উত্তাল হংকংয়ে বিমানবন্দরের দখল নিলেন বিক্ষোভকারীরা, বাতিল সব উড়ান

হংকং: চিনবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হংকং। বিক্ষোভকারীদের দখলে চলে গিয়েছে বিমানবন্দর। ফলে নতুন করে সব উড়ান বাতিল করে দিয়েছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। কালো পোশাক পরে বিক্ষোভকারীরা দখল নিয়েছে বিমানবন্দরের ‘অ্যারাইভাল এরিয়া’র।

সোমবারও এ রকম পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। কিন্তু মঙ্গলবার সকাল থেকে অবস্থা কিছুটা স্বাভাবিক হতে শুরু করে। কিন্তু বেলা বাড়তেই আবার বাড়তে থাকে বিক্ষোভ। মঙ্গলবার ভো‌রের দিকে যে ক’টি বিমানের যাত্রীরা চেক ইন করে ফেলেছিলেন, শুধু তাঁরাই শহর ছাড়তে পেরেছেন।

শহরের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিমানবন্দর পৌঁছোনোর রাস্তাও প্রায় বন্ধ। চিনবিরোধী দেওয়াললিখনে ছেয়ে গিয়েছে বিমানবন্দর চত্বর। বিক্ষোভকারীদের ওপরে অত্যাচারের অভিযোগ উঠছে পুলিশের বিরুদ্ধে। যদিও এই বিক্ষোভে দমে না গিয়ে বিক্ষোভকারীদের চরম হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চিনপন্থী প্রশাসক ক্যারি ল্যাম। হুমকির সুরে তিনি বলেন, “বিক্ষোভকারীরা যে পরিস্থিতি তৈরি করছেন এখান থেকে পিছিয়ে আসার সব রাস্তাই বন্ধ হয়ে যাবে।” হংকং পুলিশ আবার এই বিক্ষোভকে সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে তুলনা করেছে। পুলিশকে লক্ষ্য করে বিক্ষোভকারীরা পালটা বোতল বোমা, ইট ছুড়েছে বলে অভিযোগ করেছে বেজিং।

আরও পড়ুন স্বাধীনতা দিবস ও প্রজাতন্ত্র দিবসে গুলিয়ে ফেলল দিল্লি পুলিশ!

উল্লেখ্য, দীর্ঘ দেড়শো বছর ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনে থাকার পর লিজ চুক্তির মেয়াদ শেষে ১৯৯৭ সালের ১ জুলাই অঞ্চলটি চিনের কাছে ফেরত দেওয়া হয়েছিল। গত ১ জুলাই ওই ঘটনার ২২ বছর পূর্তিতে আন্দোলনে নামেন বিক্ষোভকারীরা। বর্তমানে হংকং চিনের বিশেষ প্রশাসনিক অঞ্চল হিসেবে বিবেচিত হলেও ২০৪৭ সাল পর্যন্ত অঞ্চলটির স্বায়ত্তশাসনের নিশ্চয়তা রয়েছে। কিন্তু সেই আইনকে উপেক্ষা করে জুন মাসে ক্যারি ল্যাম একটি প্রত্যর্পণ বিল আনেন। অপরাধী প্রত্যর্পণ সংক্রান্ত প্রস্তাবিত ওই বিলের বিপক্ষে হংকং জুড়ে গণবিক্ষোভ শুরু হয়। চিনের সঙ্গে কোনো রকম সমঝোতার বিরোধী বিক্ষোভকারীরা।

চিনও এই বিক্ষোভকে কড়া হাতে দমন করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। এখন দেখার এই পরিস্থিতি ঠিক কোথায় গিয়ে শেষ হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.