heart

ওয়েবডেস্ক: তার নামের সঙ্গেই জুড়ে রয়েছে ‘হোপ’ শব্দটি। আশ্চর্য কী, মৃত্যুর হাতছানি এড়িয়ে সে এখন আলিঙ্গন করেছে জীবনকে!

জানা গিয়েছে, মাতৃগর্ভে ৯ মাসেই ধরা দিয়েছিল এই বিস্ময়কর লক্ষণ। চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে জানিয়েছিলেন, ভেনেলোপ হোপ নামের এই ব্রিটেনের শিশুসন্তানটির শরীরের বাইরে বাড়ছে হৃৎপিণ্ড। যা পরবর্তীকালে নানা অসুখ তো ডেকে আনবেই, এমনকি তার প্রাণসংশয়েরও কারণ হতে পারে। সব দিক বিবেচনা করে মা-বাবাকে পরামর্শ দিয়েছিলেন চিকিৎসকরা, গর্ভেই সন্তানটিকে বিনষ্ট করে দেওয়া হোক!

heart

কিন্তু মা-বাবার মন এই প্রস্তাবে সায় দেয়নি। তাঁরা অত‌ঃপর দ্বারস্থ হয়েছিলেন লেইসেস্টারের গ্লেনফিল্ড হাসপাতালে কর্মরত বিশিষ্ট কলসালট্যান্ট পেডিয়াট্রিক কার্ডিওলজিস্ট ডা. ফ্রান্সেস বুলকের। তাঁর উদ্যোগেই সফল হয়েছে অস্ত্রোপচার, হৃৎপিণ্ডটিকে পুনরায় প্রতিস্থাপন করা হয়েছে শরীরের অভ্যন্তরে।

যদিও কাজটা মোটেই সহজ ছিল না। জন্মানোর পরে ১৩ থেকে ১৬ সপ্তাহ পর্যন্ত তাকে নানা রকম ভাবে স্ক্যান করে দেখা হয়। বুঝে নেওয়া হয় তার শারীরিক হালহকিকত। তার পরেই ৫০ জন ডাক্তারের একটি দল মোট তিনটি অস্ত্রোপচারের পরে স্বাভাবিক জীবনছন্দে ফিরিয়ে আনেন ভেনেলোপকে। বিশ্বাস না হলে চোখ রাখুন ভিডিওয়।

আপাতত বহাল তবিয়তেই আছে তিন সপ্তাহের ভেনেলোপ। মায়ের কোল জুড়ে চলছে তার হাসি-খেলার পালা। যা স্বাভাবিক ভাবেই হাসি এনেছে মায়ের মুখেও। “আমি বলে বোঝাতে পারব না কী উপকার আমার করেছেন এই চিকিৎসকদল। তাঁরা সত্যিই আশ্চর্য ক্ষমতা ধরেন”, জানিয়েছেন ভেনেলোপের মা নাওমি ফিন্ডলে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here