বড়োদিনের ছুটি কাটিয়ে স্কুলে ফিরতেই ছাত্রীদের প্রেগন্যান্সি টেস্ট এবং এফজিএম বাধ্যতামূলক করল নারক কাউন্টি

প্রাচীন ঐত্যিহ্য মেনে বেশ কিছু সম্প্রদায়ের মধ্যে স্ত্রী অঙ্গহানির রীতি পালনের ঘটনাও নাবালক ছাত্রীদের জীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে থাকে

0
School Girls

ওয়েবডেস্ক: টানা কয়েক দিন ছুটি ছিল বড়োদিন ও ইংরাজি নতুন বছর উপলক্ষে। সেই ছুটি কাটিয়ে স্কুলে ফিরতেই ছাত্রীদের গর্ভাবস্থা পরীক্ষা এবং তারই সঙ্গে স্ত্রী যৌনাঙ্গে অঙ্গহানি বা এফজিএম টেস্ট করাতে হচ্ছে কেনিয়ার নারক কাউন্টিতে।

এমনিতে কেনিয়ায় নাবালিকাদের গর্ভধারণের দিক থেকে সবার শীর্ষে রয়েছে নারক কাউন্টি। সেখানে নাবালিকাদের গর্ভধারণ রুখতে নেওয়া হয় একাধিক ব্যবস্থা। এই নতুন ব্যবস্থাও সে সবেরই অঙ্গ।

জানা গিয়েছে, স্কুলছাত্রীদের কোনো রকমের যৌন অঙ্গহানির ঘটনা সামনে এলেই তা জানানো হচ্ছে পুলিশকে। অন্য দিকে যদি কোনো ছাত্রী অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়ে, সে ক্ষেত্রে তার পরিবারের লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে চালানো হচ্ছে এই ঘটনার নেপথ্যে থাকা পুরুষের।

সরকারি ভাবে জানানো হয়েছে, ছুটির সময় ছাত্রীরা বাড়িতেই থাকে। সে সময় এ ধরনের অবৈধ এবং ক্ষতিকর অনুশীলনের ঘটনা বেড়ে যায়। প্রাচীন ঐত্যিহ্য মেনে বেশ কিছু সম্প্রদায়ের মধ্যে স্ত্রী অঙ্গহানির রীতি পালনের ঘটনাও নাবালক ছাত্রীদের জীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে থাকে। ফলে সেই ধরনের কোনো অবাঞ্ছিত ঘটনার শিকার কেউ হয়েছে কি না, সেটাই যাচাই করে দেখে নেওয়া হচ্ছে।

[ আরও পড়ুন: খড়দহ-কাণ্ডে নয়া মোড়: ‘ধর্ষণ নয়, সম্মতিতে সহবাস’, দাবি মূল অভিযুক্তের ]

একই ভাবে প্রশাসনিক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, যদি কেই অন্ত‌ঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে অথবা যৌনাঙ্গ হানির শিকার হয়ে থাকে, সে সব ক্ষেত্রে তারা পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেবে। পাশাপাশি ছাত্রীর অভিভাবকদের ডেকে সচেতন করার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন