কুইবেক (কানাডা): সাতটি মুসলিম-প্রধান নাগরিকদের মার্কিন দেশে ঢোকার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্ব জুড়ে তোলপাড় শুরু করে দেওয়ার মধ্যেই কানাডায় ঘটে গেল সন্ত্রাসবাদী হামলা। কুইবেকের এক মসজিদে রবিবার রাতে প্রার্থনা চলার সময়ে গুলিচালনার ঘটনায় অন্ততপক্ষে ছ’ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন ৮ জন। হতাহতেরা সকলেই পুরুষ, এদের মধ্যে শিশুও থাকতে পারে। মসজিদের প্রেসিডেন্ট এই খবর দিয়েছেন। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে কুইবেক পুলিশ জানিয়েছে। কুইবেকের প্রিমিয়ার ফিলিপ কুইলার্ড এবং কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ত্রুদো দু’ জনেই এই ঘটনাকে ‘সন্ত্রাসবাদী হামলা’ বলে বর্ণনা করেছেন।

কুইবেক সিটি ইসলামিক কালচারাল সেন্টারের প্রেসিডেন্ট মহামেদ ইয়াঙ্গুই বলেছেন, মসজিদের পুরুষ বিভাগে গুলিচালনার ঘটনাটি ঘটে। সেই সময় সেখানে ৬০ থেকে ১০০ জন ছিলেন। ছিল অনেক শিশু। তাই শিশুমৃত্যুর আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। ইয়াঙ্গুই জানান, ঘটনার সময় তিনি সেখানে ছিলেন না। প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে ঘটনার বর্ণনা পেয়েছেন।

কানাডার সরকারি কর্তৃপক্ষ অবশ্য হতাহতের সংখ্যা কিছু জানায়নি। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ত্রুদো এক বিবৃতিতে বলেছেন, “প্রার্থনাকক্ষে মুসলিমদের উপর হামলার তীব্র নিন্দা করছি। এ রকম অর্থহীন হিংসাত্মক ঘটনা দেখে মর্মবেদনা অনুভব করছি। বৈচিত্র্যই আমাদের শক্তি, আমরা কানাডার মানুষজন যে ক’টি মূল্যবোধে বিশ্বাসী, তার মধ্যে অন্যতম হল ধর্মীয় সহিষ্ণুতা। কানাডার জাতীয় কাঠামোর অন্যতম অংশ হলেন মুসলিম-কানাডিয়ান। আমাদের দেশে, শহরে, সম্প্রদায়ে এই জঘন্য কাজের কোনো স্থান নেই।”  

উল্লেখ করা যেতে পারে, বিদেশি মুসলিমদের প্রবেশ সংক্রান্ত মার্কিন ফরমানের তীব্র সমালোচনা করে কানাডার প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তাঁর দেশের দরজা মুসলিম-সহ বিশ্বের সব মানুষের জন্য খোলা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here