হয়, নতুন নীতিটি বাস্তবায়নের বিস্তারিত নির্দেশিকা এখনও প্রকাশিত হয়নি। ফলে একাধিক বিবেচ্য বিষয় পর্যালোচনা করা সম্ভব।

অন্য দিকে নতুন নীতি নিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump) প্রশাসন বিরোধিতার মুখোমুখি হয়েছে নিজের দেশেই। প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন সেনেটর এবং আগামী প্রেসিডেন্ট ভোটে ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নিও স্যান্ডার্স। তিনি জানান, ভিনদেশি পড়ুয়াদের উপর মারাত্মক শর্ত আরোপ করা হচ্ছে। তাঁদের বলা হচ্ছে, হয় প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে ক্লাস করো, নইলে দেশ ছাড়ো। সরকারের এই একগুঁয়েমি নীতির বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। দেশি হোক বা বিদেশি, সমস্ত পড়ুয়ার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

দুই দেশের বিদেশমন্ত্রক অফিসের ওই কথোপকথনে ‘গ্লোবাল স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপে’র আওতায় রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা-সহ বিভিন্ন বিষয় পর্যালোচনা করা হয়।

নতুন নীতিতে কী বলা হয়েছে?

করোনাভাইরাস মহামারির (Coronavirus pandemic) কারণে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই অনলাইন ক্লাস চলছে। নতুন নির্দেশে বলা হয়েছে, এ ভাবে অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের হয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বদল করতে হবে। সেখানে তাঁদের সশরীরে হাজির হয়ে ক্লাস করতে হবে। নচেৎ তাঁদের ভিসা প্রত্যাহার করা হবে।

আমেরিকার ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এমফোর্সমেন্ট (ICE) গত ৬ জুলাইয়ের বিবৃতিতে জানিয়ে দিয়েছে, “এফ-১ এবং এম-১ ভিসা নিয়ে পড়তে গিয়ে এখন যে সমস্ত পড়ুয়া অনলাইন ক্লাস করছেন, তাঁদের আমেরিকায় থাকার ভিসা প্রত্যাহার করা হবে। এমনকি ওই ভিনদেশি পড়ুয়ারা আমেরিকায় থাকতেও পারবেন না”।

এফ-১ ভিসা

বিদেশি পড়ুয়াদের ভিসার মধ্যে সব থেকে সাধারণ হল এফ-১ ভিসা। এগুলি সাধারণত কলেজ ডিগ্রি অর্জনকারীদের জন্য দেওয়া হয়। মার্কিন কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে এফ -১ ভিসায় তালিকাভুক্ত বিদেশি পড়ুয়াদের সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। বিশেষ করে বিশ্বমন্দার পর থেকে এই বৃদ্ধির হার ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী।

Continue Reading
Advertisement
রাজ্য43 seconds ago

কলকাতায় কমলেও এই প্রথম রাজ্যে নতুন করে আক্রান্ত হাজারের ওপর

শিক্ষা ও কেরিয়ার22 mins ago

শুক্রবার আইসিএসই, আইএসসি-র ফল

দেশ48 mins ago

করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও ভারতে এখনও গোষ্ঠী সংক্রমণ নেই: স্বাস্থ্যমন্ত্রক

কলকাতা2 hours ago

করোনার পাশাপাশি কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে শুরু হচ্ছে অন্যান্য রোগের চিকিৎসা

দেশ2 hours ago

লকডাউন সফল করতে কম্যান্ডো মোতায়েন হল কেরলের গ্রামে

দেশ3 hours ago

অর্থনীতির ঘুরে দাঁড়ানোর ‘সবুজ সংকেত’ দেখছেন নরেন্দ্র মোদী

বিনোদন3 hours ago

‘তারক মেহতা…’ বাদে সোমবার থেকে হিন্দি বিনোদনের চ্যানেলগুলোয় ফিরছে নতুন এপিসোড

দেশ3 hours ago

বলিউড ছবির ধাঁচে কী ভাবে রচিত হয় বিকাশ দুবের ধরা দেওয়ার চিত্রনাট্য?

দেশ11 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৪৮৭৯, সুস্থ ১৯৫৪৭

কলকাতা1 day ago

কলকাতায় লকডাউনের আওতায় পড়া এলাকাগুলির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশিত

রাজ্য2 days ago

পশ্চিমবঙ্গের বেশ কিছু জায়গায় ফের কড়া লকডাউনের জল্পনা

দেশ2 days ago

দ্রুত গতিতে বাড়ছে সুস্থতা, ভারতে এক সপ্তাহেই করোনামুক্ত লক্ষাধিক

বিদেশ2 days ago

অনলাইনে ক্লাস করা ভিনদেশি পড়ুয়াদের আমেরিকা ছাড়তে হবে, নির্দেশ ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকারের

রাজ্য2 days ago

বৃহস্পতিবার বিকেল পাঁচটা থেকে রাজ্যের কনটেনমেন্ট জোনগুলিতে কড়া লকডাউন

রাজ্য3 days ago

নতুন সংক্রমণ কিছুটা কম, রাজ্যে করোনামুক্ত হলেন ১৫ হাজার

প্রযুক্তি3 days ago

নতুন অ্যাপ ‘সেল্‌ফ স্ক্যান’ নিয়ে এল রাজ্য সরকার! এর কাজ কী?

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা3 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা4 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা1 week ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

নজরে