pakistan awami national party

পেশওয়ার: পাকিস্তানের চরমপন্থা বিরোধী এক বামপন্থী রাজনৈতিক দলের সভায় আত্মঘাতী বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছে প্রার্থী-সহ ১৩ জনের। আহত ৫০-এরও বেশি। নির্বাচনের প্রাক্কালে এটাই সব থেকে বড়ো ধরনের হামলা হল পাকিস্তানে।

যে দলের সভায় এই হামলা হয়েছে সেই আওয়ামি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা খান আবদুল ওয়ালি খান। তাঁর বাবা খান আবদুল গফফর খান। ইতিহাসের পাতায় যাঁকে আমরা ‘সীমান্ত গান্ধী’ বলে জানি। এই মাসের শেষের দিকে পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন। পাকিস্তানকে সম্পূর্ণ ভাবে জঙ্গিবাদ মুক্ত করাই এই দলের অন্যতম দাবি ছিল। তালিবান এবং অন্যান্য জঙ্গি সংগঠনের বিরুদ্ধে বারবার সুর চড়িয়েছেন এই দলের নেতানেত্রীরা। সেই দলের সভাকে যে জঙ্গিরা টার্গেট করবে সেটা বোধহয় ভবিতব্যই ছিল। অতীতেও এই দলের সভা লক্ষ করে হামলা চালিয়ে তালিবানরা।

এই হামলায় মৃত্যু হয়েছে দলের প্রার্থী হারুন বিলৌরের। খাইবার প্রদেশের এক প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব ছিলেন হারুন। পেশাওয়ারের পুলিশ প্রধান জানিয়েছেন, এই হামলার মূল লক্ষ্য হারুনই ছিলেন। একটি সভায় যখন বক্তৃতা দেওয়ার জন্য মঞ্চে উঠছিলেন হারুন, তখনই তাঁর ওপরে হামলা হয়।

এই হামলার এখনও পর্যন্ত কেউ দায় স্বীকার না করলেও, গত কয়েক বছরে পেশওয়ার শহরে একাধিক হামলার ঘটনায় নাম জড়িয়েছে তালিবানের।

এ বার নির্বাচনে আওয়ামি জাতীয় পার্টির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে বাম মনোভাবাপন্ন দল হিসেবে পরিচিত বেনজির ভুট্টোর পাকিস্তান পিপলস পার্টি। কিন্তু জঙ্গি হামলার ভয়ে পেশওয়ারে তারা ভালো করে নির্বাচনী প্রচারই করতে পারছে না। শত বাধা সত্ত্বেও আওয়ামি জাতীয় পার্টি জানিয়েছে, তারা নির্বাচনী প্রচার চালাবেই। জঙ্গিবাদ, চরমপন্থা মুক্ত পাকিস্তান তৈরি করবেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here