Salman Rushdie

সলমন রুশদি (Salman Rushdie) এখন আগের থেকে ভালো আছেন। বুকারজয়ী ভারতীয় বংশোদ্ভূত লেখককে বার করা হয়েছে ভেন্টিলেটর থেকে। শুক্রবার হামলার শিকার হওয়ার পর গুরুতর অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছিল হাসপাতালে। তাঁর এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলি জানান, বর্তমানে কথা বলতে পারছেন লেখক। তবে, বর্তমানে তাঁর শারীরিক অবস্থা কেমন রয়েছে, সে ব্যাপারে বিশদে কিছু জানানো হয়নি।

রুশদির উপর হামলার নিন্দা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, লেখক অপরিহার্য এবং সর্বজনীন আদর্শের পক্ষে দাঁড়িয়ে রয়েছেন, সেগুলি হল-সত্য, সাহস এবং স্থিতিস্থাপকতা। তিনি আরও বলেন, “যাঁরা রুশদিকে সাহায্য করতে এবং হামলাকারীকে দমন করতে প্রথমে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন, তাঁদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।”

ও দিকে, নিউ ইয়র্কে লেখক রুশদি-র ওপর হামলার ঘটনায় সন্দেহভাজন একজনকে আটক করে পুলিশ। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, ২৪ বছর বয়সি ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। লেখককে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় হাদি মাতারের বিরুদ্ধে হত্যার চেষ্টা মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

নিউ ইয়র্ক পুলিশ জানিয়েছে, হাদি মাতার (Hadi Matar) নামে ওই ব্যক্তি নিউ জার্সির ফেয়ারভিউ এলাকার বাসিন্দা। নিউ ইয়র্ক স্টেট পুলিশ আরও জানিয়েছে, সন্দেহভাজন হামলাকারী দৌড়ে মঞ্চে উঠে রুশদির ওপর হামলা চালান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হামলাকারী ছুরি দিয়ে রুশদির ঘাড় এবং শরীরের অন্যান্য অংশে ১৫-২০ বার আঘাত করেছিলেন তিনি। এর পর শুক্রবার রাতেই লেখকের অস্ত্রোপচার করা হয়।

কে এই হামলাকারী হাদি মাতার?
জানা গিয়েছে, ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্ম হাদি মাতারের। তবে সে নিউজার্সিতে চলে যান। তাঁর সর্বশেষ ঠিকানা ফেয়ারভিউ। একটি সূত্রে খবর, ক্যালিফোর্নিয়ায় জন্ম হলেও হাদি আসলে ইরানি বংশোদ্ভুত। দীর্ঘ দিন ধরেই রুশদির বিপক্ষে ইরান। রুশদির যেমন ইরানে ঢোকা নিষিদ্ধ তেমনই ইরান রুশদির মাথার দাম রেখেছিল ৩৩ লক্ষ ডলার।

যদিও রুশদির ওপর হামলার কারণ এখনও অজানা। তবে মাতারের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টগুলো বিশ্লেষণ করে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম বলেছে, শিয়া চরমপন্থা ও ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসের প্রতি তিনি সহানুভূতিশীল। তবে আইআরজিসির সঙ্গে তাঁর সরাসরি কোনো সম্পর্কের প্রমাণ এখনও পর্যন্ত মেলেনি।

নিউ জার্সির ভুয়ো চালকের লাইসেন্স ও অস্ত্রসহ তাঁকে আটক করা হয়। পুলিশ হাদির বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ২০২০ সালে নিহত ইরানি কমান্ডার কাসেম সোলেমানির একটি ছবি পেয়েছে। তবে হাদির এর আগে কোনো অপরাধমূলক রেকর্ড নেই। তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে হামলার প্রকৃত কারণ জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন