ওয়াশিংটন: ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছিলেন ২০০৩-এ আমেরিকার ইরাক আক্রমণের সিদ্ধান্ত ভুল ছিল। ভাবি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও একই সুরে গাইছেন আজকাল। ইরাক আক্রমণের পর কেটে গেছে এক যুগের বেশি সময়। বিধ্বস্ত ইরাক এখনও চালিয়ে যাচ্ছে সামলে ওঠার লড়াই। সাদ্দামকে ফাঁসিতে চড়ানো হয় ২০০৬ সালে। সিআইএ আধিকারিক জন নিক্সনের একটি বই প্রকাশিত হবে এই মাসের শেষে। ইরাকের স্বৈরাচারী শাসক সাদ্দাম হুসেনকে একধিক বার জেরা করার সুযোগ হয়েছিল নিক্সনের। সাদ্দামের সঙ্গে সিআইএ প্রতিনিধির কথোপকথনই ধরা থাকছে সেই বইয়ে।

সাদ্দাম নাকি বারবার সাবধান করতেন নিক্সনকে, “তোমরা ইরাক শাসন করতে পারবেনা। ব্যর্থ হবে তোমরা। ইরাকের ভাষা, ইতিহাস, ইরাকি মানুষের মনটাই বোঝোনা তোমরা।” নিক্সন এখন মনে করেন ইরাকের মতো বহুজাতিক দেশকে একমাত্র সাদ্দামই শাসন করতে পারতেন। নিক্সনের কথায়, “সাদ্দামের নেতৃত্বের ধরন, তাঁর নৃশংসতা আমি মেনে নিতে পারিনি কোনদিন। তবু তাঁর সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতাকে আমি শ্রদ্ধা করতাম। নিজের ক্ষমতার ভিত, এততুকু নড়বরে হলেই সাদ্দাম সবচেয়ে আগে টের পেতেন।”

নিক্সনের দৃঢ় বিশ্বাস, সাদ্দামরাজ চললে আইসিস এত শক্তিশালী হয়ে উঠতে পারত না কখনই। ইরাককে একটা সুতোয়ে বেঁধে রেখেছিলেন সাদ্দাম। বন্দিদশায় নিক্সনকে বলেন, “আমার আগে ইরাকে শুধু দ্বন্দ্ব ছিল, ঝগড়া ছিল। আমি ক্ষমতায় এসে মানুষকে সহমত হতে শিখিয়েছি।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here